June 22, 2021, 9:11 pm
Title :
রাজবাড়ীতে পুকুরে মাছের পোনা অবমুক্ত ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ দৌলতদিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে করোনায় সংক্রমণ রোধে কঠোরবিধি নিষেধ, পৌরসভার উদ্যোগে মাস্ক বিতরণ গোয়ালন্দ থানা পুলিশের উদ্যোগঃ বিট পুলিশকে তথ্য দিন, নিরাপদে কাটবে দিন করোনা নিয়ে উদ্বেগঃ রাজবাড়ীর তিন পৌরসভায় এক সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ রাজবাড়ীতে দ্বিতীয় পর্যায়ে ঘর পেল ভূমিহীন ৪৩০টি পরিবার পাংশায় আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের মাঝে জমিসহ গৃহ প্রদান কার্যক্রম অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে নতুন ঘরে নতুন আশা নিয়ে নতুন দিনের স্বপ্নে ৩০ পরিবার এবার যমুনা নদীতে জেলেদের জালে ধরা পড়লো ৪৭ কেজি ওজনের বাগাড় রাজবাড়ীতে ১০দিন ব্যাপি সাঁতার প্রশিক্ষণ উদ্বোধন

মৃত দেহ ধর্ষণঃ অপরাধী হলে মুন্নার উপযুক্ত শাস্তি চান পরিবার ও এলাকাবাসী

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, নভেম্বর ২২, ২০২০
  • 10 Time View
শেয়ার করুনঃ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের মর্গে আসা লাশের সাথে শারীরিক সংসর্গের অভিযোগে অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) হাতে গ্রেপ্তার মুন্না ভক্তের পরিবার অপরাধ করলে উপযুক্ত শাস্তি চান। তবে পরিবারের বিশ্বাস মুন্না ভক্ত ষড়যন্ত্রের শিকার। শনিবার আলাপকালে এ প্রতিবেদককে মুন্নার পরিবার কথাগুলো বলেন।

শনিবার সকালে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ পৌরসভা বাজার রেলষ্টেশন সংলগ্ন সুইপার কলোনীর (কুলি পট্রি) কালি মন্দির সংলগ্ন মুন্না ভক্তের বাড়িতে গিয়ে কাউকে পাওয়া যায়নি। বাড়ির বাইরের গেটে তালা মারা রয়েছে। দুপুরে পুনরায় গিয়ে বাড়ির সামনে রাস্তায় দাড়িয়ে মুন্নার বাবা দুলাল ভক্তকে অন্যের সাথে আলাপচারিতায় পাওয়া যায়।

দুলাল ভক্ত বলেন, গোয়ালন্দ আইডিয়াল হাই স্কুলে অষ্টম শ্রেনীতে পড়াশুনা অবস্থায় তিন বছর আগে পড়াশুনা বাদ দেয় মুন্না। স্থানীয় কিছু নেশাগ্রস্ত, বখাটে ছেলেদের সাথে নিয়মিত আড্ডা দিয়ে গাঁজা, ইয়াবার মতো নেশায় আশক্ত হয়ে পড়ে। পরিবারের একমাত্র ছেলে মুন্না পড়াশুনা বাদ দিয়ে নেশায় আশক্ত হওয়ায় সবাইকে ভাবিয়ে তোলে। উপায় খুঁজতে গোয়ালন্দ থেকে মুন্নাকে অন্যত্র সরানোর সিদ্ধান্ত নেন। পরবর্তীতে ঢাকার সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের মর্গে ডোম হিসেবে কাজ করা মুন্নার বড় মামা যতন কুমারকে বিষয়টি জানান। তার কাছে রেখে কাজ শেখার জন্য মুন্নাকে নিয়ে যেতে বললে আড়াই বছর আগে এখান থেকে ঢাকায় চলে যায়। এরপর থেকে ঢাকায় মামার কাছে থেকে ডোমের কাজ শিখতো। তার আগে ওই হাসপাতালে তিনি (দুলাল ভক্ত) নিজে শ্রমিকের কাজ করতেন। প্রায় চার বছর আগে বাদ দিয়ে গোয়ালন্দে ফিরে আসেন। সর্বশেষ গত শারদীয় দুর্গা পূজার অষ্টমীর দিন মুন্না বাড়ি ফিরে আসে, এরপর আর আসেনি।

গত বুধবার দিবাগত রাত দশটার দিকে ছেলে মুন্নাকে ফোনে করে খোঁজ নিতে গিয়ে দেখেন ফোন বন্ধ। পরদিন সকালেও ফোন করে বন্ধ পাওয়ায় দুশ্চিন্তায় পড়েন। পরে মুন্নার মামা যতিন কুমারের কাছে ফোন করলে তিনি তখন বিষয়টি তাদেরকে জানান। এরপর থেকে বাড়ির সবাই কান্নাকাটি করতে থাকে। বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে এলাকার মানুষও জেনে যায়। বাজারের কয়েকজন ছেলের এমন অপকর্মের কথা বললে তিনি বিশ্বাস করতে পারছিলেন না মুন্না এমন কাজ করতে পারে।
দুলাল ভক্তের দাবী, মুন্নাকে ষড়যন্ত্র করে পুলিশে ধরিয়ে দিতে পারে। মুন্না এমন কাজ করতে পারে বলে তাদের বিশ্বাস হচ্ছে না। তারপর ছেলে যদি এমন অপরাধ করে থাকে এবং প্রমানিত হলে তার উপযুক্ত শাস্তি চান। তবে বিষয়টি ভালোভাবে খতিয়ে দেখার অনুরোধ করেন। মা মুন্নী রানী ভক্ত একমাত্র ছেলের এমন খবর পেয়ে খাওয়া-দাওয়া বন্ধ করে দিয়েছেন। শনিবার খুব সকালে ঢাকার উদ্দেশ্যে চলে গেছেন।

প্রতিবেশী রাজেশ ভক্ত বলেন, মুন্না এলাকায় থাকা অবস্থায় পড়াশুনা বাদ দিয়ে স্থানীয় কিছু মাদকসেবীর সাথে নিয়মিত আড্ডা দিত। সেই থেকে সে নেশায় আশক্ত হয়ে পড়ে। এলাকায় কখনো কোন খারাপ কাজের সাথে জড়িত হয়নি বা শোনাও যায়নি। তাদের বিশ্বাস হচ্ছে না মুন্না এমন কাজটি করতে পারে। যদি করে থাকে তাহলে সে চরম অপরাধ করেছে।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল তায়াবী জানান, এমন খবর তিনি বিভিন্ন গণমাধ্যম এবং সামাজিক মাধ্যমে দেখতে পান। মুন্না ভক্তের নামে থানায় কোন অভিযোগ নেই। তবে ঘটনাটি ন্যাক্কারজনক বলে তিনি জানান।

প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের মর্গে আসা লাশের সাথে শারীরিক সংসর্গের অভিযোগে অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) হাতে আটক মুন্না ভক্তকে গ্রেপ্তার করেছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102