October 23, 2021, 10:46 am
Title :
রাজবাড়ীতে চলন্ত ট্রেনে দুর্বৃত্তদের ছোড়া ঢিলে যুবক আহত দৌলতদিয়া যৌনপল্লির বাসিন্দাদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ গোয়ালন্দে চুরির ১০ দিন মটরসাইকেল উদ্ধার, তিন যুবক গ্রেপ্তার রাজবাড়ীতে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির মানববন্ধন ও সমাবেশ রাজবাড়ীতে হিন্দু মহাজোট ও ছাত্র মহাজোটের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ গোয়ালন্দে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের নিয়ে একেকে’র প্রশিক্ষন কর্মশালা দৌলতদিয়ায় ডিবির অভিযানে ২৫০ পিস ইয়াবা সহ গ্রেপ্তার ২ রাজবাড়ীতে নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ইলিশ শিকার করায় ১১ জেলের জেল গোয়ালন্দ উপজেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটি গঠন রাজবাড়ীতে ছাদ থেকে পড়ে রাজমিন্ত্রী নিহত

সরেজমিনঃ “ঘরে খাওন নাই, চুলার ভিতর পানি, গরু-ছাগল নিইয়া কষ্টে আছি”

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, জুলাই ১৮, ২০২০
  • 57 Time View
শেয়ার করুনঃ

জীবন চক্রবর্তীঃ “গাঙ্গে মাছ মাইরা খাই, পানি বাড়াতে মাছও ওঠে না। ৩-৪ দিন ধইরা পানি বাইরা ঘরে উঠে গেছে। কেউ আমাগো খোঁজ নিচ্ছে না। গরু-ছাগল নিইয়া খুব কষ্টে আছি। পানি শুধু বাড়তাছেই। এভাবে বাড়তে থাকলে যামু কই”। এভাবে কথাগুলো বলছিলেন রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার বন্যাদুর্গত দেবগ্রাম ইউনিয়নের কাঁচরন্দ গ্রামের আজিজুল মোল্লা (৬০)।

সরেজমিন উপজেলার দেবগ্রাম, ছোটভাকলা ও দৌলতদিয়া ইউনিয়নের বন্যার্ত এলাকা ঘুরে দেখা যায়, চারদিকে শুধু পানি আর পানি। তিন দিন আগেও বন্যার এমন পানি দেখা যায়নি। গত মঙ্গলবার থেকে পদ্মা নদীতে হু হু করে পানি বাড়ছে। দুই দিনের পানিতে উপজেলার চারটি ইউনিয়নের অধিকাংশ নিচু এলাকা তলিয়ে গেছে। ছোটভাকলা ইউপির চর বরাট, পিয়ার আলী মোড়, বড় জলো এলাকার বেড়িবাধের বাইরে অবস্থিত অধকাংশ বাড়ি-ঘরে পানি উঠেছে। কেউ নৌকায়, কেউ বা ঘরের ভিতর চৌকির উপর কোন রকম ছাগল নিয়ে বসে আছে। আবার অনেকে জিনিসপত্র নিয়ে নৌকায় অন্যত্র চলে যাচ্ছেন।

দেবগ্রামের কাওয়ালজানি থেকে কয়েক নদী ভাঙনের শিকার হয়ে জেলে রুহুল শেখ, জমিলা বেগম, আজিজ মন্ডল সহ শতাধিক পরিবার বসতি গড়েছেন ছোটভাকলা ইউপির চর বরাট এলাকায়। তারা এখন পর্যন্ত দেবগ্রাম ইউনিয়নের ভোটার রয়েছেন। অথচ বসতি গড়েছেন পাশের ছোটভাকলা ইউনিয়নে। এ কারণে দেবগ্রাম থেকে কোন সহযোগিতা পাচ্ছেন না। পাশাপাশি ছোটভাকলা থেকেও সাহায্য সহযোগিতা পাচ্ছেনা।

জেলে আজিজ মন্ডল ও ফরিদা বেগম দম্পতির ঘরের ভিতর পানি। রান্না ঘরে পানি ওঠায় রান্নার ব্যবস্থাও বন্ধ। উপায় না পেয়ে মাছ ধরার নৌকার ওপর রান্নার চেষ্টা করছেন। গত দুই দিন ধরে এভাবেই তারা চলছেন। এমনকি রাতের বেলায়ও তারা নৌকায় থাকছেন। আজিজ মন্ডল বলেন, নদীতে জাল পেতে মাছ ধরে খাই। আজ কয়েকদিন ধইরা পানি বাড়ায় ঘর-দরজা ডবে যাইতেছে, তাই গরু-ছাগল ফেলাইয়া দিইয়া কোথায় যামু?

