September 18, 2021, 8:41 am

রাজবাড়ীতে পুলিশের কড়া প্রহরার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হলো আওয়ামী লীগের বিশেষ সভা

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, অক্টোবর ৫, ২০২০
  • 25 Time View
শেয়ার করুনঃ

ইমরান হোসেনঃ করোনার কারণে দীর্ঘদিন বিরতির পর গত শনিবার রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে দলের বিশেষ সভা আহবান করে জেলা আ.লীগ। এই সভাকে কেন্দ্র করে পুরো জেলা শহর ছিল পুলিশের কড়া নজরদারিতে। জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালকে ঘিরে জেলা পুলিশের নজরদারি ছিল চোখে পরার মত। বেলা ১১টায় বিশেষ এই সভা শুরু হওয়ার কথা থাকলেও সভা শুরু হয় বেলা সাড়ে এগারটার দিকে। জেলা আওয়ামী লীগের মধ্যে এক ধরনের চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে।

প্রায় সাড়ে তিন ঘন্টা ব্যাপি জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে নেতৃত্ব স্থানীয় বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হলেও পুলিশ প্রশাসনের কর্তা ব্যাক্তির বদলির বিষয়ে বিশেষভাবে আলোচনায় আসে। তবে এ আলোচনায় এক পক্ষের তেমন কোন সাড়া ছিল না।

সভা শেষে জেলা আ.লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি, সাবেক জেলা পরিষদ প্রশাসক আকবর আলী মর্জি বলেন, তারা বুঝতে পারছিলেন পুলিশ প্রশাসনের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ও মিথ্যাচার করার কৌশল অবলম্বন করা হয়েছে। রাজবাড়ী-২ আসনের সংসদ সদস্য জিল্লুল হাকিম সহ একটি পক্ষ পুলিশ প্রশাসনের বিরুদ্ধে এ ষড়যন্ত্রে শামিল হয়েছে। পুলিশ যদি কোন কিছু করে তাহলে রাজবাড়ীর দুই সংসদ সদস্যের নির্দেশে করে। তাদের নির্দেশে পুলিশ কারো কোন ধরনের ক্ষতি করেনা। সরকারী দল হিসেবে পুলিশের বিরুদ্ধে কথা বলতে পারেনা। কোন কিছু করতে হলে আলোচনার মধ্য দিয়ে তা করতে হবে। আ.লীগের মধ্যে হাইব্রিড প্রবেশ করে যদি লুটতরাজ করে তাহলে পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিলে তারা আ.লীগ হিসেবে এই লুটতরাজদের স্বীকৃতি দেননা এবং দিবেনও না বলে জানান।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশ দিয়েছেন চোর, ডাকাত, সন্ত্রাসী, দুর্নীতিবাজ এরা কোন দলের লোক হতে পারেনা, এদের প্রশ্রয় দিবেননা। পুলিশের বিরুদ্ধে এ্যাকশন নিতে সাদা কাগজে সই নিবেন তা হতে পারেনা এবং সম্ভবও না। পুলিশ যদি কোন ধরনের অন্যায় করে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে বলেন। সভায় জিল্লুল হাকিম এবং তার নেতারা রেজ্যুলেশন নিতে চেয়েছিলেন, কিন্তু পারেননি। তিনি আ.লীগের সাথে ১৯৬৬ সাল থেকে এখন পর্যন্ত রয়েছেন। দলে কোন ধরনের অপকর্মকে তারা প্রশ্রয় দিবেননা বলে জানান।

জেলা আ.লীগের সভাপতি জিল্লুল হাকিম বলেন, পুলিশ প্রশাসন তাদের শত্রু না। সামগ্রিকভাবে পুলিশের সাথে কোন ধরনের শত্রুতা নেই। তিনি বলেন, আমরা যেমন ভালোনা, পুলিশের যে সবাই ভাল তাওনা। ভাল-খারাপ সবখানেই রয়েছে। তিনি পুলিশ প্রশাসনকে বিভিন্ন সময়ে সহযোগীতা করেছেন বলে উল্লেখ করেন। সংগঠনের বিপক্ষে যদি কোন ক্ষতিগ্রস্থ হয় তাহলে শুধু পলিশই নয় সেটা যে কোন দপ্তরই হোকনা কেন অবশ্যই তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ভাবে পদক্ষেপ নেওয়া হবে। কিছুদিন আগে শিক্ষক হত্যা মামলায় ৩৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সেখানে প্রধান আসামী জজ আলী বিশ্বাস, তিনি আ.লীগের একজন ৮০ বছরের একজন নেতা। তার বিরুদ্ধে বিএনপি ১৭/১৮টি মামলা দিয়েছিল। সে আ.লীগ করতো বিধায় তাকে এ্যাতগুলো মামলা দিয়েছিল।

সাধারন সম্পাদক কাজী ইরাদত আলী বলেন, তাদের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে পুলিশ প্রশাসনের সাথে বসে সমাধান করার চেষ্টা করবেন তারা। তবে আজকের সভার বিষয়ে পুলিশকে কারা এখানে ডেকেছে তা তারা কিছু জানেন না।

সভায় জেলা আওয়ামীলীগের সদস্যদের ছাড়া সাংবাদিক সহ কাউকেই ঢুকতে দেওয়া হয়নি। বিশেষ এই সভায় উপস্থিত ছিলেন জেলা আ.লীগের সভাপতি রাজবাড়ী-২ আসনের সংসদ সদস্য জিল্লুল হাকিম, রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আ.লীগের সহ সভাপতি কাজী কেরামত আলী, সিনিয়র সহ সভাপতি আকবর আলী মর্জি, মুক্তিযোদ্ধা ফকীর আব্দুল জব্বার, হেদায়েত আলী সোহরাব, সাধারন সম্পাদক কাজী ইরাদত আলী, জেলা আ.লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক এসএম নওয়াব আলী প্রমূখ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102