June 22, 2021, 7:32 pm
Title :
রাজবাড়ীতে পুকুরে মাছের পোনা অবমুক্ত ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ দৌলতদিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে করোনায় সংক্রমণ রোধে কঠোরবিধি নিষেধ, পৌরসভার উদ্যোগে মাস্ক বিতরণ গোয়ালন্দ থানা পুলিশের উদ্যোগঃ বিট পুলিশকে তথ্য দিন, নিরাপদে কাটবে দিন করোনা নিয়ে উদ্বেগঃ রাজবাড়ীর তিন পৌরসভায় এক সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ রাজবাড়ীতে দ্বিতীয় পর্যায়ে ঘর পেল ভূমিহীন ৪৩০টি পরিবার পাংশায় আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের মাঝে জমিসহ গৃহ প্রদান কার্যক্রম অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে নতুন ঘরে নতুন আশা নিয়ে নতুন দিনের স্বপ্নে ৩০ পরিবার এবার যমুনা নদীতে জেলেদের জালে ধরা পড়লো ৪৭ কেজি ওজনের বাগাড় রাজবাড়ীতে ১০দিন ব্যাপি সাঁতার প্রশিক্ষণ উদ্বোধন

ঈদ যাত্রায় কর্তৃপক্ষের প্রস্তুতি, তবুও দৌলতদিয়া ঘাটে দুর্ভোগের শঙ্কা

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, জুলাই ২৬, ২০২০
  • 8 Time View
শেয়ার করুনঃ

বিশেষ প্রতিনিধিঃ আসন্ন ঈদ যাত্রা নির্বিঘ্ন করতে রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ও মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাট কর্তৃপক্ষ প্রস্তুতি গ্রহণ করলেও দুর্ভোগের শঙ্কা রয়েই গেছে। ফেরি সংকট, বন্যা, জুয়াড়ি চক্রের তৎপরতা, জাল টিকিটে গাড়ি পার করার চেষ্টা, কুলি-মজুরদের বেপরোয়া আচরণ, ছিনতাইকারীদের দৌরাত্ম যেন ঘাট দিয়ে যাত্রী ও যানবাহন নির্বিঘ্নে পারাপারে বড় অন্তরায়।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয় ও সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, রাজধানীর সাথে সড়ক যোগাযোগের অন্যতম নৌপথ দৌলতদিয়া ও পাটুরিয়া। প্রতিদিন ঘাট দিয়ে কয়েক হাজার যানবাহন পারাপার হয়। ঈদের আগে ও পরে উভয় ঘাটে ঘরমুখো মানুষ ও যানবাহনের চাপ পড়ে। এ সুযোগে ঘাট সংশ্লিষ্ট কিছু অসাধু চক্র তৎপর হয়ে উঠে।

গত ২২ জুলাই দৌলতদিয়া ঘাটে অবস্থিত আবাসিক বোডিংয়ে আসর বসিয়ে জুয়া খেলার সময় পুলিশ ও ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়ে হাতনোতে ২৩ জুয়াড়িকে আটক করে। পরে তাদের প্রত্যেকের থেকে ৫০০টাকা করে জরিমানা আদায়ের পর ছেড়ে দেয়া হয়। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন সহকারী কমিশনার (ভুমি) ও নির্বাহী ম্যজিষ্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল-মামুন।

এর আগে ২০ জুলাই জাল টিকিটে ফেরিতে যাত্রীবাহি বাস পার করার চেষ্টাকালে বাসের তত্বাবধায়কসহ দুই জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে টিকিট জালিয়াতির অভিযোগে মামলা করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো সোহাগ পরিবহনের বাস (ঢাকা মেট্রো ব-১৪-৯৫১৩) তত্বাবধায়ক, যশোর কোতয়ালী থানার আলিম ওরফে তুহিন শিকদার (২৩) ও মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার সবুজ মোল্লা (২৪)।

