August 5, 2021, 3:15 am
Title :
হিন্দু বাড়িতে হামলা, মারধর, পুলিশের হস্তক্ষেপে পালিয়ে থাকা পরিবার বাড়িতে প্রবাসী ফোরামের জন্মদিনে ব্লাড ডোনার ক্লাবকে অক্সিজেন সিলিন্ডার ও সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান ভাঙন কবলিত মানুষের মাঝে ইয়ামাহা রাইডার্স এর খাদ্য সামগ্রী বিতরণ সকালে ব্যক্তিগত গাড়ির লম্বা লাইন, দুপুরে ঘাটে মানুষের ভিড় দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া রুটে লঞ্চে সকাল থেকেই মানুষের ভিড় গৃহকর্মীকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে চিত্রনায়িকা একা কারাগারে কারখানা খোলায় দৌলতদিয়া ঘাটে মানুষের ঢল, যে যেভাবে পারছে সেভাবে ছুটছে পদ্মার ১৯ কেজির পাঙ্গাশ, বিক্রি হলো ২৬ হাজার ৬০০ টাকায় গোয়ালন্দে জুয়া খেলা অবস্থায় টাকাসহ ৬ জুয়াড়ি আটক, পলাতক দুই শ্রমিকদের যাতায়াতের সুবিদার্থে রাত থেকে চলবে লঞ্চ

গোয়ালন্দ ব্লাড ডোনার ক্লাবঃ “আপনার রক্ত অন্যের জীবন, রক্তই হোক আত্মার বন্ধন”

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, সেপ্টেম্বর ৭, ২০২০
  • 26 Time View
শেয়ার করুনঃ

বিশেষ প্রতিনিধিঃ এক বছর আগেও রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার অনেকে ভাবেনি রক্তের জন্য কোথাও আর তাঁদের ছুটতে হবে না। যখন যার প্রয়োজন, প্রয়োজনীয় গ্রুপের রক্ত জোগাড় করে দিচ্ছে। রাত-দিন যে কোন মুহুর্তে রক্ত সংগ্রহ হয়ে যাচ্ছে। শুধুমাত্র সংগঠনের সদস্যদের সাথে যোগাযোগ করলেই হবে। আর সেই সংগঠনটির নাম ‘গোয়ালন্দ ব্লাড ডোনার ক্লাব’।

“আপনার রক্ত অন্যের জীবন, রক্তই হোক আত্মার বন্ধন” শ্লোগান নিয়ে গোয়ালন্দ ব্লাড ডোনার ক্লাব এর যাত্রা শুরু। স্থানীয় উৎপাদনমুখী শিল্প প্রতিষ্ঠান মোস্তফা মেটাল ইন্ডাষ্ট্রিজ লিমিটেড এর পরিচালক ও প্রথম আলো গোয়ালন্দ বন্ধুসভার উপদেষ্টা মো. সেলিম মুন্সীর সার্বিক সহযোগিতায় বন্ধুসভার সদস্য, কলেজ-বিশবিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের নিয়ে গঠন হয় সংগঠন। ৩০ সদস্য দিয়ে শুরু হলেও কয়েক মাসেই সদস্য সংখ্যা দেড় হাজার ছাড়িয়েছে। ২০১৯ সালের ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসে গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদ মাঠ চত্বরে আয়োজিত রক্ত দানের মধ্য দিয়ে সংগঠনের শুভ সূচনা। মোস্তফা মেটাল ইন্ডাষ্ট্রিজ লিমিটেড এর সহযোগিতায় ওই অনুষ্ঠানে গ্রুপ নির্ণয়, রক্ত প্রদান করা হয়। তখনকার ইউএনও রুবায়েত হায়াত শিপলু নিজের রক্ত দানের মধ্য দিয়ে সংগঠনের শুভ সূচনা করেন। ওই দিন অর্ধশত ব্যাগ রক্ত সংগ্রহ করা হয়।

উপজেলার উজানচর ইউনিয়নের নছর উদ্দিন সরদার পাড়ার আব্দুল আজিজ বলেন, অসুস্থ্য বাবা মোকছেদ আলী শেখের (৬৫) জন্য এ+ রক্ত খুঁজছিলাম। তিন মাস আগে বাবা ব্রেইন স্ট্রোক করেন। রক্তের হিমোগ্লোবিন কমে যাওয়ায় প্রতিমাসে দুইবার রক্ত দিতে হয়। গোয়ালন্দ ব্লাড ডোনার ক্লাবের সদস্যদের সাথে যোগাযোগ করলে তারাই রক্তের ব্যবস্থা করে দেন।

