August 12, 2022, 12:08 pm
শিরোনামঃ
গোয়ালন্দে ‘গ্রামীণ উন্নয়নে পর্যটন’ শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত রাজবাড়ীতে ধর্ষনকালে এলাকাবাসি হাতেনাতে আটক করে পুলিশে দিল ধর্ষককে রাজবাড়ীতে মান ভেদে প্রতি কেজি চালের বাজার দর বেড়েছে ৬ থেকে ৮ টাকা রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দির পদ্মবিলের অপার সৌন্দর্যে মুগ্ধ দর্শনার্থীরা রাজবাড়ীর চর চাঁদপুর ও রামনগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিদায় সংবর্ধনা যৌনপল্লীর মা ও শিশুদের দিনব্যাপী বিনামূল্যে চিকিৎসাবসেবা দিল উত্তোরণ ফাউন্ডেশন রাজবাড়ীতে কৃষি ব্যাংকে ঋণ জালিয়াতি, মৃত ব্যক্তির নামেও ঋণ গোয়ালন্দে বঙ্গমাতার জন্মবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে সেলাই মেশিন ও অনুদানের চেক বিতরণ ফরিদপুর জেলা আওয়মীলীগ কার্যালয়ে ‘‘বঙ্গবন্ধু কর্নার” স্থাপন গোয়ালন্দে নবম শ্রেনীর স্কুল ছাত্রী অপহরণের চার মাস পর উদ্ধার, গ্রেপ্তার ১

ভাঙন আতঙ্কে দেবগ্রাম ও দৌলতদিয়া ইউনিয়নের প্রায় তিন হাজার পরিবার

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, অক্টোবর ৪, ২০২০
  • 75 Time View
শেয়ার করুনঃ

রাকিবুল হকঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার নদী তীরবর্তী দেবগ্রাম ও দৌলতদিয়া ইউনিয়নের প্রায় তিন হাজার পরিবার ভাঙন আতঙ্কে দিন পার করছে। আতঙ্কিত প্রায় ৬০০পরিবার অন্যত্র সরে গেছে। চতুর্থ দফায় পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নদীতে স্রোতের সাথে ভাঙনও বেড়েছে।

সরেজমিন দেখা যায়, উপজেলার দেবগ্রাম ইউনিয়নের মুন্সি পাড়া, আজিজ সরদার পাড়া ও দেবগ্রামের নদী তীরবর্তী এলাকা ফাঁকা হয়ে গেছে। প্রতি বছর বর্ষার পানি কমতে শুরু করলে ভাঙনের মাত্রা বাড়তে থাকে। তিন দফা বন্যা শেষে পানি কমতে থাকলে ভাঙন বাড়তে থাকে। আতঙ্কিত অনেক পরিবার বসতভিটা ফেলে অন্যত্র যাচ্ছে। জায়গা না থাকায় এখনো নদী পাড়ে রয়েছে কিছু পরিবার। পৈত্রিক ভিটা ও শেষ স্মৃতিচিহৃ কবরস্থান ধরে রাখার চেষ্টা করছেন।

আজিজ সরদার পাড়ার সামাদ সরদারের এক সময় প্রায় ১০০ বিঘার মতো জমি ছিল, বড় বাড়ি ছিল। কয়েক বছরে ভাঙনে প্রায় সব বিলীন। ২-৩বিঘা জমি ও পৈত্রিক ভিটা ছাড়া কিছু নেই। বাড়ির পালানে রয়েছে পরিবারের শেষ স্মৃতি হিসেবে আপনজনদের কবরস্থান। তাই অনেকে চলে গেলেও তিনি এখনো শূন্য ভিটায় খুপড়ি মেরে পড়ে আছেন।

 

কবরস্থানের লতাপাতা পরিস্কার করার সময় সামাদ সরদারের মেয়ে বেদেনা বেগম বলেন, এখানে চাচা নবী সরদারের কবর রয়েছে। পাশেই মা রোকেয়া বেগম, ভাতিজা শামীম সরদার, ভাগ্নে মফিজ সরদারের কবর রয়েছে। গ্রামের বেশিরভাগ পরিবার চলে গেছে। শূন্যভিটায় খুপড়ি মেরে এখনো আছি। এবার ভাঙনে এখন কোথায় যাব সে চিন্তায় আছি।

প্রতিবেশী মজিদ সরদারের স্ত্রী রুবিয়া বেগম তাঁকে সহযোগিতা করছিলেন। পরিস্কার শেষে দুইজনে একত্রে কবর জিয়ারত করেন। রুবিয়া বেগম বলেন, এলাকায় অনেক জমি ছিল। কয়েক বছরের ভাঙনে এখন কিছুই নেই। অন্যের জমি বাৎসরিক শনকরা নিয়ে এখানে আছি। মনে এবছর ভাঙনে এখানেও থাকা সম্ভব হবেনা।

