December 3, 2021, 1:59 am

গোয়ালন্দ উপজেলার উপনির্বাচনঃ আ.লীগের প্রার্থী নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে বিক্ষোভ, মানববন্ধন

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২০
  • 43 Time View
শেয়ার করুনঃ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদ উপনির্বাচনে দলীয় প্রার্থী নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বুধবার আওয়ামী লীগের দুই পক্ষ পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি পালন করেছে। এক পক্ষ দলীয় মনোনিত প্রার্থীর প্রতিক বাতিলের দাবীতে মানববন্ধন করেছে। অপরপক্ষ তা প্রতিহত করতে মহাসড়কে বিক্ষোভ ও এক ঘন্টার বেশি ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে অবস্থান করায় যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে।

অপরদিকে মানববন্ধন প্রতিহত কর্মসূচি পালন শেষে বাড়ি ফেরার পথে গোয়ালন্দ বাজার আড়তপট্রি এলাকায় উজানচর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের ওপর হামলার অভিযোগ উঠেছে। তাকে আহত অবস্থায় ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

দলীয় ও সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, আগামী ১০ অক্টোবর গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচন হওয়ার কথা ছিল। এতে মোট তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছিলেন। সরকার দলীয় প্রার্থী হিসেবে উপজেলা আ.লীগের সহসভাপতি মো. মোস্তফা মুন্সী (নৌকা), স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা আ.লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম মন্ডল (ঘোড়া) এবং বিএনপি প্রার্থী হিসেবে জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য মাহবুব আলম শাহীন (ধানের শীষ) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছিলেন। ১৪ সেপ্টেম্বর ভোরে স্বতন্ত্র প্রার্থী নুরুল ইসলাম মন্ডল মৃত্যুবরণ করায় নির্বাচন স্থগিত হয়ে যায়। নতুন করে তফসিল ঘোষণা করতে জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে নির্বাচন কমিশনকে অবগত করে। নুরুল ইসলাম মন্ডল রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য, সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলীর অনুসারি এবং মোস্তফা মুন্সী জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলীর অনুসারী হিসেবে পরিচিত।

বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১টায় কাজী কেরামত আলীর অনুসারী আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগসহ সর্বস্তরের জনগনের ব্যানারে মোস্তফা মুন্সীর দলীয় মনোনয়ন নৌকা প্রতিক বাতিলের দাবিতে উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন পৌরসভার মেয়র শেখ নিজামের বাস ভবনের সামনে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। এতে কয়েকশ মানুষ অংশ গ্রহণ করে। মানববন্ধন শেষে মহাসড়কে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। কর্মসূচির নেতৃত্ব দেন ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যান আসাদ চৌধুরী। এসময় আসাদ চৌধুরী ছাড়াও উপজেলা আ.লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম মোস্তফা বক্তব্য রাখেন।

ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যান আসাদ চৌধুরী বলেন, মোস্তফা মুন্সী অনুপ্রবেশকারী হিসেবে আ.লীগে এসেছেন। একজন অনুপ্রবেশকারীকে নৌকা প্রতিক নিয়ে নির্বাচন করতে দেওয়া হবে না। তাই গোয়ালন্দ বাসীর দাবি অনতিবিলম্বে নৌকা প্রতিকের প্রার্থী পরিবর্তন করতে হবে।

অপরদিকে নৌকার প্রার্থীর বিপক্ষে মানববন্ধন কর্মসূচি প্রতিহত করতে উপজেলা আওয়ামী লীগসহ সহযোগী সংগঠনের সহ¯্রাধিক নেতাকর্মী বেলা দশটায় গোয়ালন্দ বাসষ্ট্যান্ডে অবস্থান নেয়। বেলা এগারটায় মানববন্ধন কর্মসূচি প্রতিহত করতে মহাসড়ক দিয়ে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে নেতাকর্মীরা উজানচর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে পৌছলে পুলিশ বাধা দেয়। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) শেখ শরীফুজ্জামানের নেতৃত্বে গোয়ালন্দঘাট থানা ও জেলার অতিরিক্ত পুলিশ মহাসড়কে অবস্থান করে। পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে নেতাকর্মীরা অগ্রসর হতে চাইলে সংঘাত এড়াতে তাদের নিভৃত করার চেষ্টা করে। নেতাকর্মীরা মহাসড়কে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ এবং সাংসদ কাজী কেরামত আলী, পৌরসভার মেয়র শেখ নিজাম ও ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যান আসাদ চৌধুরীর বিরুদ্ধে শ্লোগান দিতে থাকে। বিক্ষোভের নেতৃত্ব দেন উপজেলা আ.লীগ সভাপতি মো. নুরুজ্জামান মিয়া। নেতাকর্মীরা কয়েক দফা বাধা ভেঙ্গে যাওয়ার চেষ্টা করে ব্যার্থ হয়। দুপুর বারোটার পর নেতাকর্মীরা মহাসড়ক থেকে সরে পুনরায় বাসষ্ট্যান্ডে অবস্থান নেয়। এক ঘন্টা পর মহাসড়ক দিয়ে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

