June 21, 2021, 5:09 pm
Title :
করোনা নিয়ে উদ্বেগঃ রাজবাড়ীর তিন পৌরসভায় এক সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ রাজবাড়ীতে দ্বিতীয় পর্যায়ে ঘর পেল ভূমিহীন ৪৩০টি পরিবার পাংশায় আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের মাঝে জমিসহ গৃহ প্রদান কার্যক্রম অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে নতুন ঘরে নতুন আশা নিয়ে নতুন দিনের স্বপ্নে ৩০ পরিবার এবার যমুনা নদীতে জেলেদের জালে ধরা পড়লো ৪৭ কেজি ওজনের বাগাড় রাজবাড়ীতে ১০দিন ব্যাপি সাঁতার প্রশিক্ষণ উদ্বোধন গোয়ালন্দে সংবাদপত্রের এজেন্টের দোকানে জানালার গ্রিল কেটে চার লাখ টাকা চুরি গোয়ালন্দে অস্বচ্ছল নারীদের মাঝে বিনামূল্যে সেলাই মেশিন বিতরণ সামান্য বৃষ্টিতে রাজবাড়ীর বড় বাজার নোংরা ও দূষিত পানিতে সয়লাব, দুর্ভোগ গোয়ালন্দে আগুনে ঘর পুড়ে সর্বশান্ত ৫ পরিবার

রাজবাড়ীর মিজানপুরে রিংবাঁধে ভাঙ্গন, আতঙ্কগ্রস্ত দেড় হাজার পরিবার

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, জুলাই ৬, ২০২০
  • 7 Time View
শেয়ার করুনঃ

ইমরান হোসেনঃ প্রতিদিন রাজবাড়ীর পদ্মায় পানি বাড়ার সাথে রয়েছে প্রচন্ড স্রোত ও ঘুর্ণন। পানি বৃদ্ধি ও স্রোতের কারনে পদ্মা পাড়ের বিভিন্ন স্থানে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। সদর উপজেলার মিজানপুর ইউনিয়নের মহাদেবপুর স্লুইজ গেট থেকে জৌকুড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পর্যন্ত প্রায় আড়াই কিলোমিটার রিংবাঁধে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে।

ভাঙ্গন আতঙ্ক নিয়ে বসবাস করছে রিং বাঁধের ভেতরে থাকা প্রায় দেড় হাজার পরিবার। অথচ একসময় রিংবাঁধটি ছিল জনসাধারনের যাতায়াতের গুরুত্বপূর্ণ একটি রাস্তা। ভাঙ্গন ঠেকাতে কোন পদক্ষেপ নিচ্ছেনা পানিউন্নয়ন বোর্ড। ভাঙ্গন কবলিতরা বলেন, রিংবাঁধের ভাঙ্গন রোধে কাজ না করা হলে হুমকির মুখে পরবে রিংবাঁধ সহ কয়েক হাজার মানুষ ও শহর রক্ষা বাধ।

জেলার মিজানপুর ইউনিয়নে প্রতি বছর ভাঙ্গনের কবলে পরে বাড়ি ঘর, ফসলি জমি, বাজার ঘাটসহ বিভিন্ন স্থাপনা বিলিন হয়েছে। ছোট হয়ে গেছে এর পরিধি। সম্প্রতি মহাদেবপুর স্লুইজ গেট থেকে জৌকুড়া পর্যন্ত আড়াই কিলোমিটার রিংবাধ ভাঙনে এক কিলোমিটার অংশে পৌছেছে। রিংবাঁধের ভেতরে বেড়ি বাঁধের নিচের অংশে প্রায় দেড় হাজারের বেশি পরিবার বাস করছে। গত বছরও এই রিংবাঁধে প্রচন্ড ভাঙ্গন দেখা দিয়েছিল। সে সময়ও কোন পদক্ষেপ নেয়নি কর্তৃপক্ষ। এ বছরও এখানে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে।

আড়াই কিলোমিটার রিংবাঁধটি ছিল অত্র অঞ্চলের সাধারন মানুষের যাতায়াতের অন্যতম একটি রাস্তা। বাঁধের সামনের অংশে প্রায় ৪০০ ফুট নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। জরুরী ভিত্তিতে ভাঙ্গন রোধ কাজ না করা হলে হুমকির মুখে পরবে এ বাধেঁর ভেতরে বসবাস মানুষ। এখন ভাঙ্গন আতঙ্ক নিয়ে বসবাস করছেন এ অঞ্চলের জনসাধারন। তবে নদীগর্ভে বিলিন হতে হতে রাজবাড়ী জেলাটি ধীরে ধীরে ছোট হয়ে আসছে। গত দুই থেকে তিন বছর আগে কিছু বালুর বস্তা ফেলা হলেও তা কোন কাজে আসছেনা।

ভাঙ্গন কবলিত এলাকাবাসিরা বলছেন, রিংবাঁধের বিভিন্ন স্থানে প্রচন্ড ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। ভাঙ্গন রোধে কোন ধরনের ব্যবস্থা নেয়নি কর্তৃপক্ষ। ভাঙ্গন রোধে কাজ না করা হলে দুই হাজার পরিবার নিঃস্ব হয়ে পরবেন। তাদের আশ্রয় স্থল ছেড়ে কোথাও আর যাবার জায়গা নেই বলে জানান। তারা নিঃস্ব জীবন যাপন ও অন্যের জায়গায় যাওয়া ছাড়া আর উপায় থাকবেনা। শেষ আশ্রয়স্থল টুকু নদীগর্ভে বিলিন হলে তারা কোথায় যাবেন সে চিন্তা করছেন প্রতিনিয়ত। ভাঙ্গন ঠেকাতে বহুবার বলেও কোন কাজ করছেনা। আবার কোন কাজ আসলেও কর্তৃপক্ষ তা করেনা বলে অভিযোগ রয়েছে। তাই তাদের দাবী এই ভাঙ্গন ঠেকাতে জরুরী ভাবে পদক্ষেপ গ্রহন করা হোক।

রাজবাড়ী-পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বার্হী প্রকৌশলী মো. শফিকুল ইসলাম শেখ বলেন, নদী তীরবর্তী বিভিন্ন স্থানে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। ভাঙ্গন প্রতিরোধে জরুরী ভিত্তিতে কাজ চলমান রয়েছে। স্থায়ীভাবে ভাঙ্গন রোধে কাজ করতে ডিপিপি প্রনয়ন করে দাখিল করবেন। ডিপিপি অনুমোদন হলে এ স্থানে ভাঙ্গন রোধে প্রতিরক্ষামূলক স্থাায়ী ব্যবস্থা নিতে পারবেন। তবে জরুরী ভিত্তিতে অন্যান্য স্থানে কাজ চলমান রয়েছে বলে জানান তিনি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102