August 5, 2021, 3:28 am
Title :
হিন্দু বাড়িতে হামলা, মারধর, পুলিশের হস্তক্ষেপে পালিয়ে থাকা পরিবার বাড়িতে প্রবাসী ফোরামের জন্মদিনে ব্লাড ডোনার ক্লাবকে অক্সিজেন সিলিন্ডার ও সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান ভাঙন কবলিত মানুষের মাঝে ইয়ামাহা রাইডার্স এর খাদ্য সামগ্রী বিতরণ সকালে ব্যক্তিগত গাড়ির লম্বা লাইন, দুপুরে ঘাটে মানুষের ভিড় দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া রুটে লঞ্চে সকাল থেকেই মানুষের ভিড় গৃহকর্মীকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে চিত্রনায়িকা একা কারাগারে কারখানা খোলায় দৌলতদিয়া ঘাটে মানুষের ঢল, যে যেভাবে পারছে সেভাবে ছুটছে পদ্মার ১৯ কেজির পাঙ্গাশ, বিক্রি হলো ২৬ হাজার ৬০০ টাকায় গোয়ালন্দে জুয়া খেলা অবস্থায় টাকাসহ ৬ জুয়াড়ি আটক, পলাতক দুই শ্রমিকদের যাতায়াতের সুবিদার্থে রাত থেকে চলবে লঞ্চ

স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে চেয়ে জামাল পত্তনদার পরিবারের সংবাদ সম্মেলন

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, নভেম্বর ৭, ২০২০
  • 25 Time View
শেয়ার করুনঃ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার উত্তর দৌলতদিয়া ফেলু মোল্লা পাড়ার হোসেন পত্তনদারের ছেলে জামাল পত্তনদার (৩২)। তার বিরুদ্ধে ৪টি হত্যা, ২টি অস্ত্র ও ১টি ডাকাতির মামলা রয়েছে। গত ২৭ অক্টোবর তিনি উচ্চ আদালত থেকে অস্ত্র ও ডাকাতির মামলায় জামিনে জেল থেকে বের হন।

জামিনে বের হয়ে তিনি স্বাভাবিক জীবন যাপন নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন। নতুন করে আরো মামলা দিয়ে হয়রানী করার আশঙ্কায় শনিবার দুপুরে জামাল পত্তনদার গোয়ালন্দ প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন। এ সময় জামাল পত্তনের বড় ভাই আব্দুস ছালাম পত্তনদার, মা ছাহেরা বেগম উপস্থিত ছিলেন।

লিখিত বক্তব্যে জামাল পত্তদানদার বলেন, ২০০৪ সালে বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালীন দৌলতদিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক ছিলেন। পরিবারের অভাবের কারণে দশম শ্রেনী পর্যন্ত লেখাপড়ার ইতি টেনে দৌলতদিয়ায় মুদি দোকানীর ব্যবসা শুরু করে। ২০১৪ সালে দৌলতদিয়া ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি মোহন মণ্ডলের ছেলে, বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র রিপন মণ্ডলের হত্যার ঘটনায় তাকে প্রধান আসামী করে মামলা হয়। ওই মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে জেলে গেলে পরবর্তীতে একটি অস্ত্র মামলা হয়। অথচ এসব ঘটনা সর্ম্পকে তিনি কিছুই জানেন না। এভাবে ২০১৩ সালে গোয়ালন্দের রেলগেট এলাকার রুবেল হত্যা ও দৌলতদিয়া সাদ্দাম হত্যায় জড়িত সন্দেহে শ্যোন এরেষ্ট দেখায়। ২০১৪ সালে দৌলতদিয়া যৌনপল্লির প্রভাবশালী বাড়িওয়ালী সালমী হত্যার ঘটনায় আসামী করা হয়। এভাবে ৪টি হত্যা, দুইটি অস্ত্র ও একটি ডাকাতির মিথ্যা মামলা দেওয়া হয়।

জামাল পত্তনদার বলেন, ২০১৯ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর রাজবাড়ী জেলা কারগার থেকে বের হয়ে কারাগার মসজিদে জোহর নামাজ আদায় করতে যান। পরিবারের সদস্যরা বাইরে অপেক্ষা করছিলেন। পরিবারের সামনে তাকে মসজিদ থেকে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ আটক করে ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে শারীরিকভাবে নির্যাতন করে। সেখান থেকে গোয়ালন্দঘাট থানা পুলিশের মাধ্যমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তির পর ৬দিন চিকিৎসা শেষে ডাকাতির প্রস্তুতি ও অস্ত্র মামলায় পুনরায় কারাগারে যান। এক বছর এক মাস পর ২৭ অক্টোবর উচ্চ আদালত থেকে জামিনে বের হন। বর্তমানে ব্যবসা করে স্বাভাবিক জীবন কাটাতে চান।

জামাল পত্তনদারের বড় ভাই আব্দুস ছালাম পত্তনদার বলেন, পরিবারের ৮ভাই-বোনের মধ্যে জামাল ৫ম। তাকে বিভিন্ন মামলা দিয়ে জেলে রাখায় আমাদের পরিবার ধ্বংসের মুখে। যেখানে যা ছিল সব শেষ করে জামিনে বের করেছি। কিছুদিন আবার মামলায় জেলে পাঠায়। এখন সবার সহযোগিতায় স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে চাই।

জামালের মা ছাহেরা বেগম বলেন, ছেলের শোকে ওর বাবা আজ অসুস্থ্য হয়ে পড়েছে। কারা বার বার মামলা দিয়ে জেলে পাঠায় আমরা বুঝিনা। আমরা এবার শান্তি চাই। আমার ছেলেকে নিয়ে আমাদের স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে দিন। আর যেন নতুন মামলা দিয়ে হয়রানী করা না হয় সকলের দৃস্টি কামণা করেন।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর বলেন, জামাল পত্তনদারের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় বেশ কয়েকটি মামলা হয়েছে। প্রতিটি মামলা বিচারাধীন রয়েছেন। অহেতুক কাউকে হয়রানী করা হবে। যদি কেউ অপরাধ করে থাকে তাহলে অবশ্যই তাকে আইনের আওতায় আনা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102