September 18, 2021, 8:19 am

রাজবাড়ীতে ধান আবাদের খরচ উঠছে খর বিক্রি করে, লাভবান কৃষকেরা

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০২০
  • 27 Time View
শেয়ার করুনঃ

ইমরান হোসেন, রাজবাড়ীঃ গবাদি পশুর খাবার হিসেবে পরিচিত ধানের গাছ শুকানো খর বা বিচালি। ধান গাছ শুকিয়ে খর বা বিচালি তৈরী করে তা বাজার এবং বাড়ি থেকে বিক্রি করা হয়। খাবারের চাহিদা থাকায় বাজার দর বেড়েছে আগের চেয়ে কয়েকগুন। এক বিঘা জমির খর বিক্রি হচ্ছে ৭ থেকে ৮ হাজার টাকায়। ব্যবসায়ীরা লাভের আশায় খর কিনছেন ব্যবসার উদ্দেশে।

এক বিঘা জমিতে যে পরিমান টাকার ধান পাওয়া যায় তার প্রায় অর্ধেকের বেশি টাকার খর পাওয়া যায় ক্ষেত থেকে। এই খর বিক্রি করে ধান আবাদের খরচ উঠে যায়। এক বিঘা জমিতে ধান আবাদ করতে চাষ, বীজ, কীটনাশক সহ বিভিন্ন ধরনের খরচ মিলে ৫ থেকে ৬ হাজার টাকা খরচ হয়। সেখানে এক বিঘা জমিতে খর পাওয়া যায় ৭ থেকে ৮ হাজার টাকার। খর বিক্রি করে অবাদের সমস্ত অর্থই উঠে যায়ে। বর্তমানে বাজারে চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় খরের দাম বেড়েছে। এ কারনে কৃষকদের ফসলের মাঠে যত্নসহকারে আটি বেঁধে শুকাতে দেখা গেছে। বর্ষা মৌসুমে ফসলী মাঠ পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় খরের কদর বেড়ে যায় এবং দামও অনেক বেশি হয়।

গত বছরের চাইতে এই বছর খরের দাম প্রায় দ্বিগুনেরও বেশি হয়েছে। খর বিক্রি করে কৃষকের ধান আবাদে বাড়তি লাভ করতে পারছেন। অনেকে গবাদি পশু পালন করছেন এই খর খাবার হিসিবে ব্যবহার করে। এতে তাদের বাড়তি খরচও কমেছে। অন্য জেলার বিভিন্ন ব্যাবসায়ীরা খর কিনে নিচ্ছেন রাজবাড়ীর বিভিন্ন চাষিদের কাছ থেকে। তারাও বিক্রি করতে এই খর কিনে নিচ্ছেন। বর্তমানে প্রতি ১শ আটি (মুষ্ঠি) খর বিক্রি হচ্ছে পাইকারি ৭ থেকে ৮শ টাকায়। আর খুচড়া ১শ আটি বিক্রি হচ্ছে হাজার টাকায়। অনেক কৃষক সারা বছর খর মজুদ করে রাখের গবাদি পশুর খাদ্য হিসেবে ও বিক্রি করার জন্যে।

চাষিরা বলেন, এবছর ধানের বাজার দরের পাশাপাশি গবাদি পশুর খাবার খরের দাম অনেক বেশি। গত বারের চেয়ে দ্বিগুনের বেশি দামে খর বিক্রি হচ্ছে। এতে ধান চাষিরা খর বিক্রি করে ধান আবাদের খরচ ছাড়াও অতিরিক্ত আয় হচ্ছে। বিঘা প্রতি ৭ থেকে ৮ হাজার টাকার খর বিক্রি করতে পারছেন কৃষকেরা। এতে এবছর ধান আবাদে দুই দিক দিয়ে লাভবান তারা।

রাজবাড়ী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা গোপাল কৃষœ দাস বলেন, এবছর ধান আবাদে চাষিরা লাভবান হওয়ার পাশাপাশি গবাদি পশুর খাবার হিসেবে যে খর পাচ্ছেন এতে চাষিদের আবাদের সমস্ত খরচ উঠে যাচ্ছে। ধানের উপজাত হিসেবে খর পাচ্ছেন, এতে বাড়তি আয় হচ্ছে। বিঘা প্রতি ৫ থেকে ৬ হাজার টাকার খর পাচ্ছেন ধান আবাদ করে। বাজারে চাহিদা ও দাম ভালো থাকায় বেশি দামে খর বিক্রি করে বাড়তি লাভবান হচ্ছেন। উফসি জাতের ধান আবাদে সম পরিমান খর পেয়ে থাকেন কৃষকেরা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102