December 3, 2021, 12:44 am

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়াঃ কুয়াশায় দ্বিতীয় দফায় ১০ ঘন্টার বেশি ফেরি চলাচল বন্ধ, দুর্ভোগ

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ডিসেম্বর ৭, ২০২০
  • 39 Time View
শেয়ার করুনঃ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ ঘন কুয়াশায় দ্বিতীয় দফায় রোববার দিবাগত মধ্যরাত থেকে সোমবার সকাল ১০টা পর্যন্ত ১০ঘন্টার বেশি রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ও মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া নৌপথে ফেরি, লঞ্চ চলাচল বন্ধ ছিল। এতে উভয় ঘাটে কয়েক কিলোমিটার যানজট সৃষ্টি হয়। দুর্ভোগের কবলে পড়েন অসংখ্য মানুষ। দীর্ঘক্ষণ যানজটে আটকে থাকায় ক্ষতিগ্রস্ত হন মাছ ও সবজি ব্যবসায়ীরা। এর আগে রোববার সকালে কুয়াশায় দুই ঘন্টার মতো ফেরি চলাচল বন্ধ ছিল।

সোমবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর পর্যন্ত দৌলতদিয়ায় অপেক্ষা করে দেখা যায়, ফেরিঘাট থেকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের তিন কিলোমিটার ছাড়িয়ে যানবাহনের লম্বা লাইন। লাইনে আগের দিন দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে আসা নৈশ কোচ নদী পাড়ের অপেক্ষা করছে। ১১-১২ ঘন্টা করে ফেরি ঘাটে অপেক্ষা করছে। তবে মাছ ও পচনশীল পণ্যবাহি গাড়ি নিয়ে দীর্ঘক্ষণ আটকে থাকায় দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন চালক ও পণ্যের মালিকরা।

মোংলা থেকে আসা ঢাকাগামী দিগন্ত পরিবহনের চালক আলমগীর হোসেন সোমবার বেলা সাড়ে ১০টার দিকে বলেন, ২৫জন যাত্রী নিয়ে রোববার রাত ১১টার দিকে দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটের কাছে সিরিয়ালে আটকা পড়েন। কিছুক্ষণ পর জানতে পারেন ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। কি আর করার সারারাত ঘাটেই যাত্রীদের নিয়ে বসে থাকেন। সকালে বেশ কয়েকজন যাত্রী জরুরীভাবে ট্রলারে করে নদী পাড়ি দিতে বাস থেকে নেমে যান।

খুলনার মোংলা বন্দর থেকে মাছ বোঝাই করে রোববার সন্ধ্যায় সিলেটের উদ্দেশ্যে রওয়ানা করে রাত ১১টার দিকে ফেরি ঘাটের কাছে পৌছেন চালক। সোমবার বেলা সাড়ে ১০টার দিকে আলাপকালে গাড়ি চালক আলামিন সরদার বলেন, গাড়িতে রুই-কাতলা জাতীয় প্রায় ৭ লাখ টাকার মাছ রয়েছে। এই মাস ভোরে সিলেটের বাজার ধরতে হয়। কিন্তু সারারাত ঘাটে বসে থাকায় বরফ গলে মাছ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

গাড়ি মালিক (খুলনা মেট্রো ন-১১-১৯৩৫) আসিফ সরদার বলেন, প্রতিদিন ভোর ৬টার দিকে সিলেটের বাজারে এই মাছ বিক্রি হয়। কিন্তু বেলা সাড়ে ১০টা বাজলেও এখন পর্যন্ত ফেরিতে উঠতে পারিনি। যে কারণে এসব মাছ এখন নষ্ট হয়ে যাবে। আমাদের এরকম আরো চারটি মাছের গাড়ি রয়েছে। যারা প্রত্যেকে সিলেটে গিয়ে ভোরে মাছের বাজার ধরি। ফেরি বন্ধ থাকায় রাতভর ঘাটে থাকায় সব মাছ নষ্ট হচ্ছে। এখন এই মাছ কি করবো আমরা সেটাই ভাবছি। এতে করে সবাই লাখ লাখ টাকার ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন সংস্থা (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক আবু আব্দুল্লাহ বলেন, দ্বিতীয় বারের মতো রোববার দিনগত রাতে ভারী কুয়াশা পড়তে থাকে। রাত বাড়ার সাথে কুয়াশা বাড়তে থাকলে দুর্ঘটনা এড়াতে ১২টার দিকে ফেরি বন্ধ করা হয়। এর আগে উভয় ঘাট থেকে ছেড়ে যাওয়া পাঁচটি ফেরি মাঝ নদীতে আটকা পড়ে। ১০ ঘন্টা পর সোমবার সকাল ১০টার দিকে কুয়াশা কমলে ফেরি চালু হয়। তিন শতাধিক নৈশকোচ ও কয়েকশ পন্যবাহি গাড়ি পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102