August 4, 2021, 2:41 am
Title :
হিন্দু বাড়িতে হামলা, মারধর, পুলিশের হস্তক্ষেপে পালিয়ে থাকা পরিবার বাড়িতে প্রবাসী ফোরামের জন্মদিনে ব্লাড ডোনার ক্লাবকে অক্সিজেন সিলিন্ডার ও সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান ভাঙন কবলিত মানুষের মাঝে ইয়ামাহা রাইডার্স এর খাদ্য সামগ্রী বিতরণ সকালে ব্যক্তিগত গাড়ির লম্বা লাইন, দুপুরে ঘাটে মানুষের ভিড় দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া রুটে লঞ্চে সকাল থেকেই মানুষের ভিড় গৃহকর্মীকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে চিত্রনায়িকা একা কারাগারে কারখানা খোলায় দৌলতদিয়া ঘাটে মানুষের ঢল, যে যেভাবে পারছে সেভাবে ছুটছে পদ্মার ১৯ কেজির পাঙ্গাশ, বিক্রি হলো ২৬ হাজার ৬০০ টাকায় গোয়ালন্দে জুয়া খেলা অবস্থায় টাকাসহ ৬ জুয়াড়ি আটক, পলাতক দুই শ্রমিকদের যাতায়াতের সুবিদার্থে রাত থেকে চলবে লঞ্চ

নিষেধাজ্ঞা শেষে দৌলতদিয়ার পদ্মা নদীতে জাল ফেলে হতাশ জেলেরা

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, নভেম্বর ৭, ২০২০
  • 20 Time View
শেয়ার করুনঃ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ গত বুধবার দিবাগত মধ্যরাত থেকে মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযানের সময় সীমা শেষে হয়েছে। টানা ২২ দিন নিষেধাজ্ঞা শেষে বুধবার দিবাগত মধ্যরাত ১২টার পর থেকে রাজবাড়ীর জেলেরা পদ্মা নদীতে ইলিশ শিকারে নেমে হতাশ হচ্ছেন। আশানুরুপ মাছ না পেয়ে কষ্টই যেন বৃথা হওয়ার মতো।

পদ্মা নদীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ঘাট ও বাজার এলাকা ঘুরে দেখা যায়, নদীর পাড়ে অনেক জেলে বসে আছেন। কেউ মাছ ধরতে জাল নিয়ে নেমে পড়ছেন। আবার কেউ জাল ফেলে তেমন মাছ না পেয়ে নদীর পাড়ে চুপচাপ বসে আছেন। নিষেধাজ্ঞা শেষে যেখানে জেলেরা জালভর্তি মাছ পেয়ে মুখে সব সময় হাসির ঝিলিক লেগে থাকার কথা। সেখানে অধিকাংশ জেলের মুখ ছিল মলিন। কারণ তাদের খরচের টাকাই উঠছে না।

পাবনার বেড়া থানার জগন্নাথপুর এলাকা থেকে বুধবার রাতে মাছ ধরতে গোয়ালন্দে এসেছেন জেলে আলমগীর মণ্ডল সহ ৪ জন। রাতে তিনটি খেও (জাল ফেলা) দেওয়ার পর তেমন মাছ না পেয়ে সকালে দৌলতদিয়ার বন্ধ থাকা ১নম্বর ফেরিঘাটের পাড়ে নোঙর করে আছেন।

আলমগীর মণ্ডল বলেন, “অভিযানের সময় আমরা নদীতে আসিনি। ওই সময় বেশি মাছ পাওয়া যেত। অভিযান শেষে নদীতি নামি দেহি কোন মাছ নাই। রাতভর তিন ক্ষেপ দিইয়া মাত্র ৮-১০ কেজি মাছ পাইছি। তাও সব ফকা (ছোট) মাছ। মাত্র ২৫০ টাকা কেজি দরে বেচিছি। অহন কি আর করমু। মনডা বেশি ভালা নাই। তাই চুপচাপ বইসা আইছি”।

বেড়া থেকে মাছ ধরতে আসা জাহাঙ্গীর বেপারীসহ তিন জেলের মুখেও হতাশার সুর। বলেন, নৌকা নামাতে এক থেকে দুই লাখ টাকা খরচ হয়। সবাই গরু-বাছুর বিক্রি করে জাল-নৌকা নামাইছি। তই নদীতে কোথাও মাছ নাই। গেল বছর প্রতি ক্ষেপে ১০-১৫ কেজি কইরা ইলিশ পাইছি। এবার ভোরে আইসা দুই খেও দিইয়া মাত্র ৮ কেজি ছোট ইলিশ পাইছি।

দৌলতদিয়া ঘাট টার্মিনাল সংলগ্ন মাছ বাজারে দেখা যায়, অভিযান শেষে নদীতে অনেক ইলিশ ধরা পড়বে। পদ্মার ইলিশ বলে কথা। এ কারণে বিভিন্ন স্থান থেকে মানুষজন কিনতে এসে ফিরে যাচ্ছে। অধিকাংশ মাছের আড়ত ঘরের সামনে ডালায় সামান্য কিছু মাছ দেখা যায়। ক্রেতাদের ভিড়ে মাছের বাজারও বেশ চড়া।

মৎস্য ব্যবসায়ী ইছহাক সরদার বলেন, অন্যবছর অভিযান শেষ অনেক ইলিশ ধরা পড়তো। গত বছর অনেক মাছ বেচাকেনা করেছি। অভিযানের ভিতর কেউ কেউ লুকিয়ে মাছ ধরেছে। মৎস্য বিভাগ বা প্রশাসনের হাতে ধরা পড়েছে অনেকে। অভিযান শেষে ভালো মাছ ধরা পড়বে এই আশায় অনেকে ধারদেনা হয়ে জাল ও নৌকা নামিয়েছে। নদীতে নেমে মাছ না পেয়ে আমরা হতাশ হচ্ছি।

গোয়ালন্দ উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা রেজাউল শরীফ বলেন, অভিযানের আগে যে পূর্নিমা ছিল ওই সময় অধিকাংশ মাছ এসে ডিম ছেড়ে গেছে। ওই সময় উজানের দিকে কিছু মাছ ধরাও পড়েছে। যে কারণে এখন নদীতে মাছ নেই বললেই চলে। জেলেরা মাছ না পেয়ে হতাশ হয়ে যাচ্ছে।

রাজবাড়ী জেলা মৎস্য কর্মকর্তা জয়দেব পাল বলেন, পদ্মায় চর পড়ে পানির গভীরতা অনেক কমে গেছে। নিচের দিকে নদীতে প্রচুর সংখ্যক জাল ফেলায় মাছ বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছে। এসব কারণে কম পাওয়া যাচ্ছে। এছাড়া অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার মাছের সংখ্যা তুলনামূলক অনেক কম।

তিনি বলেন, জেলাব্যাপী ১৪দিনে ১৩৮টি মোবাইলকোর্ট করে ২২৯ জেলেকে জেলে পাঠানো হয়েছে। তাদের থেকে প্রায় ৪৪৪ কেজি ইলিশ ও ৪ কোটি ৭৪ লাখ ৩৭৫ টাকার প্রায় ৩১ লাখ ৬৪ হাজার ৫০০ মিটার কারেন্ট জাল আটক করা হয়েছে। ৬৭ জন জেলের কাছ থেকে প্রায় দেড় লাখ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102