September 18, 2021, 8:35 am

পদ্মার চরে পুতে রাখা কিশোরের কব্জি উদ্ধার হয়নি, পরিবারে চলছে শোকের মাতম

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, সেপ্টেম্বর ২, ২০২০
  • 35 Time View
শেয়ার করুনঃ

বিশেষ প্রতিনিধিঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার পদ্মার দুর্গম চরে পুতে রাখা স্কুল ছাত্র সুজন ওরফে মিরাজ খার লাশের বাম হাতের কব্জি উদ্ধার হয়নি। ঘটনার সাথে জড়িত কাউকে পুলিশ গ্রেপ্তার করতে পারেনি। পুলিশের দাবী, মুঠোফোনের সূত্র ধরে অগ্রগতি হয়েছে। দ্রুত অপরাধীদের শনাক্ত হবে। পরিবারের সন্তানকে হারিয়ে শোক চলছে।

বুধবার নিহত মিরাজের বাড়িতে দেখা যায়, ঘরের বারান্দায় শোকাহত মা বাকরুদ্ধ হয়ে শুইয়ে আছে। তাকে শান্তনা দিয়ে যাচ্ছেন আত্মীয় স্বজনসহ প্রতিবেশীরা। ঘরে বড় ভাই সেলিম খা বার বার কান্নায় মুর্ছা যাচ্ছেন। তাকে শান্তনা দিচ্ছেন অনেকে। আরেক ঘরে মিরাজের আরেক ভাই ও একমাত্র বোন কিছুক্ষণ পর পর আহাজারি করছে।

মিরাজের ছোট বোন বৃষ্টি আক্তার জানায়, গত বৃহস্পতিবার (২৭ আগষ্ট) মাকে নিয়ে আরেক ভাই ফরিদপুর ডাক্তার দেখাতে যায়। সন্ধ্যায় ফিরে না আসায় সজিব আমার কাছে ভাত খেতে চায়। খাওয়ার সময় ফোন আসে। খাওয়া শেষে পাশের ঘরে গিয়ে মিরাজ ফোনে কথা বলে জরুরী কাজ আছে বলে বাইরে চলে যায়। কিছুক্ষণ পর সেজ ভাই সজিবের নাম্বারে মিরাজ ফোন করে মা বাড়ি এসেছে কি না জানতে চায়।

সজিব জানায়, মা বাড়ি আসেনি বলা মাত্র ফোন কেটে দেয়। এ সময় মিরাজের কণ্ঠ ভারি লাগছিল। মনে হচ্ছে ও কোন বিপদে পড়েছে। মা রাত ৮টার দিকে বাড়ি আসলে মিরাজের ফোনে ফোন করলে বন্ধ পাওয়া যায়। ৯টার দিকে বড় ভাই সেলিম বাড়ি আসলে সেও ফোনে চেষ্টা করে বন্ধ পায়।

বড় ভাই সেলিম খা বলেন, চার ভাইয়ের মধ্যে মিরাজ ছোট হওয়ায় আদরে ছিল। পড়াশুনা ছাড়া অন্য কোন কাজ করতনা। আমার ভাইয়ের সাথে কারো কোন বিরোধ নেই। ওইদিন হয়তো খুনিরা মার সাথে শেষ বারের জন্য কথা বলতে বলেছিল বলেই ফোনে মাকে চাচ্ছিল। কারা কিভাবে খুন করেছে বলতে পারছিনা। আমার ভাই হত্যার বিচার চাই, খুনিদের ফাঁসি চাই। পুলিশ এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

মিরাজের মা হাসনা বেগম কিছুক্ষণ পর পর “আমার মিরাজ কো, তোরা আমার মিরাজের আইনা দে। ওরে আমার বেটারে, কারা মাইরা ফেলাইলো রে”। এভাবে বিলাপ করছিলেন আর বলছিলেন। তিনি বলেন, ওই দিন আমি ডাক্তার দেখাতে ফরিদপুর যায়। ওই আমার শেষ দেখা ছিল। মিরাজ আমার সাথে কথা বলার জন্য ফোন করেছিল।

মিরাজের ঘনিষ্ট বন্ধু স্থানীয় মুন্সী বাজার এলাকার নিজাম মোল্লার ছেলে রাজিব মোল্লা জানায়, দেবগ্রাম বাড়ি থাকা অবস্থায় একত্রে চলাফেরা করতাম। কারো সাথে খারাপ আচরণ বা আড্ডা দিতে দেখিনি। ঈদের আগে আমরা একত্রে পোশাক কিনতাম। গত সোমবার সকালে পদ্মার চরে কাঁদাপানিতে পুতে রাখা লাশের পড়নের প্যান্ট দেখে শনাক্ত করি। ৬-৭ মাস আগে আমরা দুইজনে দৌলতদিয়া বাজার থেকে একত্রে ওই প্যান্ট কিনেছিলাম।

উল্লেখ্য, গত সোমবার দুপুরে উপজেলার দেবগ্রাম ইউপির কাওয়ালজানি এলাকার পদ্মার দুর্গম চরে কাঁদাপানিতে পুতে রাখা অর্ধ গলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পড়নের প্যান্ট, কপালের কাটা দাগ ও বয়স দেখে ২৭ আগষ্ট থেকে নিখোঁজ নবম শ্রেণীর স্কুল ছাত্র মিরাজ খার লাশ শনাক্ত করে পরিবার। এসময় তার বাম হাতের কব্জি ছিল না। ডান হাতের কাঁধ থেকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে আলাদা করা ছিল। পিঠে তিনটি ধারালো অস্ত্রের গভীর ক্ষত ছিল। মাটিতে উপুর করে পুতে রাখার পর কলাগাছ গিয়ে ঢেকে রাখা হয়। মিরাজ দেবগ্রামের উত্তর চর পাচুরিয়া গ্রামের সিরাজ খার ছেলে।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার পুলিশ পরিদর্শক ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল-তায়াবীর রাজবাড়ীমেইলকে বলেন, এখন পর্যন্ত হাতের কব্জি উদ্ধার হয়নি। হত্যাকান্ডে জড়িত কাউকে গ্রেপ্তার বা ক্লু উদ্ধার হয়নি। মুঠোফোনের সূত্র ধরে দ্রুত অপরাধী শনাক্ত সম্ভব বলে আশাবাদী। লাশ উদ্ধারের পরদিন মঙ্গলবার ময়না তদন্ত শেষে পরিবারের কাছে লাশ বুঝিয়ে দিলে দাফন সম্পন্ন হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102