দেবগ্রামের জুলহাস সরদার উঠানে রোপন করা গাছ থেকে লাউ কাটছিলেন। জুলহাস সরদার বলেন, আমার প্রায় ৮০ বিঘা জমি ছিল। ১০ বছরে প্রায় সব শেষে বাড়ির ভিটে ছাড়া কিছু নেই। এ বছর গ্রামের প্রায় ১০০ পরিবার চলে গেছে। আমাদের শরিকদের সবাই ঘর সরিয়ে ফেলেছে। এখনো খুপড়ি মেরে আছি যদি ভাঙন থেমে যায় তাহলে এবছর থাকতে পারবো।

দেবগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান হাফিজুল ইসলাম বলেন, প্রতি বছরের মতো এবারও বর্ষার পানি কমার সাথে ভাঙন শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যে ইউনিয়নের দেবগ্রাম, কাওয়ালজানি, আজিজ সরদার পাড়া, মুন্সী বাজার, মোমিন সরদার পাড়া, মাইনদ্দিন মেম্বার পাড়াসহ এলাকার কয়েকশ বিঘা আবাদি জমি ও প্রায় আড়াইশ পরিবার অন্যত্র গেছে। ভাঙন আতঙ্কে রয়েছে গ্রামের প্রায় দেড় হাজার পরিবার।

এদিকে দৌলতদিয়া ইউনিয়নের পদ্মা নদী তীরবর্তী মজিদ শেখের পাড়া, সিদ্দিক কাজী পাড়া, নতুন পাড়া, ১নং বেপারী পাড়া ভাঙনের মুখে পড়েছে। এলাকার প্রায় দেড় হাজার পরিবার ভাঙন আতঙ্কে রয়েছে। ইতিমধ্যে এসব এলাকা থেকে প্রায় ৩০০ পরিবার নিরাপদ স্থানে সরে গেছে।

সিদ্দিক কাজী পাড়ার টোকন সরদার বলেন, পানি বাড়ার সাথে ও কমার সময় ভাঙন দেখা দেয়। গত ভাঙনে অন্যান্যদের সাথে আমরাও সরে গেছিলাম। পরে ভাঙন থেমে গেলে দেখি নিজের ভিটেটুকো রয়েছে। ফের চলে আছি। তবে এবার ভাঙন পুরোদমে শুরু হলে ভিটে রক্ষা করা সম্ভবনা। তাই আগেভাগে জায়গা খুঁজছি কোথায় যাওয়া যায়।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আশরাফুল ইসলাম বলেন, ২নম্বর ওয়ার্ডের প্রায় ৩০০ পরিবার ভাঙন আতঙ্কে অন্যত্র গেছে। মজিদ শেখ পাড়ার প্রায় ৫০০ ও সিদ্দিক কাজী পাড়ার প্রায় ৩০০ পরিবার ভাঙন ঝুঁকিতে রয়েছে। ভাঙন প্রতিরোধে দ্রুত পদক্ষেপ না নিলে বড় বিপর্যয় হতে পারে। রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলী সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হয়েছে।

বিআইডব্লিউটিসি আরিচা কার্যালয়ের সহকারী মহাব্যবস্থাপক (এজিএম) মেরিন আব্দুস সাত্তার বলেন, ফেরিঘাট এলাকায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। বিশেষ করে ৩নম্বর ফেরিঘাট সম্পূর্ণভাবে ভাঙন ঝুঁকিতে রয়েছে। দ্রুত ভাঙন ঠেকানো না হলে গত বছরের মতো এবার ফেরিঘাট বিলিন হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। জরুরীভাবে পদক্ষেপ নিতে বিআইডব্লিউটিএকে অনুরোধ করেছি।

বিআইডব্লিউটিএ আরিচা কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী নিজাম উদ্দীন পাঠান বলেন, লঞ্চঘাট থেকে ৩নম্বর ফেরিঘাট পর্যন্ত প্রায় ৫৫০ মিটার এলাকার বিভিন্ন স্থানে ভাঙন দেখা দিয়েছে। জরুরী ভিত্তিতে ভাঙন প্রতিরোধে উর্দ্বোন কর্তৃপক্ষকে অবগত করেছি।

গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আমিনুল ইসলাম বলেন, ভাঙন প্রতিরোধে ইতিমধ্যে পানি উন্নয়ন বোর্ডসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হয়েছে। ফেরিঘাট এলাকায় ভাঙন ঠেকাতে বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলেছি। আশা করছি দ্রুত কাজ শুরু হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
DeveloperAsif
themesba-lates1749691102
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x