September 18, 2021, 8:08 am

পাংশা-কালুখালীতে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাল বিক্রয় কার্যক্রম তদারকীতে কর্মকর্তারা

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, নভেম্বর ৯, ২০২০
  • 33 Time View
শেয়ার করুনঃ

মোক্তার হোসেনঃ রাজবাড়ীর পাংশা ও কালুখালী উপজেলায় খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ডিলারদের ঘরে চাল বিক্রয় কার্যক্রম তদারকী করছেন কর্মকর্তারা। ২টি উপজেলায় ৫৮জন ডিলারের মাধ্যমে খাদ্য অধিদপ্তর পরিচালিত খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির সেপ্টেম্বর-নভেম্বর-২০২০ প্রান্তিকের আওতায় সরকার নির্ধারিত মূল্যে কার্ডধারীদের মাঝে নভেম্বর মাসের চাল বিতরণ কার্যক্রম চলছে। কর্মসূচি সফলভাবে বাস্তবায়নে চাল বিক্রয় কার্যক্রম মনিটরিং করতে মাঠে নেমেছেন কর্মকর্তারা।

জানা যায়, পাংশা উপজেলার ১০টি ইউনিয়নে ৩৩জন ডিলারের আওতায় কার্ডধারীর সংখ্যা ১৭হাজার ১০জন। কালুখালী উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে ২৫ জন ডিলারের আওতায় ১২হাজার ৮৩৬ জন কার্ডধারী রয়েছে। দু’টি উপজেলার ১৭টি ইউনিয়নে ৫৮ জন ডিলারের মাধ্যমে সর্বমোট ২৯ হাজার ৮৪৬টি পরিবার খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির সুবিধা ভোগ করছে। ২০১৬ সাল থেকে প্রতি বছরের মার্চ-এপ্রিল এবং সেপ্টেম্বর-নভেম্বর মোট ৫মাস সুবিধাভোগীরা প্রতিমাসে ১বার স্ব-স্ব এলাকার ডিলারের দোকান থেকে সরকার নির্ধারিত ১০টাকা কেজি দরে ৩০ কেজি করে চাল ক্রয় করে আসছে। চলমান কর্মসূচি শেষ হচ্ছে চলতি নভেম্বর মাসে।

পাংশার ওসিএলএসডি মোহাম্মদ ইব্রাহীম আদম গত রোববার (৮নভেম্বর) কালুখালীর রতনদিয়া ইউপির ডিলার সোহেল মোল্লা ও জয়নাল আবেদীনের দোকান এবং কালিকাপুর ইউপির ডিলার রিপন মন্ডলের দোকান, পাংশা উপজেলার হাবাসপুর ইউপির ডিলার আব্দুল আলীম খান, আব্দুস সালাম সরদার, সোহরাব হোসেন ও ফজলুল হক বিশ্বাসের দোকানে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাল বিক্রয় কার্যক্রম পরিদর্শন করেন।

এছাড়া কালুখালীর খাদ্য পরিদর্শক মহব্বতুন্নেছা রতনদিয়া, মদাপুর, মৃগী ও সাওরাইল ইউপিতে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাল বিক্রয় কার্যক্রম মনিটরিং করেন। পাংশার খাদ্য পরিদর্শক শ্যাম সুন্দর সাহা হাবাসপুর ইউপির চর আফড়া স্লুইজগেট বাজারস্থ ডিলার ফজলুল হক বিশ্বাসের দোকানসহ হাবাসপুর ও বাহাদুরপুর ইউপিতে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাল বিক্রয় কার্যক্রম মনিটরিং করেন।

সরেজমিন ডিলার সোহেল মোল্লা, জয়নাল আবেদীন, ডিলার রিপন মন্ডল, আব্দুল আলীম খান, আব্দুস সালাম সরদার, সোহরাব হোসেন ও ফজলুল হক বলেন, সরকারি ফুডগোডাউন থেকে ডিও’র চালের ওজন বুঝে নেই এবং দোকান থেকে কার্ডধারীর মাঝে নিয়মমত সরকারি নির্ধারিত মূল্য নিয়ে চাল বিতরণ করছি।

সুবিধাভোগীরা জানায়, তারা গরিব মানুষ ১০টাকা দরে চাল পেয়ে খুশি। খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান তারা। সেই সাথে কর্মসূচি অব্যাহত রাখতে দাবী জানান সুবিধাভোগীরা।

পাংশার ওসিএলএসডি মোহাম্মদ ইব্রাহীম আদম বলেন, চলতি বছর ২৭ আগস্ট পাংশা সরকারি ফুড গোডাউনে যোগদান করেছি। যোগদানের পর থেকে সকল প্রকার বরাদ্দের ডিও’র চালের ওজন গোডাউন থেকে নেয়ার সময় বুঝে নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের বলি। ডিও’র চাল বুঝিয়ে দিতে ডিজিটাল ওয়েট মেশিনের সামনে নিজে দাঁড়িয়ে থাকি। খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাল যাতে সঠিকভাবে কার্ডধারীরা বুঝে পায় সে কারণে ফিল্ডে মনিটরিং করছি। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট সকলের সচেতন হওয়ার আহবান জানান তিনি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102