July 6, 2022, 1:33 pm
শিরোনামঃ
তীব্র স্রোতে যানবাহন পারাপার ব্যাহত, সড়কে সিরিয়াল পাংশায় অস্ত্র, গুলি ও মাদকসহ গ্রেপ্তার দুই গোয়ালন্দে ২৩৫ বোতল ফেনসিডিল সহ গ্রেপ্তার দুই রাজবাড়ীর নিমতলা-কোলারহাট সড়কের গাছ রাতের অন্ধকারে কাটছে প্রভাবশালীরা গরু নিয়ে আমাদের আর দৌলতদিয়া ঘাটে অপেক্ষা করতে হয়না ডিবি পুলিশের অভিযানে দৌলতদিয়ায় সাত হাজার ইয়াবাসহ দুইজন গ্রেপ্তার শিক্ষক হত্যা ও লাঞ্ছনার প্রতিবাদে গোয়ালন্দে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত গোয়ালন্দের উজানচর ইউনিয়নে বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দ থানা পুলিশের পৃথক অভিযানে ইয়াবা ও হেরোইনসহ গ্রেপ্তার ৩ রাজবাড়ীতে কৃষকদের মাঝে কৃষি যন্ত্রপাতি ও পিকআপ ভ্যান বিতরন

গোয়ালন্দের কোথাও স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না, হাট-বাজারে মানুষের গাদাগাদি

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, জুলাই ৯, ২০২০
  • 71 Time View
শেয়ার করুনঃ

বিশেষ প্রতিনিধিঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলায় করোনা সংক্রমণ রোধে কোথাও স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছেনা। শহর ও হাঁট-বাজারগুলোয় মানুষের সর্বত্র ভিড় লেগেই আছে। অধিকাংশ মানুষের মুখে নেই কোন মাস্ক। সামাজিক দূরুত্বের বালাই ছিল না। এতে করে করোনার সংক্রমণ ঝুঁকি আরো বাড়ছে।

বুধবার (৮ জুলাই) সকালে গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ঘাট বাজারে দেখা যায়, সাত সকালেই বাজারে মানুষের ভিড় পড়েছে। বিভিন্ন স্থান থেকে মানুষজন কাঁচ তরিতরকারি ও সবজি নিয়ে হাজির। কেউ সবজি বিক্রির জন্য এসেছেন। আবার কেউ নানা ধরনের তরকারি কিনতে এসেছেন। ক্রেতা এবং বিক্রেতার কারো মুখেই মাস্ক দেখা যায়নি। একজন আরেকজনের শরীর ঘেঁষে দাড়িয়ে কেনাকাটা করছে।

দেবগ্রাম ইউনিয়নের মুন্সী বাজার থেকে কলমি শাক বিক্রি করতে এসেছেন কৃষক উসমান গণি সরদার। তাঁর মুখে মাস্ক নেই। তিনি ঝুড়ি ভর্তি করে শাক বিক্রি করছেন। চারপাশে ঘিরে থাকা কয়েকজন ব্যক্তি খালিমুখে কেউ দরদাম করছেন। আবার কেউ কিনে নিচ্ছেন। মুখে মাস্ক নেই কেন? জানতে চাইলে উসমান গণি বলেন, মাস্ক পকেটে আছে। এছাড়া আমরা কৃষক মানুষ, আমাদের সহজে করোনা হবে না। যারা করোনা নিয়ে বেশি ভয় পায় তাদের হওয়ার শঙ্কা থাকে।

স্থানীয় ফেলু মোল্লার পাড়ার ফজল শেখ হাতে ব্যাগ নিয়ে খাল মুখে বাজার করতে এসেছেন। মাস্ক ছাড়া এভাবে বাজারে আসার কারণ জানতে চাইলে ফজল শেখ বলেন, বাড়ির কাছেই বাজার। ভাবলাম হাঁটতে হাঁটতে বাজার করে আসি। বাজারে মানুষের অনেক ভিড়। এতে করে করোনার সংক্রমণ ছড়ানোর ঝুঁকি তো রয়েছে। এরপরও এভাবে আসা কতটুকো ন্যায় সঙ্গত জানতে চাইলে বলেন, এটা ঠিক হয়নি। তবে মুখে পান আছে তো, আমাদের তেমন সমস্যা হবে না।

বাজারের বড় ব্যবসায়ী মোহন মন্ডল বলেন, আজকাল কেউ করোনা নিয়ে ভাবছে না। ভাগ্যে যার যা আছে তাই হবে। এই ভাবনা থেকে সবাই চলাচল করছে। হাঁট-বাজারে সর্বত্র মানুষের সমাগম এবং ভিড় পড়ছে। একজনের শরীরের সাথে আরেকজন মিশে চলাচল ফেলা করছে। তবে আমরা যতটুকো সম্ভব সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার চেষ্টা করছি।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ বলেন, গোয়ালন্দ উপজেলায় এ পর্যন্ত ৫৬ জন ব্যক্তি করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন। এ ছাড়া মোট ৫৪৫ জনের কাছ থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। আজ বুধবার এ সংক্রান্ত একটি সভাও হয়েছে। আসন্ন ঈদুল আজহাকে কেন্দ্র করে পশুর হাটের প্রতি বিশেষ নজরদারি বাড়ানোর কথা বলা হয়েছে।

গত সোমবার বিকেলে গোয়ালন্দ প্রেসক্লাবের সাংবাদিকরা সদ্য বিদায়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলুর সাথে বিদায়ী সাক্ষাতকালে হাঁট-বাজার ও রাস্তাঘাটে মানুষের বেপরোয়া চলাফেলার কথা তুলে ধরে করোনা ঝুঁকি বাড়ার আশঙ্কার কথা জানান। সাংবাদিকরা দ্রুত করোনার ঝুঁকি এড়াতে ইউএনও’র কাছে শহর ও বাজারগুলোতে মুখে মাস্ক পড়া বাধ্যতামূলক নিয়মের দাবী জানান।

এসময় বিদায়ী ইউএনও রুবায়েত হায়াত শিপলু বলেন, করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সম্মিলিত প্রচেষ্টায় সকলকে সাথে নিয়ে উপজেলা প্রশাসন প্রচার মাইক নামানো ছাড়াও সব ধরনের ব্যবস্থা নিয়েছে। এক-দুই দিনের মধ্যে জন সচেতনতা সৃষ্টিতে পুনরায় প্রচার মাইক নামানোর কথা জানান।

এ প্রসঙ্গে গোয়ালন্দ উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো. আব্দুল্লাহ আল-মামুন বলেন, আগামী এক-দুই দিনের মধ্যে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পুনরায় অভিযান শুরু করবে। আমরা প্রতিটি হাট-বাজার বা শহরগুলোতে প্রচার মাইক নামাবো। মুখে মাস্ক পড়া বাধ্যতামূলক করা হবে। মুখে মাস্ক ছাড়া কারো কাছে কোন পন্য বেচাকেনা করা যাবে না।

Please Share This Post in Your Social Media

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
DeveloperAsif
themesba-lates1749691102
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x