September 17, 2021, 6:45 am
Title :
রাজবাড়ীতে নদী তীর সংরক্ষণ কাজের ৫০ মিটার সিসি ব্লক বিলীন দৌলতদিয়া ঘাটে ওরস ফেরত গাড়ির চাপে লম্বা লাইন, দুর্ভোগ রাজবাড়ীতে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের অভিযান, মাদকসহ গ্রেপ্তার ৩ পদ্মা নদীতে অবৈধভাবে মাটি খনন করায় ঝুঁকিতে রাস্তা-বসতভিটা বালিয়াকান্দিতে ইয়াবাবড়ি ও টাকা সহ দুই তরুণ গ্রেপ্তার মাঝ রাতে বিয়ে করলেন চিত্র নায়িকা মাহিয়া মাহি রাজবাড়ীতে হেরোইনসহ ট্রেন যাত্রী গ্রেপ্তার আইন শৃঙ্খলা সভাঃ “আমার ছেলে মদ-ই খেয়েছে, ডাকাতি তো করেনি”! দৌলতদিয়ায় মদ খেয়ে মাতলামী, ১১ মামলার আসামীসহ গ্রেপ্তার ৪ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে প্রাণ ফিরে এসেছে, স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত

১৬ ডিসেম্বর সারাদেশ শত্রু মুক্ত হলেও রাজবাড়ী মুক্ত হয় ১৮ ডিসেম্বর

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১৭, ২০২০
  • 31 Time View
শেয়ার করুনঃ

ইমরান হোসেন, রাজবাড়ীঃ রেলের শহরের কারনে মুক্তিযুদ্ধের সময় রাজবাড়ী ছিল বিহারী অধ্যুসিত অঞ্চল। এখানে ছিল প্রায় ২০ হাজার অবাঙ্গালী বিহারীর আবাসস্থল। যে কারণে রাজবাড়ীকে শত্রুমুক্ত করতে বেগ পেতে হয় মুক্তিযোদ্ধাদের। ১৬ ডিসেম্বর একে একে সারাদেশ বিজয়ের আনন্দে ভাসছে, তখনও রাজবাড়ীতে চলছে অবাঙ্গালী বিহারীদের সাথে মুক্তিযোদ্ধাদের তুমুল যুদ্ধ।

এক পর্যায়ে বিহারীদের সাথে পেরে না ওঠায় স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে প্রতিবেশি জেলার মুক্তিযোদ্ধারা যোগ দিয়ে বিহারীদের পরাজিত করে রাজবাড়ী ১৮ ডিসেম্বর শত্রুমুক্ত করেন। এ যুদ্ধে শহীদ হন খুশি, রফিক, সফিক, সাদি শহীদ এবং আহত হন অনেকে।
৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধে লাখো শহীদের রক্ত ও মা-বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে অর্জিত হয় আমাদের স্বাধীনতা। ১৬ ডিসেম্বর পাকবাহিনী আত্মসমর্পন করলেও রাজবাড়ী শহর তখনো পাক হানাদার ও বিহারীদের কবল থেকে মুক্ত হয়নি। ফলে দুই দিন পর ১৮ ডিসেম্বর রাজবাড়ী স্বাধীন হয়। তারপর একে একে রাজবাড়ী, যশোর, মাগুরা কুষ্টিয়া ও ফরিদপুরসহ বিভিন্ন স্থান থেকে মুক্তিবাহিনী এসে জেলা শহরে সংগঠিত হয়। এ খবরে বিহারীরা রেল লাইনের পাশে অবস্থান নেয় এবং লোকোশেড থেকে ড্রাইআইস ফ্যাক্টরি পর্যন্ত মালগাড়ী দিয়ে রেললাইন অবরুদ্ধ তৈরি কে রাখা হয়। মুক্তিযোদ্ধারা বিহারীদের লক্ষ্য করে গুলিবর্ষন করতে থাকলে মালগাড়ীর কারণে তাদের কোন ক্ষতি করা যায়নি। বিকল্প পথ হিসেবে যশোর থেকে আনা মর্টারের গুলিবর্ষন শুরু করলে বিহারীদের সাথে তুমুল যুদ্ধ সংগঠিত হয়। এক পর্যায় বিহারীদের আত্মসমর্পণের মাধ্যমে রাজবাড়ী স্বাধীন হয়।

