December 3, 2021, 12:27 am

রাজবাড়ীতে সব ধরনের সবজির কেজি ৬০ টাকার উর্দ্ধে

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, নভেম্বর ২, ২০২০
  • 51 Time View
শেয়ার করুনঃ

ইমরান হোসেনঃ রাজবাড়ীর বাজারে গত দুই দিনের ব্যাবধানে সব ধরনের সবজি কেজিতে ১৫ থেকে ২০ টাকা বেড়েছে। বাজারে সবজির আমদানি কমে যাওয়ায় এমন চড়া দামে বিক্রি করতে দেখা গেছে। তবে বিক্রেতারা বলছেন গত সপ্তাহের বৃষ্টির কারনে সবজি ক্ষেত তলিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় এবং বাজারে সবজির ঘাটতি থাকায় বেড়েছে সবজির দাম।

এদিকে সরাকারের বেধে দেওয়া দামে বিক্রি হচ্ছে না আলু। প্রতি কেজি আলু ৪৫ টাকা, মরিচ ২০০ টাকা, দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে আগের চাইতে ১০ টাকা বাড়িয়ে ৮০ টাকা কেজিতে। প্রতিটি সবজির কেজিতে ২০ টাকা বেড়েছে।

সোমবার রাজবাড়ীর বড় বাজারে দেখা যায়, সব ধরনের সবজি চড়া দামে বিক্রি করছেন বিক্রেতারা। দুইদিন আগে কিছুটা সবজির বাজার দর কম থাকলেও ফের বেড়েছে প্রতিটি সবজির দর। অতি বৃষ্টির কারনে সবজি ক্ষেত তলিয়ে যাওয়ায় ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে সবজি ক্ষেত। একারনে বাজারে সবজির ঘাটতি দেখা দিয়েছে। তিন দিন আগেও যেখানে প্রতিকেজি সবজি ৫০ টাকার মধ্যে দাম ছিল বেড়ে ৯০ টাকা পর্যন্ত কেজি বিক্রি হচ্ছে। আলু ৪৫ থেকে ৫০ টাকা, মরিচ ১৮০ থেকে ২০০ টাকা, ফুল কপি ৮০ থেকে ৯০ টাকা, বাধা কপি, পটল, বেগুন, বরবটি, শশা, প্রতিটি সবজি ৬০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

দুইদিন আগে মরিচ বিক্রি হয়েছে দেরশ টাকা। তা বেড়ে ২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সরকারের বেধে দেওয়া দামে আলু বিক্রি করতে দেখা যায়নি কোন দোকানে। প্রতি কেজি আলু বিক্রি হচ্ছে ৪৫ থেকে ৫০ টাকায়। ফুল কপি ৪৫ থেকে ৫০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া অন্যান্য সব ধরনের সবজি কেজিতে বেড়েছে ২০ টাকার বেশি। কোন সবজিই ৬০ টাকার নিচে বিক্রি হতে দেখা যায়নি। শুধু করলা, পেঁপেঁ ও মুখী ৪৫ থেকে ৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর আদা বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকা কেজিতে।

বিক্রেতারা বলছেন, অতি বৃষ্টির কারনে সবজি ক্ষেত নষ্ট এবং বাজারে আমদানি কমে যাওয়ায় ঘাটতি দেখা দিয়েছে। তাছাড়া সব ধরনের সবজির চাহিদা বেশি থাকায় দাম বেড়েছে। কোন কোন সবজির দাম দ্বিগুন হয়েছে। পাইকারি ব্যাবসায়ীরা আলু আমদানি না করায় বাজার দর কমছেনা।

ক্রেতারা বলছেন, সবজির বাজার দর বর্তমানে তাদের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে। প্রতিটি সবজির দাম বেড়েছে প্রায় দ্বিগুন। গত বছর এসময় যেখানে প্রতিটি সবজি ৫০ টাকার নিচে বিক্রি হয়েছে এবছর সেখানে বিক্রি হচ্ছে দ্বিগুন ও চড়া দামে। বেশি সমস্যায় পরেছেন স্বল্প আয়ের মানুষেরা। আয়ের চাইতে এখন ব্যায় বেশি হচ্ছে ক্রেতা সাধারনের। বাজার মনিটরিং করে লাভ হচ্ছেনা তাদের। তারা চান সরকারের পক্ষ থেকে মনিটরিং ব্যাবস্থা সঠিকভাবে করলে বাজার স্থিতিশীল হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102