এসময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ শরীফুজ্জামান বলেন, পুলিশ বাধা সৃষ্টি না করলে বড় ধরনের সংঘাতের আশঙ্কা ছিল। আমরা ধৈর্য্যরে সাথে নেতাকর্মীদের বুঝিয়ে পরিস্থিতি সামাল দিয়েছি।

বাসষ্ট্যান্ডে আ.লীগ নেতাকর্মীদের অবস্থানকালে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আ.লীগ সভাপতি মো. নুরুজ্জামান মিয়া, সহসভাপতি ও নৌকার প্রার্থী মোস্তফা মুন্সী, সহসভাপতি গোলজার হোসেন মৃধা, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব ঘোষ, পৌর আ.লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নজরুল ইসলাম মন্ডল, উপজেলা যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম সালু, ছাত্রলীগ সভাপতি মো. তুহিন দেওয়ান, সাবেক সভাপতি এবিএম বাতেন প্রমূখ।

নৌকার প্রার্থী মোস্তফা মুন্সী দলের ভিতর অনুপ্রবেশকারীর প্রতিবাদ করে বলেন, আমি কখনই বিএনপির রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলাম না। দীর্ঘদিন দেশের বাইরে ছিলাম। দেশে ফিরে ব্যবসা বাণিজ্য করারপাশাপাশি রাজনীতি করছি। আপনাদের অনুরোধে আজ প্রার্থী হয়েছি। কাউকে পছন্দ করতে না পারেন তাই বলে সম্মানহানি করার অধিকার কারো নেই। গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সাংসদ কাজী কেরামত আলীর নির্বাচনের শতভাগ সময় ও শ্রম দিয়েছিলাম। আজ তারাই বিরোধিতা করছেন।

উপজেলা আ.লীগ সভাপতি নুরুজ্জামান মিয়া বলেন, একাধিক প্রার্থী থাকায় আ.লীগের কাউন্সিলের ভিত্তিতে মোস্তফা মুন্সী প্রার্থী হন। পরবর্তীতে জেলা আওয়ামী লীগের সিদ্ধান্তক্রমে দলীয় প্রধান শেখ হাসিনা তাঁকে নৌকা প্রতিক দিয়েছেন। এছাড়া সাংসদ কাজী কেরামত আলী ও জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলীর পছন্দেরও প্রার্থী।

গোয়ালন্দ পৌরসভার মেয়র শেখ মো. নিজামের সমালোচনা করে বলেন, পৌরসভার মেয়র শুধু ঘরেই বসে রাজনীতি করেন। পৌরসভার কোথায় কি অবস্থা তাঁর কোন খোঁজ রাখেন না। রাস্তাঘাটের বেহাল দশা, করোনায় মানুষ অসহায়। তার কোন খবর নেয়ার প্রয়োজন নেই। অথচ নির্বাচন আসলে তিনি বিরোধীতা করে অন্য প্রার্থীর পক্ষ নেন। এভাবে কেউ আ.লীগ করতে পারেনা। আ.লীগ করতে হলে দলের সকলের সাথে মিলেমিশে থেকে কাজ করতে হবে, মাঠে থাকতে হবে।

আ.লীগ নেতার ওপর হামলা
এদিকে মানববন্ধন কর্মসূচি প্রতিহত ও বিক্ষোভ শেষে দুপুর দেড়টার দিকে বাড়ি ফিরছিলেন উজানচর ইউনিয়ন আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক, সাবেক ইউপি সদস্য আবুল কালাম আজাদ (৫০)। গোয়ালন্দ বাজার আড়তপট্রি পার হয়ে মাল্লাপট্রি ব্রীজের কাছে পৌছলে কয়েক যুবক তার মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে লোহার রড ও পাইপ দিয়ে এলোপাথারী মারপিট করে। স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে।

ফরিদপুর নেওয়ার আগ মুহুর্তে আহত আ.লীগ নেতা আবুল কালাম আজাদ বলেন, নয়ন ও সুজন নামের দুই যুবক প্রথমে মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে মারপিট শুরু করে। এসময় উপজেলা যুবলীগের একাংশের কয়েকজন নেতাকর্মী দূরে দাড়িয়েছিল। তাদের ইন্দনেই তার ওপর হামলা হয়েছে বলে ধারণা।

উপজেলা আ.লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব ঘোষ বলেন, কর্মসূচি পালন করে বাড়ি ফেরার পথে প্রতিপক্ষ তাঁর ওপর ন্যাক্কারজনক হামলা চালিয়েছে। আমরা প্রতিবাদে বিকেলে বিক্ষোভ মিছিল বের করেছি। সে সুস্থ্য হয়ে আসলে প্রয়োজনীয় আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

এ প্রসঙ্গে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল-তায়াবীর বলেন, হামলাকারী যেই হোক তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। অপরাধীকে ধরতে ইতিমধ্যে পুলিশ মাঠে নেমেছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102