এদিকে গত বৃহস্পতিবার (২৩ জুলাই) গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ঈদে ঘাট যানজটমুক্ত ও মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রস্তুতিমূলক সভা হয়। ইউএনও আমিনুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় উপজেলার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান চৌধুরী, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নার্গিস পারভীন, সহকারী কমিশনার (ভুমি) আব্দুল্লাহ আল-মামুন, বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়ার ব্যবস্থাপক আবু আব্দুল্লাহ, গোয়ালন্দ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আব্দুল্লাহ আল-তায়াবীর, দৌলতদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান মন্ডল, উপজেলা আ.লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব ঘোষ, বিআইডব্লিউটিএ, নৌপুলিশ, হাইওয়ে পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস, পরিবহন মালিক সমিতি, ঘাট সংশ্লিস্টরা উপস্থিত ছিলেন।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক আবু আব্দুল্লাহ বলেন, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে ১৪টি ফেরি চালু রয়েছে। এরমধ্যে ৬টি রো রো (বড়), ১টি মাঝারী ও ৬টি ইউটিলিটি (ছোট)। আরেক বড় ফেরি হামীদুর রহমান দুই মাস ধরে যান্ত্রিক ক্রটিতে বিকল হয়ে পাটুরিয়ার ভাসমান কারখানা মধুমতিতে রয়েছে। শুক্রবার রাতে ডকইয়ার্ড থেকে কেরামত আলী নামক বড় ফেরি এসে বহরে যুক্ত হয়। সোমবার থেকে আরেকটি এবং ২৭ বা ২৮ জুলাই আরেকটি বড় ফেরি আসার কথা রয়েছে। তিনটি বড় ফেরি বহরে যুক্ত হলে অনেকটা চাপমুক্ত থাকা যাবে।

তিনি বলেন, এই রুটে চলাচলরত অধিকাংশ ফেরি পুরাতন। দুর্বল ইঞ্জিন সম্পন্ন ফেরি সহজে স্রোতের বিপরিতে চলতে পারেনা। এমন পরিস্থিতিতে বড় ফেরির বিকল্প নাই। বর্তমানে ৭টির সাথে ৩টি বড় ফেরি যুক্ত হয়ে ১০টি হবে। ৯টি বড় ফেরি নিয়মিত চললে তেমন সমস্যা হবেনা। আমরা সেভাবে প্রস্তুতি নিচ্ছি। শঙ্কার বিষয় বন্যায় ঘাট তলিয়ে গেলে বড় বিপর্যয় দেখা দিতে পারে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড রাজবাড়ীর নির্বাহী প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম শেখ বলেন, গোয়ালন্দ পয়েন্টে বিপৎসীমার পরিমাপ হচ্ছে ৮.৬৫ মিটার। ১৯৯৮ সালে গোয়ালন্দ পয়েন্টে পানির স্তর ছিল ১০.২১ সেন্টিমিটার। এবছর বন্যা পূর্বাভাস কেন্দ্র থেকে এমন শংকেত দিয়েছে ১৯৯৮ সালের বন্যাকে অতিক্রম করতে পারে। বিশেষ করে মধ্য আগষ্টে পরিস্থিতি আরো খারাপ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এমনটি হলে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের দৌলতদিয়া ঘাট এলাকা স্বাভাবিকভাবে তলিয়ে যাবে। তখন যোগাযোগ ব্যবস্থা ভেঙে পড়তে পারে। তবে এমনটি নাও হতে পারে।

ঘাট রক্ষায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রস্তুতি কেমন জানতে চাইলে শফিকুল ইসলাম শেখ বলেন, বন্যা প্লাবিত হলে কি করার আছে? ওই সময় মানুষের মাঝে ত্রাণ সহযোগিতা দেয়া ছাড়া কিছু করার থাকবেনা। তবে বন্যায় তলিয়ে গেলে ভাঙন থাকেনা। ফেরি ঘাট বা বেড়িবাঁধ ভাঙার আশঙ্কা নেই। সেপ্টেম্বর মাসের দিকে পানি দ্রুত নেমে যাওয়ার পর নদীতে স্রোত থাকলে ভাঙন বাড়তে পারে। সেজন্য পাউবোর সকল ধরনের প্রস্তুতি রয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102