December 3, 2021, 1:59 am

পদ্মা নদীর ভাঙনে নিঃশ্ব ৫৪ ভুমিহীন পরিবার পেল বসতি গড়ার এক খন্ড জমি

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, আগস্ট ১৩, ২০২০
  • 52 Time View
শেয়ার করুনঃ

বিশেষ প্রতিনিধিঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার পদ্মানদী তীরবর্তী দৌলতদিয়া ও দেবগ্রাম ইউনিয়নে প্রতি বছর বর্ষায় নদী ভাঙনে বসতভিটা ও জমি হারিয়ে ভুমিহীন হয়ে পড়ছে শত শত পরিবার। গত বছর ভাঙনে ভুমিহীন এসব পরিবারের মধ্যে জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় উপজেলা খাস জমি বন্দোবস্ত কমিটি জমি প্রদানের সিদ্ধান্ত নেয়। তার আলোকে বুধবার ৫৪টি পরিবার পেল বসতি গড়ার একখন্ড জমি।

নদী ভাঙনের শিকার পরিবারগুলো আশ্রয় নিয়েছিল বিভিন্ন রাস্তার ঢালুতে, অন্যের জমি, নিকট আত্মীয় স্বজনের বাড়িতে। অথচ এসব পরিবারের এক সময় ছিল নিজস্ব জমি, বসত বাড়ি। বুধবার (১২ আগষ্ট) এসব ভুমিহীন পরিবারকে ৪ থেকে ১০ শতাংশ পর্যন্ত জমি কবুলিয়তনামার মাধ্যমে দলিল সম্পাদন করে দেয়া হয়। ফের নিজস্ব কিছু জমি ও ঠিকানা পেয়ে অনেকে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন।
গোয়ালন্দ-রাজবাড়ী-পাংশা বেড়িবাঁধ সড়কের ঢালুতে আশ্রয় নেয়া মৃত আলিম উদ্দিন ফকিরের স্ত্রী কাজলী বেগম (৬৫) এক মেয়ে, মেয়ে জামাই ও নাতীকে নিয়ে কয়েক বছর ধরে বাস করছে। প্রায় ৬ বছর আগে উপজেলার দেবগ্রাম ইউনিয়নের কাওয়ালজানি গ্রামের নিজের বাড়ি নদী ভাঙনে বিলীন হয়ে যায়। নিঃশ্ব পরিবারটি কোথাও যাবার জায়গা না পেয়ে ঠাই নেয় বেড়িবাধের ঢালুতে। মেয়ে বিয়ে দিয়ে জামাইকে নিয়ে থাকেন কাজলী বেগম। এক মাত্র ছেলে সে বিয়ে করে অন্যত্র থাকেন। কখনো ভাবেনি ফের নিজের একখন্ড জমি হবে। অথচ একটু আশ্রয়ের জন্য অনেকের কাছে ধরণা ধরেছেন। উপজেলা খাসজমি বন্দোবস্ত কমিটি তাঁকে ছোটভাকলা ইউনিয়নের ৪৭৩ নম্বর দাগের ১০ শতাংশ জমি বন্দোবস্ত দিয়েছেন।

আবেগ আপ্লুত বৃদ্ধা কাজলী বেগম বলেন, “বাপুরে আমারও এক সময় জমি ছিল। বড় বাড়ি ছিল। আমার সোয়ামী (স্বামী) মারা যাবার পর সংসারে টানাটানি শুরু হয়। এরপর সর্বনাশা ভাঙনে আমার সবকিছু নদীতে নিইয়া যায়। অহন কোহনে যামু, ঠিক ঠিকানা নাই। পরে বেড়িবাধের পাশে কোনরহম ছাপড়া ঘর কইরা থাহি। অহন আমার নামের ১০ শতক জমি হয়ছে। আবার আমি নিজের জমিতে থাকতে পারমু। এর চেয়ে সুখ আর কি হইতে পারে রে বাবা।”

দৌলতদিয়ার মজিদ শেখের পাড়ার মৃত মোজাই শিকদারের স্ত্রী ময়না বেগম (৬০) দুই ছেলে ও দুই মেয়ে নিয়ে বাস করছেন ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের পাশে। গত বছর নদীতে সব বিলীন হলে আশ্রয় নেন সড়কের পাশে। ৮ বছর আগেও দৌলতদিয়া নোহারী মন্ডল পাড়ায় নিজস্ব দুই বিঘা জমিসহ বড় বাড়ি ছিল। নদীতে সব বিলীন হলে চলে আসেন ফেরি ঘাট সংলগ্ন মজিদ শেখের পাড়ায়। গত বছর ফের দ্বিতীয় দফা ভাঙনে সর্বশ্বহারিয়ে গেলে তিনি বর্তমানে সড়কের পাশে এসে আশ্রয় নেন। ময়না বেগমকে দক্ষিণ উজানচর মৌজার ১১৩২ নম্বর দাগ থেকে ৪ শতাংশ জমি বন্দোবস্ত দেয়া হয়েছে।

ময়না বগেম বলেন, বাবারে আগুনে পুড়ে গেলে ভিটেমাটি থাহে। নদীতে ভাইঙা গেলে কিছুই থাহে না। আমাগোর জমিতে মানুষজন আইসা এক সময় থাকছে। অহন আমাগোর থাহার জায়গা নাই। তই এই জমি পাইয়া কিযে উপকার হইলো বোঝাইতে পারব না। আল্লাহ সবাইকে ভালো রাখুক।

দৌলতদিয়া ইউনিয়নের নদী ভাঙন কবলিত ২নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য উজ্জল হোসেন বাবু বলেন, প্রতি বছর নদী ভাঙনে পদ্মা নদী তীরবর্তী দৌলতদিয়া ও দেবগ্রাম ইউনিয়নের গ্রামগুলো ভাঙনের কবলে পড়ে। গত বছর ভাঙনে শুধু তাঁর ২ নম্বর ওয়ার্ডের প্রায় পাঁচশ পরিবার নদী ভাঙনের কবলে পড়ে ভুমিহীন হয়ে যায়। সরকারের খাস জমি দিয়ে তাদের পুর্নবাসন করায় অনেকে উপকৃত হচ্ছে এসব মানুষ।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) ও উপজেলা বন্দোবস্ত কমিটির সদস্য সচিব আব্দুল্লাহ আল-মামুন বলেন, কেউ ভুমিহীন থাকবে না, প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা বাস্তবায়নে জেলা প্রশাসকের সহযোগিতায় গত বছর ভাঙনের শিকার সহস্রাধিক পরিবারকে উপজেলা খাসজমি বন্দোবস্ত কমিটি থেকে পুর্নবাসনের সিদ্ধান্ত হয়। তার আলোকে আমরা দৌলতদিয়া ও দেবগ্রাম ইউনিয়নের তিন শতাধিক পরিবারকে প্রথম দফায় তালিকা প্রস্তুত করেছি। ওই তালিকা থেকে প্রথম দফায় ৫৪টি পরিবারকে দলিল সম্পাদনের মাধ্যমে হস্তান্তর করছি। পর্যায়ক্রমে বাকিদেরও করা হবে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে এসব পরিবার তাদের জমিতে বসতি গড়বেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102