December 7, 2021, 9:08 pm
Title :
গোয়ালন্দে চার ভিক্ষুককে পুনর্বাসনে নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান গোয়ালন্দে পালানোর সময় জনতার হাতে মোটরসাইকেলসহ চোর আটক পাঁচুরিয়া ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থীর ভাতিজাকে অপহরন, ৯৯৯-এ নম্বরে ফোন করে উদ্ধার ঘূূর্ণিঝড় জাওয়াদের প্রভাবঃ বৃষ্টিতে গোয়ালন্দে জনজীবন বিপর্যস্ত পাংশার দশ ইউপিতে নৌকা পেলেন যারা রাজবাড়ীতে বোমাসহ নৌকা প্রার্থীর ছেলেসহ আটক দুই রাজবাড়ীতে মাদ্রাসাছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে তরুণ গ্রেপ্তার রাজবাড়ীতে ইলিশ সম্পদ উন্নয়নের লক্ষে অবহিতকরণ কর্মশালা গোয়ালন্দে দরিদ্র পরিবারের ঘরে জমজ তিন সন্তান “ঘর জুড়ে আলো, মন জুড়ে আধার” গোয়ালন্দে হিন্দু বৌদ্ধ খৃষ্টান ঐক্য পরিষদের নির্মল সভাপতি ও কোমল সম্পাদক

গোয়ালন্দের ৩২১ জন প্রতিবন্ধী পেল সুবিধাভোগী ভাতা কার্ড

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, সেপ্টেম্বর ২, ২০২০
  • 40 Time View
শেয়ার করুনঃ
জীবন চক্রবর্তীঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের মাধ্যমে ৩২১ জন প্রতিবন্ধীকে সুবিধাভোগী ভাতা কার্ড প্রদান করা হয়েছে। এর মধ্যে গোয়ালন্দ পৌরসভায়-৩০, উজানচর ইউনিয়নে ৯০ জন,  দেবগ্রাম ইউনিয়নে-৩৫, দৌলতদিয়া-৬৫ এবং ছোটভাকলা-১০১ জন সহ সর্বমোট-৩২১ জন সুবিধাভোগীকে ভাতার কার্ড প্রদান করা হয়েছে।
উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয় সূত্র জানায়, ২০১৯-২০ অর্থ বছরে শতভাগ স্বচ্ছতার সাথে উন্মুক্তভাবে সবচেয়ে বেশি দরিদ্র প্রতিবন্ধী বাছাই করে ভাতার কার্ড প্রদান করা হয়। গোয়ালন্দ উপজেলা সমাজসেবা অফিসের মাধ্যমে প্রত্যেক প্রতিবন্ধী সারা বছরের জন্য এক কালিন ৯ হাজার টাকা ইতিমধ্যে তারা হাতে পেয়েছেন। এ বছর থেকে জিটুপি পদ্ধতিতে ৭৫০ টাকা হিসেবে প্রত্যেক প্রতিবন্ধী প্রতি ৩ মাস পর পর একসঙ্গে অনলাইনে ভাতার টাকা পাবেন।
এই ভাতা পেতে হলে একজন প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে “প্রতিবন্ধী পরিচয়পত্র” আগে সংগ্রহ করতে হবে সমাজসেবা অধিদপ্তরের মাধ্যমে। সমাজসেবা অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটের তথ্যমতে, সরকার ২০০৫ সালে প্রথম প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য ভাতা প্রদানের নিয়ম শুরু করেছিল। যার পরিমাণ ছিল মাসে ২০০ টাকা। শুরুতে মোট ১ লাখ ৪ হাজার ১৬৬ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে ভাতা প্রদান করা হয়। ২০১৯ সাল পর্যন্ত সরকার এই টাকার পরিমাণ করেছে ৭৫০ টাকা। ২০১৯-২০ অর্থ বছরে পাস করা হয়েছে মোট ১৩৯০ দশমিক ৫০ কোটি টাকা। সামগ্রিক অংকে এটা একটা বড় অংক হলেও একজন একক ব্যক্তির জন্য প্রতিবন্ধী ভাতা সেই ৭৫০ টাকাই রয়ে গেছে।
উপজেলার ছোটভাকলা ইউনিয়নের হাউলি কেউটিল এলাকার সন্ধ্যা রানী শীল (৬০) বলেন, সরকার আমাগের মত প্রতিবন্ধী মানুষগের এই ভাতা প্রদান করচে। এইডা আমাগের অসময়ের বান্ধব, আমাদের এইডা অনেক বড় একটা বড় সাহায্য”।
দুনিয়াজোড়া করোনা ভাইরাসের কারণে সৃষ্ট মহামারীর সময়ে একজন চরম দরিদ্র প্রতিবন্ধী ব্যক্তির জন্য প্রতিবন্ধী ভাতার অনেকাংশে এ সকল মানুষের বাঁচার পথ দেখিয়েছেন। টেকসই উন্নয়নের অঙ্গীকার হিসেবে এসডিজির ২ নম্বর ধারায় রয়েছে “ক্ষুধামুক্ত পৃথিবী গড়ার অঙ্গীকার”। বাংলাদেশ ও এসডিজির লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বদ্ধ পরিকর। ক্ষুধাকে জয় করার জন্য অন্য যেকোন জনগোষ্ঠী নিজে যেটুকু কাজ করতে পারেন, একজন প্রতিবন্ধী ব্যক্তি বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তা পারেন না। দুনিয়াজোড়া মহামারীকালীন সময়ে একজন চরম দরিদ্র প্রতিবন্ধী ব্যক্তির জন্য বিশেষ উপকার হচ্ছে।
গোয়ালন্দ উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা চন্দন কুমার মিত্র রাজবাড়ীমেইলকে বলেন,“ পৌরসভার কাউন্সিলর এবং সকল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের মাধ্যমে সমন্বয় করে আমরা কাজটি সুন্দরভাবে সম্পন্ন করতে পেরেছি। গোয়ালন্দ উপজেলায় শতভাগ বয়ষ্ক, বিধবা ও প্রতিবন্ধী ভাতা প্রদানের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ফলে নতুন করে আরও প্রায় সাত হাজার অসহায় মানুষ সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতায় আসবে বলে ধারনা করা হচ্ছে”।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102