June 21, 2021, 4:37 pm
Title :
করোনা নিয়ে উদ্বেগঃ রাজবাড়ীর তিন পৌরসভায় এক সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ রাজবাড়ীতে দ্বিতীয় পর্যায়ে ঘর পেল ভূমিহীন ৪৩০টি পরিবার পাংশায় আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের মাঝে জমিসহ গৃহ প্রদান কার্যক্রম অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে নতুন ঘরে নতুন আশা নিয়ে নতুন দিনের স্বপ্নে ৩০ পরিবার এবার যমুনা নদীতে জেলেদের জালে ধরা পড়লো ৪৭ কেজি ওজনের বাগাড় রাজবাড়ীতে ১০দিন ব্যাপি সাঁতার প্রশিক্ষণ উদ্বোধন গোয়ালন্দে সংবাদপত্রের এজেন্টের দোকানে জানালার গ্রিল কেটে চার লাখ টাকা চুরি গোয়ালন্দে অস্বচ্ছল নারীদের মাঝে বিনামূল্যে সেলাই মেশিন বিতরণ সামান্য বৃষ্টিতে রাজবাড়ীর বড় বাজার নোংরা ও দূষিত পানিতে সয়লাব, দুর্ভোগ গোয়ালন্দে আগুনে ঘর পুড়ে সর্বশান্ত ৫ পরিবার

রাজবাড়ীর প্রাচীনতম শত বছর বয়সী একটি মঠ ধসে পড়েছে, আরেকটি সংরক্ষণের দাবী

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১২, ২০২০
  • 6 Time View
শেয়ার করুনঃ

রাকিবুল হকঃ রাজবাড়ী সদর উপজেলার পাচুরিয়ার মুকুন্দিয়ায় অবস্থিত তৎকালীন জমিদার দ্বারকানাথ সাহা চৌধুরী ও তাঁর স্ত্রীর জ্ঞানোদা সুন্দরীর সমাধি সৌধ ওপর তৈরী প্রাচীনতম দুটি মঠের একটি ধসে পড়েছে। অবশিষ্ট মঠটি রক্ষণাবেক্ষন করতে স্থানীয়রা দাবি জানিয়েছেন। এলাকাবাসীর অভিযোগ, মঠের চারপাশ থেকে অপরিকল্পিতভাবে মাটি খনন করায় ধসে পড়ার অন্যতম কারণ।

সরেজমিন দেখা যায়, রাজবাড়ী সদর উপজেলা থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার দূর পাচুরিয়া ইউপির মুকুন্দিয়া বাজার সংলগ্ন মুকুন্দিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে অবস্থিত প্রাচীনতম দুটি মঠ। যার একটির উচ্চতা আনুমানিক প্রায় ১০০ ফুট। অপরটির উচ্চতা ছিল আনুমানিক প্রায় ৪০ ফুট। বড় মঠের ভিতর মাঝে স্মৃতিস্তম্বে খোদাই করে লেখা রয়েছে পরমারাধ্য পিতৃদেব দ্বারকানাথা সাহা চৌধুরী। জন্ম ১২৪৪/১২ জ্যৈষ্ঠ, বুধবার, মৃত্যু ১৩২২/২০ জ্যৈষ্ঠ, বৃহস্পতিবার। মঠের একপাশে পাকা সড়ক, আরেকপাশে বিশাল ডোবা রয়েছে। গত ২২ অক্টোবর দিবাগত গভীররাতে ছোট মঠটি ধসে ডোবায় পড়ে।

এলাকার প্রবীণ শত বছর বয়সী কোনাইল গ্রামের বাসিন্দা আহম্মদ আলী মল্লিক বলেন, জমিদার দ্বারকানাথা সাহার মৃত্যু হলে যেখানে দাহ করা হয় তাঁর স্মৃতি রক্ষার্থে সেখানে প্রায় ১০০ফুট লম্বা মঠটি নির্মাণ করা হয়। আমার বড় বোন কোলে করে দেখাতে নিয়ে যেত। কয়েক বছর তাঁর স্ত্রী জ্ঞানোদা সুন্দীর মারা গেলে পাশেই দাহ করে সেখানেও পরিবার থেকে প্রায় ৪০ফুট লম্বা মঠ নির্মাণ করেন। ভারত-পাকিস্তান ভাগের পর সবাই ৩০-৪০ একর জমি, বিশাল বাড়ি ফেলে কলকাতায় চলে যান। বাংলাদেশ স্বাধীনের পর জমিদার দ্বারকানাথ সাহার এক ভাই এসে ঘুরে যান। তাঁদের ওই সব সম্পত্তি বেহাত হয়ে গেছে।

