June 21, 2021, 3:44 pm
Title :
করোনা নিয়ে উদ্বেগঃ রাজবাড়ীর তিন পৌরসভায় এক সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ রাজবাড়ীতে দ্বিতীয় পর্যায়ে ঘর পেল ভূমিহীন ৪৩০টি পরিবার পাংশায় আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের মাঝে জমিসহ গৃহ প্রদান কার্যক্রম অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে নতুন ঘরে নতুন আশা নিয়ে নতুন দিনের স্বপ্নে ৩০ পরিবার এবার যমুনা নদীতে জেলেদের জালে ধরা পড়লো ৪৭ কেজি ওজনের বাগাড় রাজবাড়ীতে ১০দিন ব্যাপি সাঁতার প্রশিক্ষণ উদ্বোধন গোয়ালন্দে সংবাদপত্রের এজেন্টের দোকানে জানালার গ্রিল কেটে চার লাখ টাকা চুরি গোয়ালন্দে অস্বচ্ছল নারীদের মাঝে বিনামূল্যে সেলাই মেশিন বিতরণ সামান্য বৃষ্টিতে রাজবাড়ীর বড় বাজার নোংরা ও দূষিত পানিতে সয়লাব, দুর্ভোগ গোয়ালন্দে আগুনে ঘর পুড়ে সর্বশান্ত ৫ পরিবার

গোয়ালন্দ পৌরসভার ২নম্বর ওয়ার্ডের বন্যা কবলিত মানুষের দুর্ভোগ

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, জুলাই ২৪, ২০২০
  • 6 Time View
শেয়ার করুনঃ
জীবন চক্রবর্তীঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ পৌরসভার ২নম্বর ওয়ার্ডের বন্যাকবলিত মানুষ অসহায় হয়ে পড়েছে। করোনার মধ্যে বন্যা দেখা দেয়ায় বাড়তি দুর্ভোগে পড়েছেন। দুদিন আগে পানি কিছুটা কমতে থাকলেও আবার বাড়তে শুরু করেছে। কাঁচা বাড়ী-ঘর স্রোতের তোড়ে নড়বড়ে হয়ে গেছে। কেউ কেউ ইট দিয়ে ঘরের চৌকি উঁচু করে ঘরের মালপত্রগুলো রেখে দিয়েছে। বৃষ্টিতে টিনের ভাঙা ঘরে পানি পড়ে। তারপর ঘরের মধ্যেও বন্যার পানির স্রোত। এর মধ্যেই পরিবারের সকলে নির্ঘুম অবস্থায় বিপদসংকুল রাত পার করছে। এখন পর্যন্ত তারা কোন সাহায্য-সহযোগিতা পায়নি।
বৃহস্পতিবার (২৩ জুলাই) সকালে পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের দেওয়ান পাড়া, শানির ডাঙ্গা ঘুরে দেখা যায়, বেশ কিছু পরিবার পানিবন্দী অবস্থায় রয়েছে। কেউ কেউ বাড়িঘর ছেড়ে নগরায়ের পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আশ্রয় নিয়েছে। বন্যার পানি দুদিন কমলেও আবার বেড়েই চলেছে। তাদের টিউবওয়েল ডুবে গেছে। হাঁস-মুরগি আশ্রয় নিয়েছে ঘরের চালে। অনেকে গরু ছাগল রাস্তায় রেখে এসেছে। আবার কেউ পানিবন্দি অবস্থায় কোন রকম চৌকি উচু করে তাতে বাস করছেন। পাশেই মাটির চুলা উচু করে রান্না করছেন।
 বন্যা কবলিত মো. ফজলু বেপারি (৬০) কষ্টের সাথে বলেন, “রাত্রিরি যহন একটানা বৃষ্টির শো শো আওয়াজ হয়, চারিদিকে থই থই পানি, সাপ, পোকা মাকড় ঘুইরা বেড়ায়। গত রাতে পাশের বাড়ি থাইকা প্রায় তিন হাত একটা গুক্খু (গোখরা) সাপ মারচে। অন্ধকারে পুলাপাইন গুলা ডরে কাইন্দা ওঠে। তখন মনে হয় আমাগো সগ্গলের পানির মদিন ডুইবা মরতে হইবো”।
স্থানীয় আমিরুল ইসলাম (৩২) বলেন, হাতে টাহা নাই, খামু কি? “রাইতে জাল পাইতা মাছ ধরি, সক্কাল বেলা সাঁতরায়া বাজারে যাই। মাছ বিক্রি করি যে কয়টা টাহা পাই তাই দিয়ে চিড়ে মুড়ি কিনা কোন রকমে বৌ পুলাপাইন নিয়া চলছি। বৃষ্টি হলি যেদিন জাল পাতবার পারি নে, সেদিন আর প্যাটে খাওয়া জোটে না”।
পানিবন্দি শফিক মন্ডল বলেন, এক সপ্তাহ ধরে বন্যার পানি ঘরে উঠেছে। এখানে এ পর্যন্ত সরকারি কোন ত্রাণসামগ্রী দেয়া হয়নি। যারা দিন মুজুর বা অটো রিক্সা চালিয়ে সংসার চালায় তারা পনিবন্দী অবস্থায় বাড়িতে আছে। তাদের হাতে যে কয়টা টাকা ছিল তাও শেষ হয়ে গেছে। মানুষের কাছে ধার চেয়েও তারা পাচ্ছে না। এমন করুণ দশায় অনেকেই বাচ্চাকাচ্চা নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে। অথচ এখন পর্যন্ত তেমন কেউ খোঁজ খবর নেননি। চারদিন আগে গোয়ালন্দ পৌর আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ এসে দেখে গেছেন। তারা বন্যার্তদের সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন।
এ প্রসঙ্গে পৌরসভার স্থানীয় ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কুদ্দুস আলম রাজবাড়ীমেইলকে বলেন, তাঁর ওয়ার্ডে প্রায় ১০০ অসহায় পরিবার পানিবন্দী অবস্থায় আছে। তাদের জন্য আমার কাছে এখনো কোন সরকারি বরাদ্দ বা সাহায্য আসেনি। তিনি আরও বলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) স্যার এসে কয়েকজনকে সাহায্য দিয়েছে। অন্য একটা সংস্থা কয়েকজনকে ত্রাণের সিলিপ দিয়ে গেছে। কিন্তু কোন ত্রাণ এখন পর্যন্ত পায় নাই।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102