October 23, 2021, 10:37 am
Title :
রাজবাড়ীতে চলন্ত ট্রেনে দুর্বৃত্তদের ছোড়া ঢিলে যুবক আহত দৌলতদিয়া যৌনপল্লির বাসিন্দাদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ গোয়ালন্দে চুরির ১০ দিন মটরসাইকেল উদ্ধার, তিন যুবক গ্রেপ্তার রাজবাড়ীতে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির মানববন্ধন ও সমাবেশ রাজবাড়ীতে হিন্দু মহাজোট ও ছাত্র মহাজোটের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ গোয়ালন্দে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের নিয়ে একেকে’র প্রশিক্ষন কর্মশালা দৌলতদিয়ায় ডিবির অভিযানে ২৫০ পিস ইয়াবা সহ গ্রেপ্তার ২ রাজবাড়ীতে নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ইলিশ শিকার করায় ১১ জেলের জেল গোয়ালন্দ উপজেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটি গঠন রাজবাড়ীতে ছাদ থেকে পড়ে রাজমিন্ত্রী নিহত

করোনায় আয় কমে যাওয়ায় ভালো নেই দৌলতদিয়া যৌনপল্লির বাসিন্দারা

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, নভেম্বর ১৪, ২০২০
  • 78 Time View
শেয়ার করুনঃ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ দেশের সর্ববৃহৎ রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া যৌনপল্লির বাসিন্দারা ভাল নেই। করোনার শুরুতেই যৌনপল্লি লকডাউন করায় বাইরের আগত খরিদ্দারদের আনাগোনা বন্ধ হয়ে যায়। এতে যৌনপল্লিতে বসবাসরত যৌনকর্মী, বাড়িওয়ালা এবং পল্লিতে গড়ে ওঠা ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের কেউ ভাল নেই। বিশেষ করে রোজগার অনেকটা বন্ধের উপক্রম হওয়ায় যৌনকর্মীদের মানবেতর জীবন যাপন করতে হচ্ছে।

আলাপকালে যৌনপল্লির বাসিন্দারা জানায়, করোনা প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে পুলিশ ২০ মার্চ দৌলতদিয়া যৌনপল্লি লকডাউন করে। বহিরাগত লোক প্রবেশ করতে পারবে না মর্মে তাদের জানিয়ে দেওয়া হয়। সেই সাথে পল্লির প্রধান প্রবেশ পথ ছাড়া চারপাশের বিভিন্ন পথ বন্ধ করে দেওয়া হয়। যে কারণে পল্লিতে বসবাসরত যৌনকর্মীসহ দেড় হাজার বাসিন্দারা পড়েন বিপাকে। আয় রোজগারের পথ অনেকটা বন্ধ হওয়ায় যৌনকর্মীরা মানবেতর জীবন যাপন করতে থাকে। পল্লি ঘিরে গড়ে ওঠা কয়েকশ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী পড়েন বিপাকে। উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ বাহিনী বিভিন্ন সময় যৌনকর্মীদের খাদ্য সহায়তা দিতে থাকেন। পাশাপাশি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয় বিভিন্ন বেসরকারী সংস্থা। কিন্তু তাদের চাহিদার তুলনায় বরাদ্দের পরিমান ছিল কম।

প্রায় এক যুগ ধরে পল্লিতে বাস করেন এক যৌনকর্মী (৩৫) বলেন, জীবনে এমন কষ্ট আগে করিনি। প্রতিদিন ৪০০ টাকার রুম, খাওয়াসহ প্রতিদিন ৬০০-৭০০ টাকা প্রয়োজন। লকডাউন থাকায় খরিদ্দার আসা বন্ধ হয়ে যায়। সরকারি বা এনিজও সাহায্য দিলেও কয়দিন চলে? পরে ঘরভাড়া অর্ধেক করলেও আয় না থাকায় কষ্টে দিতে হচ্ছে। এমনো গেছে, দুইদিন না খেয়ে থাকছি। বাধ্য হয়ে পরিচিত খরিদ্দারদের থেকে বিকাশে অগ্রিম টাকা নিয়েছি। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে মানুষ হালকা আসতে থাকে। এখন কোনদিন ৫০০ টাকা আয় হয়, কোনদিন তাও হয়না।

অল্প বয়সী এক যৌনকর্মী বলেন, আগে দিনে ২-৩ হাজার টাকা আয় করেছি। এখন কোনদিন ৫০০ টাকার বেশি হয় না। মাঝে কয়েকদিন অবস্থা আরো খারাপ হয়েছিল। এমন পরিস্থিতির কারণে এখান থেকে অনেক মেয়ে পালিয়ে অন্যত্র চলে গেছে। কেউ ভিন্ন পেশা বেছে নিয়েছে। মানুষজনের আনাগোনা না থাকায় সবার পরিস্থিতি খারাপ বলে জানান।

কাজী সিরাজ খাবার হোটেলের তদারককারি আব্দুস সালাম বলেন, আগে প্রতিদিন বেচাবিক্রি শেষে প্রায় ৩-৪ হাজার টাকা থাকতো। বর্তমানে পরিস্থিতি এত খারাপ যে দিন শেষে ১ হাজার টাকাও থাকেনা। করোনার কারণে মানুষজন তেমন আসে না। কেউ আসলেও বেশিক্ষণ দেরি না করেই দ্রুত চলে যায়। আবার অনেকে হোটেলে খেতেও ভয় পায়।

যৌনকর্মীদের নিয়ে গঠিত অবহেলিত নারী ঐক্য সংগঠন এর সভানেত্রী ঝুমুর বেগম বলেন, প্রায় ১৩৫০ যৌনকর্মী এবং ২০০ জনের মতো বাড়িওয়ালী আছেন। লকডাউন শুরু হলে আড়াই মাস সংগঠনের পক্ষ থেকে সবাইকে বাড়ি ভাড়া নেয়া বন্ধ করেছিলাম। এখন অনেকটা শিথিল হওয়ায় সবাই আগের মতো ভাড়া দিচ্ছে। মানুষের আনাগোনা স্বাভাবিক না হওয়ায় সবাই ভাল নেই।

যৌনকর্মীদের নিয়ে কাজ করে মুক্তি মহিলা সমিতির নির্বাহী পরিচালক মর্জিনা বেগম বলেন, পল্লিতে টানা চার মাস লকডাউন থাকায় এখানকার বাসিন্দাদের অবস্থা খুব খারাপ। বর্তমানে কিছুটা শিথিল হলেও অনেকে ভয়ে আসেনা। বিভিন্ন ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে আমরা চারবার শিশু খাদ্য এবং বেশ কয়েকবার বিভিন্ন ধরনের খাদ্য সামগ্রী দিয়েছি।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর বলেন, যৌনপল্লিতে অবাধ যাতায়াত বন্ধ করতে লকডাউন করা হয়। এসময় পুলিশের ডিআইজি হাবিবুর রহমান এবং পুলিশ সুপার মিজানুর রহমানের তত্বাবধানে ৯ দফা খাদ্য সামগ্রী দেয়া হয় । কোরবানীর ঈদে প্রথমবার তাদেরকে মাংস দেয়া হয়েছে। বর্তমানে করোনা পরিস্থিতি শিথিল থাকায় তারা অনেকটা স্বাভাবিক আছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102