স্ত্রী ফরিদা বেগম বলেন, রাইতে সাপের ভয়, ইনকাম নাই। নৌকায় টিন কাইটা রান্না কইরা কোনরকম আলুভর্তা দিইয়া পেটে জামিন দিয়া আছি। পানি যেভাবে বাড়তাছে এমনডা হইলে আমাগো মরতে হএিব। কোন মেম্বার-চেয়ারম্যান আইসা ফুচিও দিল না। আমরা মরচি না বাইচা আছি। পোলাডা কোন সময় পানিতে পইরা যায়, সে ভয়ে থাহি।

ছোটভাকলা ইউপি চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন বলেন, ৯টি ওয়ার্ডের মধ্যে ১-৫ নম্বর পর্যন্ত প্রতিটি ওয়ার্ড বন্যাকবলিত। বাকি ওয়ার্ডে বন্যাকবলিত না হলেও বৃষ্টির পানি আটকে জলাবদ্ধতার শিকার হচ্ছে। একদিকে করোনার কারণে মানুষ দিশেহারা হয়ে পড়েছে। সেই সাথে দেখা দিয়েছে বন্যা। উভয় সংকটে মানুষ মহা বিপাকে পড়েছে। দুইদিন আগে মঙ্গলবার মাত্র ১৫০জন বন্যার্ত মানুষের মাঝে মাত্র ১০ কেজি করে তাও শুধুমাত্র ১নম্বর ওয়ার্ডে দিতে পেরেছি। বাকি কাউকে কিছুই দিতে পারছিনা।

পাশের দেবগ্রাম ইউনিয়নের দেবগ্রাম, অন্তারমোড়, কাওয়ালজানি, কাঁচরন্দ, বেতকা ও রাখালগাছি এলাকার কয়েক হাজার মানুষ পানিবন্দি অবস্থায় রয়েছে। অধিকাংশ রাস্তা পথ-ঘাট তলিয়ে গেছে। নদী তীরবর্তী এলাকায় রয়েছে চরম ভাঙন আতঙ্ক। অনেক পরিবার ভাঙন আতঙ্কে অন্যত্র নিরাপদ গন্তব্যে চলে যাচ্ছে। চারদিকের পানি দেখলে মনে কোন দ্বিপাঞ্চলে এসব মানুষ বসবাস করছে।

কাওয়ালজানি গ্রামের রোজিনা বেগমের বাড়ি-ঘরে পানি। টিউবওয়েল ডুবে যাওয়ার উপক্রম হওয়ায় কোমরসমান পানি ভেঙে টিউবওয়েল থেকে কোনরকম খাবার পানি আনছে। বিশুদ্ধ পানি আনতে গেলে অনেক দূর যেতে হয়। রোজিনা বেগম বলেন, একদিকে চলছে করোনা। স্বামী রুহুল শেখ ক্ষুদ্র ব্যবসা করতো, করোনার কারণে তাও বন্ধ। ৫-৬দিন ধরে চলাফেরা ছাওয়ালপান নিয়ে কষ্ট হয়েছে। পায়খানা-প্রসাব সমস্যা, রান্নার কষ্ট, খড়ি নাই। চুলার মধ্যে পানি। অহন পর্যন্ত কিছুই পায়নি। কেউ আমাগো খোঁজও নেয়নি।

দেবগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান হাফিজুল ইসলাম বলেন, ইউনিয়নের ১-৫নম্বর ওয়ার্ডের প্রায় দুই হাজার পরিবার পানিবন্দি আছে। বেশকিছু পরিবারের বসত-ঘর পানিতে তলিয়ে গেছে। ৭নম্বর ওয়ার্ডের কয়েকশ পরিবার পানিবন্দি অবস্থায় আছে। এলাকার আমন, আউশ ও পাট তলিয়ে গেছে। এখন পর্যন্ত এসব পরিবার কিছুই করা হয়নি। উপজেলা প্রশাসনের কাছে পরিস্থিতি জানিয়েছি।

দৌলতদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান বলেন, ১, ৩, ৮ ও ৯নম্বর ওয়ার্ডের অধিকাংশ তলিয়ে গেছে। পাঁচ শতাধিক পরিবার পানিবন্দি অবস্থায় আছে। বাহির চর দৌলতদিয়ার ছিদ্দিক কাজী পাড়া, মজিদ শেখ পাড়া, যদুমাতুব্বর পাড়া ও নতুন পাড়া এলাকায় ভাঙন রয়েছে। ভরা নদীর কারণে ভাঙনের মাত্রাটা কম দেখা যাচ্ছে। বন্যার্ত ও ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের সাহায্যের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করেছি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আমিনুল ইসলাম বন্যাদুর্গত এলাকা ঘুরে এসে বলেন, ১৫০০পরিবার পানিবন্দি আছে। দৌলতদিয়া ও দেবগ্রাম ইউনিয়নের বেশিরভাগ রয়েছে। অনেক রাস্তা-ঘাট তলিয়ে গেছে। ৫০ হেক্টরের বেশি ফসল তলিয়ে গেছে। গত দুইদিনে ক্ষয়ক্ষতির পরিমান আরো বাড়বে। বন্যার্ত এক হাজার ৪৫০ পরিবারের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া শুকনা খাবার ও ১০কেজি করে চাল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে বন্যার্ত মানুষের মাঝে আরো দেওয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102