০১:৪৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

গোয়ালন্দে চালককে হত্যার পর রিক্সা ছিনতাই, ধারালো চাপাতি উদ্ধার

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ পৌরসভার শেষ সীমানা মরা পদ্মা নদীর ডোবা থেকে শুক্রবার দুপুরে সুন্নাত মোল্লা (৫৫) নামের এক রিক্সা চালকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সে উপজেলার দেবগ্রাম ইউনিয়নের তেনাপচা গ্রামের মৃত আকবর আলী মোল্লার ছেলে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি ধারালো চাপাতি উদ্ধার করে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, শুক্রবার দুপুর একটার দিকে স্থানীয় লোকজন মহাসড়কের পূর্ব পাশে তেনাপচা ডাইভার্সন রোডের বিপরিতে এ.এন.এ ইটভাটার কাছে মরা পদ্মার ডোবার সড়কের কিনারে অর্ধ ডুবন্ত অবস্থায় একটি লাশ দেখতে পেয়ে গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশকে খবর দেয়। সংবাদ পেয়ে থানা পুলিশ বেলা দুইটার দিকে সুন্নাত মোল্লার লাশ উদ্ধার করে। এসময় তার গলায় লাল রঙের গামছা দিয়ে শ্বাসরোধ করা ছিল। মাথার বাম পাশে ধারালো চাপাতির কোপের চিহৃ ছিল। পাশেই পড়ে ছিল একটি ধারালো চাপাতি।

এর আগে বড় ভাই আনোয়ার মোল্লা ঘটনাস্থলে পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় একটি লাশ পড়ে থাকতে দেখেও চলে যান। পুলিশের ঝামেলা এড়াতে তিনি ভয়ে এড়িয়ে বাড়ি চলে যান। বাড়ি গিয়ে জানতে পারেন তার ছোট ভাই সুন্নাত মোল্লা বৃহস্পতিবার রাতে বাড়ি থেকে রিক্সা নিয়ে বের হওয়ার পর আর ফিরে আসেনি। পরে দ্রুত তিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ দেখে তার ভাই সুন্নাত মোল্লার লাশ হিসেবে শনাক্ত করেন। এসময় ভাইয়ের লাশ জড়িয়ে ধরে কান্নায় ভেঙে পড়েন।

আনোয়ার মোল্লা বলেন, দুই দিন আগে তার ভাই নতুন একটি রিক্সা কিনেন। বাড়িতে দুই ছেলে ও তিন মেয়ে থাকলেও ছেলে সম্প্রতি পৃথক হওয়ায় সংসার চালাতে তিনি হিমশিম খান। পরে উপায় না পেয়ে রিক্সা কিনে চালানো শুরু করেন। বৃহস্পতিবার রাত আটটার পর বাড়ি থেকে রিক্সা নিয়ে বাইরে বের হন। এরপর আর ফিরে আসেনি। সে খুবই সহজ-শরল প্রকৃতির ছিলেন। তার সাথে কারো কোন শক্রতা নেই। কি কারণে তার ভাইকে হত্যা করা হয়েছে তা তিনি বুঝতে পারছেন না। তার নতুন রিক্সাটির সন্ধান পাচ্ছেন না বলে জানান।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত দেবগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান হাফিজুল ইসলাম বলেন, নিহত সুন্নাত মোল্লা খুবই সহজ-সরল প্রকৃতির মানুষ। সাটামাটা জীবন যাপন করেন। কি কারণে তাকে হত্যা করা হয়েছে কারণ বুঝতে পারছেন না। তিনি ঘটনার কারণ উদঘাটন করা সহ অপরাধীদের শাস্তি দাবী করেন।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি আশিকুর রহমান পিপিএম বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে দুর্বৃত্তরা প্রথমে তার গলায় গামছা দিয়ে শ্বাসরোধ করে। পরে মৃত্যু নিশ্চিত করতে মাথায় ধারালো চাপাতি দিয়ে কোপ দেয়া হয়। রিক্সাটিও দুর্বৃত্তরা নিয়ে যেতে পারে। লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল শেষে ময়না তদন্তের জন্য রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হচ্ছে। এছাড়া ঘটনার কারণ উদঘাটনে পুলিশ কাজ শুরু করেছে। এ ঘটনায় পরিবার থেকে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান ওসি।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

