November 30, 2022, 4:26 am
শিরোনামঃ
পদ্মা নদীর সেই আড়াআড়ি বাঁশের বেড়া অপসারণ রাজবাড়ীতে যুবদল নেতার হত্যা মামলায় দুইজনের মৃত্যুদন্ড ও পাঁচজনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড গোয়ালন্দে বিজয় দিবসের প্রস্তুতি সভাঃ স্বাধীনতা বিরোধী পরিবারের কেউ উপস্থিত থাকবেনা গোয়ালন্দের রাজিন শাহরিয়ার ভুবন বরিশাল বোর্ডে মেধা তালিকায় প্রথম প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে ফেসবুকে মানহানিকর কমেন্টস এর অভিযোগে তরুণ গ্রেপ্তার পদ্মার এক ঢাই ২৬ হাজার আর এক কাতল বিক্রি হলো ২১ হাজারে যশোরে প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় চুরি হওয়া মোবাইলফোন গোয়ালন্দে উদ্ধার, গ্রেপ্তার ২ গোয়ালন্দে বেরজালে উঠে আসলো ৯ কেজির চিতল, ১২ হাজারে বিক্রি রাজবাড়ীতে কাজী হেদায়েত হোসেন স্মৃতি ফুটবল টুর্ণামেন্ট ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দ উপজেলা কৃষকলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত, সভাপতি-হাবিব, সম্পাদক-শামীম

গোয়ালন্দে করোনা পরিস্থিতিতেও থেমে নেই এনজিওদের কিস্তি আদায়

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, জুলাই ১২, ২০২০
  • 108 Time View
শেয়ার করুনঃ

জীবন চক্রবর্তীঃ সারা দেশে করোনা পরিস্থিতি দিন দিন বেড়েই চলছে। মানুষ এই অজানা ভাইরাসের ভয়ে দিশেহারা। দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মাঝে গভীর সংকটের দানা বেঁধে উঠেছে। একদিকে করোনা পরিস্থিতিতে দরিদ্র অসহায় খেটে খাওয়া মানুষের আয় রোজগার অর্ধেকে নেমেছে। অন্যদিকে এনজিও কর্তাদের কিস্তির বোঝা যা একশ্রেণির মানুষের মরার উপর খাড়ার ঘা হয়ে দাড়িয়েছে।

করোনা সংক্রমণের জেরে সরকার ঘোষিত দেশের বিভিন্ন জায়গায় লকডাউন ঘোষণায় কর্মহীন হয়ে পড়েছেন শ্রমজীবী, মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত মানুষ। এসব মানুষ ক্ষুদ্রঋণের জালে আটকে পড়ে আছে। জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে শ্রমজীবী মানুষের কাজ নেই, ঘরে খাবার নেই, তার উপর সাপ্তাহিক কিস্তির চাপ। মানুষের এমন পরিস্তিতিতে গোয়ালন্দের গ্রামীন ব্যাংক, ব্রাক, আশা ও অন্যান্য এনজিও প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের কিস্তি আদায় অব্যাহত রেখেছে। সাধারণ মানুষের দুঃখ দুর্দাশার মধ্যে কিস্তি আদায় অনেকটা অমানবিকতা। সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি জলাঞ্জলী দিয়ে বাড়ি বাড়ি গিয়েও দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে কিস্তি পরিশোধে প্রতিনিয়ত তাগাদা দিচ্ছেন এনজিও কর্তারা। মরলেও তাদের কিস্তির চাপ থেকে মানুষের মুক্তি নেই। যন্ত্রণার উপর আরও অসহনীয় যন্ত্রণার কবলে পড়া আতংকিত ঋণগ্রস্থ মানুষের ঘুম হারাম হয়ে পড়েছে।

তিন মাসের অধিক সময় ধরে কৃষক, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী, শ্রমিক, দিনমজুর তথা খেয়ে না খেয়ে থাকা মানুষগুলো কর্মহীন। পেটে দুবেলা দুমুঠো খাবার জুটাতে তারা ছুটছে দিগ্বিদিক। তারপরও সংসারের অন্যান্য ঘাটতি পূরণ করতে অভাবী মানুষগুলোর নাভিস্বাস উঠছে। সাধারণ মানুষের সঞ্চয়কৃত পুঁজি খেয়ে এখন পকেট শূন্য। জীবন বাঁচাতে আতঙ্কের মধ্যে কেউ কেউ শ্রম বিক্রি করলেও শূন্য হাতে বিগত দিনের ক্ষতি পুষিয়ে উঠতেই হিমশিম খাচ্ছেন তারা। অনেকেই সরকারি ত্রাণ সামগ্রীর উপর নির্ভরশীল। তাছাড়া দৈনন্দিন সাংসারিক খরচ মিটিয়ে খেটে খাওয়া মানুষ এনজিও’র ঋণের কিস্তি পরিশোধের মত অতিরিক্ত আয় নিশ্চিত করতে পারছেন না। এনজিও থেকে ক্ষুদ্র ঋণ গ্রহণকারী নিম্ন আয়ের মানুষের আয় বন্ধ হয়ে গেছে।