বৃহস্পতিবার (৩ সেপ্টেম্বর) জরুরীভাবে বাবার রক্তের প্রয়োজন পড়লে সংগঠনটির মাধ্যমে রক্ত দেন দৌলতদিয়া বীর মুক্তিযোদ্ধা ফকীর আব্দুল জব্বার কলেজের প্রভাষক ও প্রথম আলো গোয়ালন্দ বন্ধুসভার নারী বিষয়ক সম্পাদক মনা সালেহা। গোয়ালন্দ বাসষ্ট্যান্ড ন্যাশনাল ডায়াগনষ্টিক সেন্টার থেকে সংগ্রহ করে বাবাকে দেওয়া হয়।

মনা সালেহা বলেন, ১৯৯৯ সালে গোয়ালন্দ কামরুল ইসলাম কলেজে ফরিদপুর সন্ধানী ক্লাবের আয়োজনে প্রথম রক্ত প্রদান করি। আমিই প্রথম কোন নারী হিসেবে রক্ত প্রদান করেছিলাম। প্রত্যেক সুস্থ্য ব্যক্তির রক্ত দেওয়া উচিত।

রাজবাড়ী খানখানাপুর থেকে গোয়ালন্দ হাসপাতালে ভর্তি অসুস্থ্য বাবার ও+রক্তের জন্য হন্য হয়ে খুঁজছিলেন আলামিন শেখ। শুক্রবার রক্ত কোথাও জোগাড় করতে না পেরে ব্লাড ডোনার ক্লাবের সাথে যোগাযোগ করলে তারা তিন ব্যাগ রক্ত জোগাড় করে দেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট আমীরুল ইসলাম বলেন, দাপ্তরিক কাজের পাশাপাশি যখন-তখন রক্ত সংগ্রহের কাজ করতে হয়। প্রতিদিন ব্লাড ডোনার ক্লাবের সদস্যদের সাথে এমন মহৎ কাজে জড়িত থাকতে পেরে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করছি। এখন তাদের সাথে আমিও সংগঠনের একজন সক্রিয় সদস্য হিসেবে স্বাচ্ছন্দে কাজ করে যাচ্ছি।

গোয়ালন্দ ব্লাড ডোনার ক্লাব ও বন্ধুসভার সাধারণ সম্পাদক মাহাফুজুর রহমান বলেন, রক্তের চাহিদা মেটাতে হিমশিম খাচ্ছি। প্রতিদিন ২-৩ ব্যাগ রক্ত জোগাড় করতে হচ্ছে। গত শুক্রবার এক দিনেই ৬ ব্যাগ রক্ত জোগাড় করতে হয়েছে। রাজবাড়ী, ফরিদপুর, ঢাকায় গিয়েও রক্ত দিচ্ছে। রক্ত দাতাকে সংগঠনের সদস্য পদ দেয়াসহ প্রয়োজনীয় উপকরণ প্রদান ও অন্যান্য সেবা দিচ্ছি। এক্ষেত্রে কারো কাছ থেকে কোন সুবিধা নেয়া হয়না। গত ৮ মাসে অন্তত পাঁচ শতাধিক ব্যাগ রক্তের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

গোয়ালন্দ ব্লাড ডোনার ক্লাবের সহ-সভাপতি, সাংবাদিক রাশেদ রায়হান বলেন, গোয়ালন্দ উপজেলায় এ ধরনের সংগঠন আগে ছিল না। কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া একঝাঁক তরুণদের সমন্বয়ে গঠিত এমন একটি মহৎ উদ্যোগের কথা শুনে গত বছর ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসের শুভক্ষণে আমি প্রথম রক্ত দিয়ে তাদের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করি। আমার বিশ্বাস সংগঠনটি বহুদূর এগিয়ে যাবে।

গোয়ালন্দ ব্লাড ডোনার ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও বন্ধুসভার উপদেষ্টা মো. সেলীম মুন্সী রাজবাড়ী মেইলকে বলেন, আমাদের স্বার্থকতা সংগঠনের শুভক্ষণে অনেকে প্রথম রক্ত দিয়ে সবাইকে উৎসাহ দিয়েছে। আল্লাহতায়ালার মেহের বানীতে আমরা ভালো কাজের সাথে জড়িত থাকতে চাই। মনে করি আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ অসহায় মানুষের পাশে যেন থাকতে পারি। সংগঠনের মূল চালিকাশক্তি হিসেবে যারা কাজ করছে তাদের জন্য দোয়া করি আল্লাহ যেন সুস্থ্য রাখে। আমরা অসহায়দের পাশে থেকে সেবা করতে চাই।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102