০৩:৫৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীমেইল-এ খবর দেখে বৃষ্টির মধ্যেই ত্রাণ নিয়ে ছুটে গেল উপজেলা প্রশাসন

বিশেষ প্রতিনিধিঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার চরাঞ্চলে বন্যা দুর্গত মানুষের কষ্ট নিয়ে সোমবার “সরেজমিনঃ গোয়ালন্দের চরাঞ্চলের বন্যাদুর্গত মানুষের দুর্ভোগ, পায়নি সহযোগিতা” শিরোনামে জেলার জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল রাজবাড়ীমেইল ডটকমএ একটি ভিডিওসহ প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। ওইদিন বিকেলে উপজেলা প্রশাসন বৃষ্টির মধ্যেই ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে ছুটে যায় দুর্গম অঞ্চলে। এসময় ঝড়ের কবলে পরেন পরিদর্শন দল। বন্যার্ত মানুষের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর উপহার শুকনা খাবারের প্যাকেট তুলে দেয়া হয়।

উপজেলার দৌলতদিয়া ও উজানচর ইউনিয়নের দুর্গম চরাঞ্চলের অধিকাংশ পরিবারের ঘর-বাড়ি অর্ধ ডুবন্ত অবস্থায় রয়েছে। কেউ কেউ বাড়ি-ঘর তালা মেরে অন্যত্র চলে গেছে। কেউবা জিনিসপত্র চুরি বা ডাকাতি হওয়ার ভয়ে কষ্ট স্বীকার করে বাড়িতে নৌকায় বসবাস করছেন। নৌকায় রান্না-বান্না, খাওয়া-দাওয়া ও শৌচাগার সহ নানা ধরনের সমস্যার সম্মুখিন হতে হচ্ছে তাদেরকে। এমন পরিস্থিতিতে ওই সব দুর্গম অঞ্চলের মানুষ সরকারিভাবে কোন সহযোগিতা পায়নি। এসব অঞ্চলের মানুষের কেউ খোঁজ খবরও নেয়নি। গত রোববার দিনভর সরেজমিন দৌলতদিয়া ইউনিয়নের হাসান মোল্লা পাড়া, নৈমদ্দিন খার পাড়া, তমিজ উদ্দিন মৃধা পাড়া, দুলাল বেপারী পাড়া, সিরাজ খার পাড়া, সৈদাল খার পাড়া, চরকর্নেশনা এবং উজানচর ইউনিয়নের চর করনেশনা, মহিদাপুর এলাকা ঘুরে বন্যা দুর্গত মানুষের দুর্ভোগের চিত্র তুলে ধরা হয়। এছাড়া সোমবার প্রথম আলো অন লাইনেও সচিত্র প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়। সংবাদটি প্রকাশের পরই উপজেলা প্রশাসন তাৎক্ষনিক সিদ্ধান্ত নেয় ওই দুর্গম অঞ্চল পরিদর্শনের।

সোমবার বিকেল পাঁচটার দিকে একটি ইঞ্জিন চালিত নৌকা নিয়ে ছুটে চলেন ওই দুর্গম এলাকায়। এসময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আমিনুল ইসলাম, সহকারী কমিশনার (ভুমি) মো. আব্দুল্লাহ আল-মামুন, সমাজসেবা কর্মকর্তা চন্দন কুমার মিত্র, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী মাসুদ রানা, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. সাদেকুর রহমান, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও মোস্তফা মেটাল ইন্ডাষ্ট্রিজ লিমিটেড এর পরিচালক মো. সেলিম মুন্সী, দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ৭নম্বর ওয়ার্ড ইউপি সদস্য আব্দুল গফুর খান সহ স্থানীয় লোকজন উপস্থিত ছিলেন। বন্যা দুর্গত এলাকা পরিদর্শনকালে সবাই প্রবল ঝড়ের কবলে পড়ে। বৃষ্টি-ঝড় মাথায় নিয়ে বন্যার্ত এলাকা ঘুরে ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা তৈরী করেন। তাৎক্ষনিকভাবে তাদের হাতে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে পাঠানো শুকনা খাবারের প্যাকেট তুলে দেওয়া হয়। খাবারের মধ্যে চাল, ডাল, তেল, চিনি, চিড়া, মোমবাতি, নুডুলস সহ বেশ কয়েক প্রকার ছিল। এসময় সবাই ঝড়-বৃষ্টিতে ভিজে যবুথবু অবস্থা। পরে রাত সাড়ে আটটার দিকে পরিদর্শন দল ওই অঞ্চল থেকে ফিরে আসে।