গত ২৪ মার্চ থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত সরকারীভাবে এক নির্দেশনার মাধ্যমে এনজিওকে ঋণের কিস্তি আদায় বন্ধ করতে নির্দেশনা দিয়েছিলেন। কিন্তু ২ জুন লকডাউন তুলে নেওয়ার পর দিন থেকেই এনজিও কর্মী বাহিনী কিস্তি আদায়ে মাঠে নেমে পড়েছেন।

গত ২৩ জুন মাইক্রোক্রেডিট রেগুলার অথরিটি (এমআরএ) থেকে এনজিও বা ক্ষুদ্র ঋণ প্রতিষ্ঠান সমুহের উপর এ বিষয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারি হয়েছে। সেখানে স্পষ্ট বলা হয়েছে, চলতি বছরের ১জানুয়ারি ঋণের শ্রেনীমান যা ছিল, আগামি ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ঋণ তদোপেক্ষা বিরুপমান শ্রেনীকরন করা যাবে না। এই সংকট কালীন সময়ে ক্ষুদ্র, ঋণ গ্রহীতাদের কিস্তি পরিশোধে বাধ্য করা যাবে না। তবে কোন আগ্রহী সক্ষম গ্রাহক ঋণের কিস্তি পরিশোধে ইচ্ছুক হলে সে ক্ষেত্রে কিস্তি গ্রহনে কোন বাঁধা নেই।

এছাড়া গত ১৫ জুন বাংলাদেশ ব্যাংক হতেও দেশের সকল তফসিলি ব্যাংকের বরাবরে ঋণ শ্রেণীকরণ পত্রে উল্লেখ করেছেন। বৈশ্বিক মহামারি করোনা পরিস্তিতিতে মানুষের অর্থনৈতিক দুরবস্থা বিবেচনা করে, চলতি বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর তারিখ পর্যন্ত কোন কিস্তি পরিশোধ না হলেও উক্ত কিস্তি সমূহের জন্য মেয়াদী ঋণ/ বিনিয়োগ গ্রহীতা কিস্তি খেলাপি হিসেবে বিবেচিত হবে না। অথচ সাধারণ মানুষ এখনো তাদের আয়ের ব্যবস্থাই ঠিক করে উঠতে পারেননি। অনেকে পূর্বের কর্ম হারিয়ে নতুন করে কর্ম খোঁজে করেও ব্যর্থ হচ্ছে। আবার অনেকে কাজে যোগ দিলেও মজুরী বা বেতন পেতেও সময় লাগবে। সাধারণ মানুষের জীবনচিত্র আরও নিম্নমুখী হচ্ছে। তাদের দাবি করোনার ওসিলায় অনেক দিন ছাড় পেয়েছেন। এখন আর কোন ছাড় দেয়া হবেনা। কিস্তি ঠিক মত না দিলে ভবিষ্যতে ঋণ পাওয়া নিয়ে সমস্যা হবে বলেও জানিয়ে দিচ্ছে। এতে করে নিম্ন আয়ের মানুষেরা এখন চরম বিপাকে পড়েছেন।

বন্যা ও নদী ভাঙনের কবলে পড়ে গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ার চরাঞ্চলের অনেক পরিবার অনাহারে অর্ধাহারে দিন পার করছেন। তারপর আবার এনজিও কিস্তির খড়গ। বৈশ্বিক সমস্যা করোনা ভাইরাস বিশ্বকে যখন গ্রাস করে চলেছে। তখন দেশব্যাপী এসকল এনজিও তাদের ঋণের সুদ সহ কিস্তি আদায়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে।

জীবন চক্রবর্তী- লেখক, শিক্ষক ও সাংস্কৃতিক কর্মী।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
DeveloperAsif
themesba-lates1749691102