গোয়ালন্দে চালককে হত্যার পর রিক্সা ছিনতাই, ধারালো চাপাতি উদ্ধার

পোস্ট হয়েছেঃ ০৬:৪০:২৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৭ জুলাই ২০২০

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ পৌরসভার শেষ সীমানা মরা পদ্মা নদীর ডোবা থেকে শুক্রবার দুপুরে সুন্নাত মোল্লা (৫৫) নামের এক রিক্সা চালকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সে উপজেলার দেবগ্রাম ইউনিয়নের তেনাপচা গ্রামের মৃত আকবর আলী মোল্লার ছেলে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি ধারালো চাপাতি উদ্ধার করে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, শুক্রবার দুপুর একটার দিকে স্থানীয় লোকজন মহাসড়কের পূর্ব পাশে তেনাপচা ডাইভার্সন রোডের বিপরিতে এ.এন.এ ইটভাটার কাছে মরা পদ্মার ডোবার সড়কের কিনারে অর্ধ ডুবন্ত অবস্থায় একটি লাশ দেখতে পেয়ে গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশকে খবর দেয়। সংবাদ পেয়ে থানা পুলিশ বেলা দুইটার দিকে সুন্নাত মোল্লার লাশ উদ্ধার করে। এসময় তার গলায় লাল রঙের গামছা দিয়ে শ্বাসরোধ করা ছিল। মাথার বাম পাশে ধারালো চাপাতির কোপের চিহৃ ছিল। পাশেই পড়ে ছিল একটি ধারালো চাপাতি।

এর আগে বড় ভাই আনোয়ার মোল্লা ঘটনাস্থলে পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় একটি লাশ পড়ে থাকতে দেখেও চলে যান। পুলিশের ঝামেলা এড়াতে তিনি ভয়ে এড়িয়ে বাড়ি চলে যান। বাড়ি গিয়ে জানতে পারেন তার ছোট ভাই সুন্নাত মোল্লা বৃহস্পতিবার রাতে বাড়ি থেকে রিক্সা নিয়ে বের হওয়ার পর আর ফিরে আসেনি। পরে দ্রুত তিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ দেখে তার ভাই সুন্নাত মোল্লার লাশ হিসেবে শনাক্ত করেন। এসময় ভাইয়ের লাশ জড়িয়ে ধরে কান্নায় ভেঙে পড়েন।

আনোয়ার মোল্লা বলেন, দুই দিন আগে তার ভাই নতুন একটি রিক্সা কিনেন। বাড়িতে দুই ছেলে ও তিন মেয়ে থাকলেও ছেলে সম্প্রতি পৃথক হওয়ায় সংসার চালাতে তিনি হিমশিম খান। পরে উপায় না পেয়ে রিক্সা কিনে চালানো শুরু করেন। বৃহস্পতিবার রাত আটটার পর বাড়ি থেকে রিক্সা নিয়ে বাইরে বের হন। এরপর আর ফিরে আসেনি। সে খুবই সহজ-শরল প্রকৃতির ছিলেন। তার সাথে কারো কোন শক্রতা নেই। কি কারণে তার ভাইকে হত্যা করা হয়েছে তা তিনি বুঝতে পারছেন না। তার নতুন রিক্সাটির সন্ধান পাচ্ছেন না বলে জানান।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত দেবগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান হাফিজুল ইসলাম বলেন, নিহত সুন্নাত মোল্লা খুবই সহজ-সরল প্রকৃতির মানুষ। সাটামাটা জীবন যাপন করেন। কি কারণে তাকে হত্যা করা হয়েছে কারণ বুঝতে পারছেন না। তিনি ঘটনার কারণ উদঘাটন করা সহ অপরাধীদের শাস্তি দাবী করেন।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি আশিকুর রহমান পিপিএম বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে দুর্বৃত্তরা প্রথমে তার গলায় গামছা দিয়ে শ্বাসরোধ করে। পরে মৃত্যু নিশ্চিত করতে মাথায় ধারালো চাপাতি দিয়ে কোপ দেয়া হয়। রিক্সাটিও দুর্বৃত্তরা নিয়ে যেতে পারে। লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল শেষে ময়না তদন্তের জন্য রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হচ্ছে। এছাড়া ঘটনার কারণ উদঘাটনে পুলিশ কাজ শুরু করেছে। এ ঘটনায় পরিবার থেকে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান ওসি।