বন্যা দুর্গত এলাকা ঘুরে এসে ইউএনও আমিনুল ইসলাম বলেন, ওই দুর্গম অঞ্চলের মানুষের এত সমস্যা জানতে পারিনি। ইতিমধ্যে দৌলতদিয়া, উজানচর, দেবগ্রাম ও ছোটভাকলাসহ উপজেলার চারটি ইউনিয়নে পর্যাপ্ত পরিমাণ ত্রাণ সহযোগিতা দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার উপজেলার চারটি ইউনিয়নে ১৮ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। প্রয়োজনে আরো দেয়া হবে। কিছু এলাকায় খাদ্য সামগ্রী না পৌছানো দুঃখ জনক। প্রতিবেদন দেখার পর তাৎক্ষনিক সিদ্ধান্ত নিয়ে সরেজমিন এলাকা পরিদর্শন করি। উপস্থিতভাবে কিছু পরিবারকে শুকনা খাবার দেওয়া হয়েছে। অবশিষ্ট বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের একটি তালিকা তৈরী করে মঙ্গলবারের মধ্যে স্থানীয় ইউপি সদস্য গফুর খানকে বলা হয়েছে। তাদেরকেও ত্রাণ সামগ্রী দেওয়া হবে। সরকারের যথেষ্ট পরিমাণ ত্রাণ সাহায্য রয়েছে।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

রাজবাড়ীমেইল-এ খবর দেখে বৃষ্টির মধ্যেই ত্রাণ নিয়ে ছুটে গেল উপজেলা প্রশাসন

পোস্ট হয়েছেঃ ০৫:৩৪:২২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ জুলাই ২০২০

বিশেষ প্রতিনিধিঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার চরাঞ্চলে বন্যা দুর্গত মানুষের কষ্ট নিয়ে সোমবার “সরেজমিনঃ গোয়ালন্দের চরাঞ্চলের বন্যাদুর্গত মানুষের দুর্ভোগ, পায়নি সহযোগিতা” শিরোনামে জেলার জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল রাজবাড়ীমেইল ডটকমএ একটি ভিডিওসহ প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। ওইদিন বিকেলে উপজেলা প্রশাসন বৃষ্টির মধ্যেই ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে ছুটে যায় দুর্গম অঞ্চলে। এসময় ঝড়ের কবলে পরেন পরিদর্শন দল। বন্যার্ত মানুষের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর উপহার শুকনা খাবারের প্যাকেট তুলে দেয়া হয়।

