September 18, 2021, 7:51 am

গোয়ালন্দ বন্ধুসভার সদস্যরা অসহায় মানুষের হাতে পৌছে দিল প্রথম আলোর ত্রাণ

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ৪, ২০২০
  • 43 Time View
শেয়ার করুনঃ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দেবগ্রাম, ছোটভাকলা ইউনিয়ন ও গোয়ালন্দ পৌরসভার বন্যা দুর্গত ১০০ অসহায় পরিবারের মাঝে দ্বিতীয় দফা ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেছে প্রথম আলো ট্রাস্ট। প্রথম আলো গোয়ালন্দ বন্ধুসভার সদস্যরা দুর্গম অঞ্চলে গিয়ে এসব ত্রাণ সামগ্রী পৌছে দেন। এর আগে উপজেলার উজানচর ও দৌলতদিয়া ইউপির আরো ১০০ বন্যা দুর্গত পরিবারের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

জুন মাসের শেষ থেকে পদ্মা নদীতে পানি বাড়তে থাকে। তলিয়ে যেতে থাকে নিম্নাঞ্চল। উপজেলার কয়েক হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে যায়। একদিকে করোনার কারণে উপজেলার অধিকাংশ মানুষ বেকার হয়ে পড়ে। এরপর শুরু হয় দীর্ঘ মেয়াদী বন্যা। তিন দফায় বন্যায় কৃষকের প্রায় ৮ কোটি টাকার ফসল ও সবজির ক্ষতি হয়। পানিবন্দি হয়ে কয়েকশ পরিবার মানবেতর জীবন যাপন করতে থাকে।

দেবগ্রাম ইউপির কাওয়ালজানি, তেনাপচা, দেবগ্রাম, ছোটভাকলা ইউপির চর বরাট সহ পৌরসভার নগর রায়ের পাড়া ও হানির ডাঙ্গি এলাকার বন্যা দুর্গত ১০০পরিবারের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী হিসেবে চাল, ডাল, সয়াবিন তেল ও লবন দেওয়া হয়। এসময় ইউপি চেয়ারম্যান হাফিজুল ইসলাম, প্রথম আলো প্রতিনিধি ও বন্ধুসভার উপদেষ্টা রাশেদ রায়হান, বন্ধুসভার সভাপতি মুহাম্মদ বাবর আলী, সহ-সভাপতি সাইফুর রহমান পারভেজ, সাধারণ সম্পাদক মাহাফুজুর রহমান মিলন, যুগ্ম-সম্পাদক মইনুল হক মৃধা, সাংগঠনিক সম্পাদক জীবন চক্রবর্তী, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সফিক মন্ডল, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সম্পাদক ডা. জাকির হোসেন, অনুষ্ঠান বিষয়ক সম্পাদক এমদাদুল হক পলাশ, কলিন্স প্রার্থ, মো. সবুজ, শরিফুল ইসলাম, রবিউল ইসলাম, জাকির হোসেন প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

দেবগ্রামের কাওয়ালজানি মরা পদ্মা নদীর ওপর নির্মিত বাঁধে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হয়। কাওয়ালজানি গ্রামের দরিদ্র বৃদ্ধ মোহাম্মদ আলী (৭০) বলেন, অনেক আগে কিছু ত্রাণ পেয়েছিলাম। অনেক দিন পর আইজ প্রথম তেরান পাইলাম। খুব খুশি লাগতাছে।

তেনাপচা গ্রামের রাস্তার পাশে সরকারিভাবে বরাদ্দ পাওয়া ছোট্র ঘরে যুবতী মেয়েকে নিয়ে বাস করেন বিধবা ফিরোজা বেগম (৫০)। অনেক আগে স্বামী মারা যাওয়ায় একমাত্র মেয়েই তার সম্বল। তাকে অনেক কষ্টে এসএসসি পাশ করিয়েছেন। নিজের জমি বলতে কিছু নেই। বাবার বাড়ি থেকে ওয়ারিশ পাওয়া সামান্য একটু জমিতে চাষ ও অন্যের ছাগল পুষে কষ্টে চলেন।

প্রথম আলো থেকে ত্রাণ পেয়ে তিনি আবেগ আপ্লুত হয়ে বলেন, “বাপরে আমার কোন বেটা (ছেলে) নাই। মাইয়াডারে নিয়া কোনরহম চলতাছি। আপনাগো দেয়া তেরান পাইয়া কি যে খুশি লাগতাছে, বলতে পারমুনা। আমি পরান ভইরা দোয়া করি বাবা তোমরা যেন এভাবেই মানুষগেরে সাহায্য করতে পারো।”

পৌরসভার ২নম্বর ওয়ার্ড হানির ডাঙ্গির মৃত সাহজদ্দিন এর স্ত্রী ময়না বুরুর তিন ছেলে ও দুই মেয়ে। স্বামী অনেক আগেই মারা গেছেন। ছেলে-মেয়ে সবারই বিয়ে হয়ে আলাদা থাকেন। স্বামীর মাত্র ২ শতাংশ জমির ওপর কোন রকম খুপড়ি ঘরে বাস করেন। বন্ধুসভার সদস্যরা তাকে খুঁজে বের করে পৌছে দেন প্রথম আলো ট্রাস্টের একটি ত্রাণের প্যাকেট।

ময়না বরু আবেগ আপ্লুত হয়ে বলেন, সোয়ামী মইরা গেছে অনেক আগেই। দুই মাস ধইরা বাইস্যার পানি আসার পর একবার তেরান পাইছিলাম, আর কেউ কিছু দেয়নি। আপনারাই আমারে কিছু দিলেন।

দেবগ্রামের কাওয়ালজানির দিন মুজুর ইউনুস শেখ এর স্ত্রী মনোয়ারা বেগম (৫৫) ত্রাণের প্যাকেট পাওয়ার পর খুশি বলেন, করোনার কারণে কোথাও কাম-কাজ নাই। কাজ না থাকায় উনি (স্বামী) বাড়ি বেকার হয়ে বসে ছিল। মাঝেমধ্যে পরিচিত কেউ ডাকলে কামে যায়। এরপর দুই মাস ধরে হয়েছে বন্যা। বন্যার সময় কিছু ত্রাণ পেয়েছিলাম। এতে আমাদের কয়েক দিন গেছে। আপনারা এলাকায় আইসা এভাবে আমাগোর খাবার দিয়ে গেলেন খুব খুশি হয়েছি।

দেবগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান হাফিজুল ইসলাম বলেন, ২০ বছর ধরে দেখছি সব ভালো কাজের সাথে প্রথম আলো জড়িত। আগে বেশ কয়েকবার শীতের সময় শীতবস্ত্র প্রদান, বন্যার সময় দুর্গম অঞ্চলে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ ও ঈদের আগে ঈদের বাজার করে দিয়েছে। আমি তাদের ভালো কাজের সাথে আছি। দুর্গম অঞ্চলের অসহায় মানুষের পাশে দাড়ানোর প্রথম আলো ও বন্ধুসভার কাছে কৃতজ্ঞ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102