June 22, 2021, 8:37 pm
Title :
রাজবাড়ীতে পুকুরে মাছের পোনা অবমুক্ত ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ দৌলতদিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে করোনায় সংক্রমণ রোধে কঠোরবিধি নিষেধ, পৌরসভার উদ্যোগে মাস্ক বিতরণ গোয়ালন্দ থানা পুলিশের উদ্যোগঃ বিট পুলিশকে তথ্য দিন, নিরাপদে কাটবে দিন করোনা নিয়ে উদ্বেগঃ রাজবাড়ীর তিন পৌরসভায় এক সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ রাজবাড়ীতে দ্বিতীয় পর্যায়ে ঘর পেল ভূমিহীন ৪৩০টি পরিবার পাংশায় আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের মাঝে জমিসহ গৃহ প্রদান কার্যক্রম অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে নতুন ঘরে নতুন আশা নিয়ে নতুন দিনের স্বপ্নে ৩০ পরিবার এবার যমুনা নদীতে জেলেদের জালে ধরা পড়লো ৪৭ কেজি ওজনের বাগাড় রাজবাড়ীতে ১০দিন ব্যাপি সাঁতার প্রশিক্ষণ উদ্বোধন

সুবিধা বঞ্চিত দুই শিশুর সুন্নতে খাৎনার আয়োজন করলো পায়াক্ট বাংলাদেশ

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, নভেম্বর ১০, ২০২০
  • 33 Time View
শেয়ার করুনঃ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ কার্যালয়ের সামনে টেবিলে  খাতা নিয়ে বসে আছেন একজন। লোকজন খাওয়া শেষ করে টেবিলে উপঢোকন বা নগদ টাকা রেখে চলে যাচ্ছেন। সামনে চেয়ারে বসে আছে হাসিমুখে দুই শিশু। ওদের জন্য ছিল অন্যরকম আনন্দ। ওদের খাৎনা করানো হয়েছে। আয়োজন হওয়ার কথা ছিল যার যার বাড়িতে। পরিবার ছিন্ন দুই অসহায় শিশুর অনুষ্ঠান হচ্ছে পায়াক্ট কার্যালয়ে।

মঙ্গলবার বেসরকারী সংস্থা পায়াক্ট বাংলাদেশ রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া কার্যালয়ে আয়োজিত সুন্নতে খাৎনার আয়োজন করা হয়। সংস্থার সেফ হোমে থাকা সুবিধাবঞ্চিত দুই শিশুর খাৎনার পর অনুষ্ঠানের আয়োজন করা তারা। একজনের নাম মো. মিরাজ (৬), অপরজন মো. রাব্বি মোল্লা (৮)। দুইজনই কেকেএস শিশু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেনীতে পড়াশুনা করে। এরমধ্যে মিরাজের বাবা-মা বলতে কেউ নেই। রাব্বির মা-বাবা থেকেও নেই। সংস্থাটির উদ্যোগে তাদের খাৎনা করার পর অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। মেহমানদের জন্য খাবারের ব্যবস্থা করা হয় বিরানি ও পায়েশ। পায়াক্ট ক্যাপাসিটি বিল্ডিং প্রজেক্ট (সেফ হোম) এর ইনচার্জ শেখ রাজিব অনুষ্ঠানের প্রধান উদ্যোক্তা।

শেখ রাজীব জানান, ২০০৭ সাল থেকে এই সেফ হোমের জন্য কোন প্রজেক্ট নেই। পায়াক্ট এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবু ইউসুফ চৌধুরীর নিজস্ব অর্থায়নে সেফ হোমটি পরিচালিত হচ্ছে। দৌলতদিয়া যৌনপল্লির সুবিধা বঞ্চিত ১৩জন শিশু থাকে। এদের ১০ জনের বাবা-মা বলতে কেউ নেই।

প্রায় দুই বছর আগে পাশের বেসরকারী সংস্থা মুক্তি মহিলা সমিতির ডেকেয়ার সেন্টারে বড় ভাই মেহেদী হাসান মিরাজকে রেখে যান। এরপর থেকে মেহেদির খোঁজ পাওয়া যায়নি। দেড় বছর আগে মিরাজকে পায়াক্টের সেফ হোমে নিয়ে আসা হয়। সংস্থাটির নিজস্ব অর্থায়নে তার পিছনে থাকা খাওয়া ও পড়াশুনার খরচ জোগান দেওয়া হচ্ছে।

রাব্বিরও প্রায় একই অবস্থা। মায়ের সাথে বাবার সর্ম্পক না থাকায় প্রায় চার বছর ধরে এই সেফ হোমে থাকে। রাব্বির বড় বোনও এই হোমে থাকে। বাবা মাঝেমধ্যে কিছু খরচের টাকা পাঠান। মা সাধ্য মতো খরচ দেন। বাকি সব সংস্থাটির বহন করে। দুইজনের বয়স হওয়ায় সিদ্ধান্ত নেন খাৎনা করার। শিশুদের আবদার ও তাদের মুখে হাসি ফোটাতে শেখ রাজীব উদ্যোগ নেন অনুষ্ঠানের। কিন্তু এর জন্য প্রয়োজন টাকার। পায়াক্ট এর দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপক মজিবর রহমান জুয়েল এর সাথে পরামর্শ করে গত সপ্তাহে খাৎনা শেষে মঙ্গলবার কার্যালয়ে আয়োজন করেন অনুষ্ঠানের।

রাব্বির মা আম্বিয়া বেগম বলেন, রাব্বির কয়েক বছর ধরে সর্ম্পক ছিন্ন করে চলে গেছে। মাঝেমধ্যে সেফ হোমের কিছু খরচ দেন। আমি সাধ্যমতো পারলে কিছু দেই। এখন আমারই দিন চলে না। পায়াক্ট থেকে এ ধরনের অনুষ্ঠান করায় খুব খুশি হয়েছি। তাছাড়া আমার পক্ষে এ ধরনের অনুষ্ঠান করা সম্ভব ছিলনা।

মিরাজ ও রাব্বী আলাপকালে বলে, আমরা খুব খুশি হয়েছি। আমাদের এখানে তেমন কোন অনুষ্ঠান হয়নি। স্যাররা মিলে এ ধরনের অনুষ্ঠানের আয়োজন করায় আমরা সবাই আনন্দ-ফুর্তি করছি।

দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপক মজিবর রহমান জুয়েল বলেন, স্থানীয় মুক্তি মহিলা সমিতি, গণস্বাস্থ্য ও পায়াক্ট ছাড়া স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সহ ২০০ মানুষের জন্য আয়োজন করা হয়েছে। এতে আমাদের প্রায় ৪০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। আমরা সবাই মিলে এ আয়োজন করেছি। ওদের মুখে হাসি ফোটাতে পেরে আমরাও আনন্দিত।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102