উপজেলার দৌলতদিয়া ও উজানচর ইউনিয়নের দুর্গম চরাঞ্চলের অধিকাংশ পরিবারের ঘর-বাড়ি অর্ধ ডুবন্ত অবস্থায় রয়েছে। কেউ কেউ বাড়ি-ঘর তালা মেরে অন্যত্র চলে গেছে। কেউবা জিনিসপত্র চুরি বা ডাকাতি হওয়ার ভয়ে কষ্ট স্বীকার করে বাড়িতে নৌকায় বসবাস করছেন। নৌকায় রান্না-বান্না, খাওয়া-দাওয়া ও শৌচাগার সহ নানা ধরনের সমস্যার সম্মুখিন হতে হচ্ছে তাদেরকে। এমন পরিস্থিতিতে ওই সব দুর্গম অঞ্চলের মানুষ সরকারিভাবে কোন সহযোগিতা পায়নি। এসব অঞ্চলের মানুষের কেউ খোঁজ খবরও নেয়নি। গত রোববার দিনভর সরেজমিন দৌলতদিয়া ইউনিয়নের হাসান মোল্লা পাড়া, নৈমদ্দিন খার পাড়া, তমিজ উদ্দিন মৃধা পাড়া, দুলাল বেপারী পাড়া, সিরাজ খার পাড়া, সৈদাল খার পাড়া, চরকর্নেশনা এবং উজানচর ইউনিয়নের চর করনেশনা, মহিদাপুর এলাকা ঘুরে বন্যা দুর্গত মানুষের দুর্ভোগের চিত্র তুলে ধরা হয়। এছাড়া সোমবার প্রথম আলো অন লাইনেও সচিত্র প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়। সংবাদটি প্রকাশের পরই উপজেলা প্রশাসন তাৎক্ষনিক সিদ্ধান্ত নেয় ওই দুর্গম অঞ্চল পরিদর্শনের।

সোমবার বিকেল পাঁচটার দিকে একটি ইঞ্জিন চালিত নৌকা নিয়ে ছুটে চলেন ওই দুর্গম এলাকায়। এসময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আমিনুল ইসলাম, সহকারী কমিশনার (ভুমি) মো. আব্দুল্লাহ আল-মামুন, সমাজসেবা কর্মকর্তা চন্দন কুমার মিত্র, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী মাসুদ রানা, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. সাদেকুর রহমান, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও মোস্তফা মেটাল ইন্ডাষ্ট্রিজ লিমিটেড এর পরিচালক মো. সেলিম মুন্সী, দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ৭নম্বর ওয়ার্ড ইউপি সদস্য আব্দুল গফুর খান সহ স্থানীয় লোকজন উপস্থিত ছিলেন। বন্যা দুর্গত এলাকা পরিদর্শনকালে সবাই প্রবল ঝড়ের কবলে পড়ে। বৃষ্টি-ঝড় মাথায় নিয়ে বন্যার্ত এলাকা ঘুরে ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা তৈরী করেন। তাৎক্ষনিকভাবে তাদের হাতে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে পাঠানো শুকনা খাবারের প্যাকেট তুলে দেওয়া হয়। খাবারের মধ্যে চাল, ডাল, তেল, চিনি, চিড়া, মোমবাতি, নুডুলস সহ বেশ কয়েক প্রকার ছিল। এসময় সবাই ঝড়-বৃষ্টিতে ভিজে যবুথবু অবস্থা। পরে রাত সাড়ে আটটার দিকে পরিদর্শন দল ওই অঞ্চল থেকে ফিরে আসে।

বন্যা দুর্গত এলাকা ঘুরে এসে ইউএনও আমিনুল ইসলাম বলেন, ওই দুর্গম অঞ্চলের মানুষের এত সমস্যা জানতে পারিনি। ইতিমধ্যে দৌলতদিয়া, উজানচর, দেবগ্রাম ও ছোটভাকলাসহ উপজেলার চারটি ইউনিয়নে পর্যাপ্ত পরিমাণ ত্রাণ সহযোগিতা দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার উপজেলার চারটি ইউনিয়নে ১৮ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। প্রয়োজনে আরো দেয়া হবে। কিছু এলাকায় খাদ্য সামগ্রী না পৌছানো দুঃখ জনক। প্রতিবেদন দেখার পর তাৎক্ষনিক সিদ্ধান্ত নিয়ে সরেজমিন এলাকা পরিদর্শন করি। উপস্থিতভাবে কিছু পরিবারকে শুকনা খাবার দেওয়া হয়েছে। অবশিষ্ট বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের একটি তালিকা তৈরী করে মঙ্গলবারের মধ্যে স্থানীয় ইউপি সদস্য গফুর খানকে বলা হয়েছে। তাদেরকেও ত্রাণ সামগ্রী দেওয়া হবে। সরকারের যথেষ্ট পরিমাণ ত্রাণ সাহায্য রয়েছে।