স্থানীয় বাসিন্দা কলেজের লাইব্রেরিয়ান মো. শরিফ উদ্দিন বলেন, মুকুন্দিয়ায় তৎকালীন জমিদার দ্বারকানাথ সাহার বিশাল বাড়ি ছিল। তাদের মৃত্যুর পর পরিবার থেকে দুটি মঠ নির্মাণ করেন। জমিদার পরিবারের নিজেদের এস.এন.সি নামক ইট দিয়ে নির্মাণ করা হয়। যেহেতু মঠ দুটি প্রাচীন ঐতিহ্য, স্মৃতি ধারণ করছে। এটা যাতে রক্ষা পায়, মানুষজন যাতে জানতে পারে। ইতিহাস রক্ষার্থে সরকারের কাছে জোরদাবী জানাচ্ছি। তা না হলে এই ইতিহাসও বিলীন হয়ে যাবে।

মুকুন্দিয়া বাজারের ব্যবসায়ী ও নৈশ পাহারাদার রফিক খান বলেন, ২২ অক্টোবর দিবাগত রাত দুইটার দিকে দোকানে বসে তিনি সহ আরো দুইজন পাহারাদার মিলে চা পান করছিলেন। এসময় হঠাৎ করে বিকট শব্দ হয়। কারণ খুঁজতে বাজারের চারপাশ ঘুরে দেখেন ছোট মঠটি ধসে ডোবায় পড়েছে।

পাচুরিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মহিসা খোলা গ্রামের আব্দুল মান্নান শেখ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, জমিদার দ্বারকানাথ সাহা এবং তার স্ত্রীর মৃত্যু হলে পরিবারের লোকজন স্মৃতির ওপর মঠ দুটি নির্মাণ করেন। ভারত-পাকিস্তান ভাগের পর তারা দেশ ছেড়ে চলে যান। তাদের রেখে যাওয়া বহু সম্পত্তি স্থানীয় একটি চক্র অবৈধভাবে ভোগ দখল করে আছে। বর্তমান ইউপি সদস্য মান্নান মীর মঠের বিশাল ডোবাটি দখল করে মাছ চাষ করছে।

স্থানীয় ৫নম্বর ওয়ার্ড ইউপি সদস্য আব্দুল মান্নান মীর মাটি কাটার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, প্রতিপক্ষ গ্রুপের কিছু মানুষ এ ধরনের মিথ্যা অভিযোগ করছেন। মঠের চারপাশ দিয়ে আমার জমি। এখন পানি থাকায় মাছ চাষ করছি। দুই মাস পর পানি কমে গেলে ধান চাষ করবো। কি কারণে আমি মাটি কাটবো? বরং মঠ ধসে আমার জমিতে পড়ে আরো ক্ষতি হয়েছে।

পাচুরিয়া ইউপি চেয়ারম্যান কাজী আলমগীর হোসেন বলেন, মঠ দুটি রক্ষণাবেক্ষণ করতে কয়েকবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, জেলা প্রশাসকসহ বিভিন্ন দপ্তরকে জানিয়েছি। এর আগে সাবেক জেলা প্রশাসক রফিকুল ইসলাম খান দেখে গেছেন, কিন্তু কোন ব্যবস্থা হয়নি। অনেক পুরাতন ও পাশ থেকে অপরিকল্পিতভাবে মাটি খনন করায় ছোট মঠটি ধসে গেছে।

এ প্রসঙ্গে জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম বলেন, এ ধরনের বিষয় আমার জানা নেই। এলাকাবাসী প্রয়োজনীয় সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষন করতে লিখিতভাবে আবেদন করলে আমি দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণে পুরাকৃতি সংরক্ষণ দপ্তরে পাঠিয়ে দিব।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102