September 30, 2022, 6:47 am
শিরোনামঃ
দৌলতদিয়া ফেরিঘাট এলাকায় ভাঙন, বসতভিটা বিলীন, তিন ফেরিঘাট বন্ধ গোয়ালন্দে পুলিশের হাতে ইয়াবাবড়ি ও ফেনসিডিলসহ গ্রেপ্তার ৫ অস্ত্র-গুলি ও সহযোগীসহ পাংশার পৌরসভার কাউন্সিলর গ্রেপ্তার গোয়ালন্দে আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস পালিত গোয়ালন্দে মা ও শিশু ওয়ার্ড এবং পোষ্ট অপারেটিভ ওয়ার্ড উদ্বোধন মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে ডিজিটাল সার্টিফিকেট ও স্মার্ট আইডি কার্ড হস্তান্তর গোয়ালন্দে মাদক বিরোধী প্রীতি ফুটবল খেলা অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে সামাজিক-সম্প্রীতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত রাজবাড়ী জেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীদের মাঝে প্রতিক বরাদ্দ সম্পন্ন দৌলতদিয়ায় পদ্মার ১৩ কেজির বোয়াল বিক্রি হলো ২৮ হাজারে

গোয়ালন্দের পদ্মা নদীর ক্যানাল থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে বিক্রি

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, জুলাই ১৪, ২০২০
  • 118 Time View
শেয়ার করুনঃ

আবুল হোসেনঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার ক্যানাল ঘাট মরা পদ্মা নদী থেকে অবৈধভাবে খনন করা বালু উত্তোলন করে বিক্রি করছেন এলাকার কয়েকজন প্রভাবশালী ব্যক্তি। দৌলতদিয়া বেপারী পাড়া গ্রামের কাদের বেপারী, দেবগ্রাম আতর আলী চেয়ারম্যান পাড়ার মিনু মেম্বার, ছোট ভাকলা ইউনিয়নের কাটাখালীর মফিজ উদ্দিন মফি, জাহিদ হোসেন, হিরা মিয়া অবৈধভাবে ড্রেজিং করে বালু উত্তোলন করে বিক্রি করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

নদী থেকে ড্রেজিং করে বালু উত্তোলনের কারনে নদীর দুই পাশে কয়েকটি গ্রামসহ ফসলী জমি নদীগর্ভে বিলিন হতে চলছে। এলাকাবাসী বলেন, বার বার নিষেধ করার পরও কোন কাজ হচ্ছে না। আমাদের চোখের পানি ফেলা ছাড়া আর কিছুই করার নেই। কারন আমরা তো গরীব মানুষ। পদ্মা নদীতে বাড়ী ঘর ভেঙ্গে যাবার পর এখানে এসে আবার বাড়ী ঘর করেছি। নদী থেকে ড্রেজিং করে বালু উত্তেলনের ফলে আবারো নদীগর্ভে ঘর-বাড়ীসহ ফসলী জমি নদীতে চলে যাবে। প্রতি বছর ড্রেজিং চলে আবার মাঝে মাঝে পুলিশ এসে বন্ধ করে দেয়। দুই-এক দিন পর থেকে পুনোরায় আবার চালানো হয়। স্থানীয় জন প্রতিনিধিদের নিকট ড্রেজিং বন্ধের আকুতি জানালেও কোন কাজ হয়নি। উপরোন্তু শুনতে হয়েছে নানা হুমকি ধামকি।

সরেজমিন দেখা যায় যে, দৌলতদিয়া মরা পদ্মা নদীর ক্যানেল ঘাট থেকে দেবগ্রামের অন্তার মোড় পর্য়ন্ত অবৈধভাবে ড্রেজিং করা হচ্ছে। তার ফলে আবাদি জমিসহ কয়েকটি গ্রাম রয়েছে ঝুঁকির মধ্যে। অবৈধ ড্রেজার বন্ধ করা না হলে গ্রাম সহ শত শত বিঘা ফসলী জমি মানচিত্র থেকে হারিয়ে যাবে।

আতর আলী চেয়ারম্যান বাজার এলাকার মোছা. মাজেদা বেগম নদীতে জমি,বাড়ি-ঘর বিলিন হয়ে এখন নিশ্ব:স। রাস্তার পাশে সরকারী জমিতে ঘর তুলে থাকেন। তার ঘরের সাথে ড্রেজিং করে মাটি কাটছে দেবগ্রাম ইউনিয়নের সংরক্ষিত মহিলা মেম্বারের স্মামী মিজানুর রহমান মিনু। তিনি মেম্বার না হয়েও স্ত্রীর কারনে নিজেকে মেম্বার হিসাবে পরিচয় দিয়ে বেড়ান। প্রভাব খাটিয়ে অবৈধভাবে মাটি উত্তোলন করে ব্যবসা করে যাচ্ছেন। কেও তাকে কিছু বললে হুমকি ধুমকি দিয়ে ভয়ভীতি দেখায়।

মাজেদা বেগম আরো বলেন, এভাবে আমার বাড়ীর পাশ থেকে ড্রেজার দিয়ে মাটি কেটে নিলে বাড়ি-ঘর নদীর মধ্যে চলে যাবে। আমরা গরিব মানুষ ভয়ে আমরা কিছু বলতে পারিনা।

দৌলতদিয়া ওমর আলী মোল্লার পাড়া তোফাজ্জেল হোসেন (৬০) বলেন, পদ্মা নদী শুখিয়ে এখানে চর জেগেছিলো। আমরা এখানে ধান চাষ করে খেতাম। কিন্তু ড্রেজার দিয়ে মাটি তুলে বিক্রি করার কারনে এখন আর ধান চাষ করা যায় না। নদী আবার গভীর হয়ে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। এভাবে মাটি কাটলে আমাদের বাড়ী ঘর নদীতে ভেঙ্গে যাবে। বার বার নিষেধ করা সত্ত্বেও কাদের বেপারী জোড় করে বালু উত্তোলন করে বিক্রি করছেন।

এছাড়া দেবগ্রাম তেনাপেচা নতুন গ্রামে মাটি কাটছেন পেশাদার বালু ব্যবসায়ী মফিজ উদ্দিন ও হিরা মিয়া। এদের কয়েকটি ড্রেজার মেশিন রয়েছে। প্রতিনিয়ত নদী থেকে বালু উত্তোলন করে বিক্রি করে। এই বালু উত্তোলন কারী চক্রটি সংঘবদ্ধ হয়ে দীর্ঘদিন অবৈধভাবে নদী থেকে বালু উত্তোলন করে যাচ্ছে।

মাটি ব্যবসায়ী আব্দুল কাদের ফকির বলেন, জমির মালিকদের নিকট থেকে হাজার হিসাবে মাটি ক্রয় করেছি। আমার কাছে মাটি কাটার ব্যাপারে কেও কোন অভিযোগ করে নাই।

এবিষয়ে গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আমিনুল ইসলাম বলেন, অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের কোন সুযোগ নাই। এদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিবো।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
DeveloperAsif
themesba-lates1749691102