June 21, 2021, 3:27 pm
Title :
করোনা নিয়ে উদ্বেগঃ রাজবাড়ীর তিন পৌরসভায় এক সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ রাজবাড়ীতে দ্বিতীয় পর্যায়ে ঘর পেল ভূমিহীন ৪৩০টি পরিবার পাংশায় আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের মাঝে জমিসহ গৃহ প্রদান কার্যক্রম অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে নতুন ঘরে নতুন আশা নিয়ে নতুন দিনের স্বপ্নে ৩০ পরিবার এবার যমুনা নদীতে জেলেদের জালে ধরা পড়লো ৪৭ কেজি ওজনের বাগাড় রাজবাড়ীতে ১০দিন ব্যাপি সাঁতার প্রশিক্ষণ উদ্বোধন গোয়ালন্দে সংবাদপত্রের এজেন্টের দোকানে জানালার গ্রিল কেটে চার লাখ টাকা চুরি গোয়ালন্দে অস্বচ্ছল নারীদের মাঝে বিনামূল্যে সেলাই মেশিন বিতরণ সামান্য বৃষ্টিতে রাজবাড়ীর বড় বাজার নোংরা ও দূষিত পানিতে সয়লাব, দুর্ভোগ গোয়ালন্দে আগুনে ঘর পুড়ে সর্বশান্ত ৫ পরিবার

করোনা যুদ্ধে গোয়ালন্দ স্বাস্থ্য বিভাগের অকুতোভয় সৈনিকরা

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, জুলাই ২০, ২০২০
  • 8 Time View
শেয়ার করুনঃ
জীবন চক্রবর্তীঃ সারাবিশ্বে কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাসের আক্রমণে মানুষ আজ জীবন-মরনের সন্ধিক্ষণে। পৃথিবীতে এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে কয়েক লাখ মানুষের। আক্রান্তও এখন কোটি ছাড়িয়েছে। ২ জুন সারা দেশে লকডাউন খুলে দেওয়ায় ঘরবন্দী মানুষ যে যার কাজে যোগদান করেছে। সামনের ঈদ-উল-আযহাকে কেন্দ্র করে আক্রমণের ঝুঁকি আরও বাড়বে বলে ধারণা করছেন বিশেষজ্ঞদল।
উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, গোয়ালন্দ উপজেলায় সম্মুখভাগের যোদ্ধা হিসেবে চিকিৎসক, নার্স, মেডিকেল টেকনোলজিস্ট সহ স্বাস্থ্য বিভাগের অন্যান্য কর্মী এ যুদ্ধে জীবন বাজি রেখে কাজ করে যাচ্ছেন। উপজেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে প্রায় পাঁচ মাস এই মহামারীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে গিয়ে তারা অনেকেই পরিশ্রান্ত, ক্লান্ত। গত ২ এপ্রিল ১০ সদস্য বিশিষ্ট “উপজেলা করোনা ম্যানেজমেন্ট টিম” গঠন করা হয়। পরে “উপজেলা র্যাপিট রেসপন্স টিম” গঠন করা হয়। এই কঠিন যুদ্ধে যেমন আছে আক্রান্ত হবার ঝুঁকি, ঠিক তেমন আছে মৃত্যুভয়ও।”উপজেলা করোনা ম্যানেজমেন্ট টিম” বিগত দিনে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ঠান্ডা জ্বরে আক্রান্ত হওয়া রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিতে গিয়ে একজন নারী চিকিৎসকসহ স্বাস্থ্য বিভাগের আরও চার কর্মী করোনায় আক্রান্ত হন।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ বলেন, আমরা মৃত্যুকে সাথী করে সব সময় কাজ করে যাচ্ছি। করোনা উপসর্গ নিয়ে আসা রোগীদের আমরা নিয়মিত নমুন সংগ্রহ করছি। প্রথম দিকে যারা করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়েছিলেন তাদের আমরা রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে পাঠিয়ে দেই। পরে কালুখালি সদর হাসপাতালেও কিছু রুগী পাঠানো হয়। পরবর্তীতে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে করোনা পজিটিভ রোগীদের আমরা করোনা ইউনিটে রেখে চিকিৎসা সেবা দিয়েছি।
আসিফ মাহমুদ বলেন, আমরা এ পর্যন্ত ৫৭০ জনের নমুনা রাজবাড়ী সিভিল সার্জন কার্যালয়ের পাঠিয়েছি। সেখান থেকে ঢাকায় পাঠানো হয়। তারমধ্যে ৫৫০ জনের রিপোর্ট এসেছে।৬৫ জন করেনা পজেটিভ হিসেবে শনাক্ত’ হলেও বেশিরভাগ রোগী সুস্থ হয়েছে। বাকি সবাই হোম আইসলিশনে আছেন। যারা করোনার উপসর্গ নিয়ে আমাদের কাছে আসেন তাদের নমুনা সংগ্রহ করে চিকিৎসাপত্র দিয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে হোম আইসলিশনে থাকার পরামর্শ দিচ্ছি। কিন্তু পরিতাপের বিষয়, নমুনার ফলাফল না আসা পর্যন্ত তারা হোম আইসলিশনে না থেকে যত্রতত্র ঘুরে বেড়ায়। পরবর্তিতে তাদের রেজাল্ট পজেটিভ এলে তখন তারা লকডাউনে চলে যায়। ফলে করোনা ছড়ানোর প্রাদুর্ভাব বেড়ে যায়। প্রশান্তির বিষয় এটাই যে, আমাদের এখানে চিকিৎসা সেবা নিয়ে এ পর্যন্ত কেউ মারা যায়নি। করোনা উপসর্গ নিয়ে যে তিনজন মারা গিয়েছেন তারা আমাদের নিকট চিকিৎসাধীন ছিলেন না।
তিনি বলেন, “উপজেলা র্যাপিড রেসপন্স টিমে” মাঠ পর্যায়ে যেসকল সেনা সদস্য, পুলিশ, আনসার বাহিনী ছিলেন এই যুদ্ধে মানুষকে সচেতন করতে গিয়ে পুলিশ সদস্যসহ অনেকেই করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আব্দুল্লাহ আল মামুনও আক্রান্ত হয়েছিলেন। তবে তিনি এখন পুরোপুরি সুস্থ। আমরা অনেকেই আপ্রাণ চেষ্টা করছি গোয়োলন্দ উপজেলা তথা সকল মানুষকে ভালো রাখার জন্য। আমাদের পরিশ্রম তখনই সার্থক হবে, যখন জনগণ সঠিক ভাবে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলে নিজেরা সতর্ক থাকবেন এবং অপরকেও সতর্ক করবেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102