অবাঙ্গালী বিহারীদের বসবাস ছিল শহরের নিউ কলোনি, আটাশ কলোনী, ষ্টেশন ও লোকোশেড কলোনী এলাকায়। পাকিস্থান আমলে তাদের ছিলো প্রচন্ড প্রভাব এই অঞ্চলে। পুরো রেললাইন এলাকা ছিলো বিহারীদের দখলে। পাক বাহিনী রাজবাড়ীতে প্রবেশের পর বিহারীরা তাদের সাথে যোগ সাজসে নির্বিচারে চালাতে থাকে জ¦ালাও পোড়াও এবং গণহত্যা।

প্রথম ২১ এপ্রিল ১৯৭১ সাল বুধবার রাত ৩টার দিকে আরিচা থেকে বেলুচ রেজিমেন্টের মেজর চিমারের নেতৃত্বে ‘রণবহর’ নিয়ে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে ঝাপিয়ে পড়ে পাকবাহিনী। রাজবাড়ীতে চলতে থাকে অবাঙ্গালী, বিহারী, পাকবাহিনী ও রাজাকারদের সাথে তুমুল যুদ্ধ।

বীর মুক্তিযোদ্ধা, মোঃ শাহজাহান, আবু তালেব, আক্তার হোসেন, খন্দকার গোলাম কবির ও এ্যাডভোকেট আব্দুল গফুর সরদার বলেন, ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর সারাদেশ বিজয় অর্জন করলেও রাজবাড়ীতে বিহারী ও মিলিশিয়াদের অধ্যুসিত এলাকা হওয়ায় যুদ্ধ করে রাজবাড়ীকে ১৮ডিসেম্বর শত্রু মুক্ত করেন। অবাঙ্গালী বিহারীদের সাথে যুদ্ধ করতে স্থানীয়দের সাথে যশোর, মাগুড়া, ফরিদপুর, কুষ্টিয়ার মুক্তিযোদ্ধারা অস্ত্রসস্ত্র দিয়ে সহযোগীতা করেন। এ সময় শহীদ খুশি’সহ কয়েকজন শহীদ হন। রাজাকাররা সাধারন মানুষর উপর অমানুষিক নির্যাতন করে নিউ কোলনী, আঠাশ কোলনী, লোকশেডসহ বিভিন্নস্থানে মানুষ হত্যা করে মাটিতে পুতে রাখে।

তাঁরা বলেন, রাজবাড়ী যুদ্ধ হয় ৮নম্বর সেক্টেরের অধীনে। শহর ছিল অবাঙ্গালী বিহারী অধ্যুসিত অঞ্চল। মুক্তি যোদ্ধারা অংশ গ্রহন করেও হানাদার বাহীনীদের সাথে পেরে ওঠেন নাই। নিজেদের রক্ষায় ঢাল হিসবে ট্রেনের বগি,পাথর ব্যবহার করেছে। ১৪ ডিসেম্বর বিকালে মুক্তিযোদ্ধারা রাজবাড়ী শহর ঘিরে ফেললে অবাঙ্গালীদের সাথে তুমুল যুদ্ধ শুরু হয়। এখানে দশ হাজারের অধিক অস্ত্রধারী স্বাধীনতা বিরোধী থাকায় দীর্ঘ সময় যুদ্ধ করেও মুক্তিযোদ্ধারা পেরে ওঠেন নাই, কিন্তু মুক্তিযোদ্ধারা তাদের ঘিরে রেখেছিলেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102