June 19, 2021, 5:26 pm
Title :
দৌলতদিয়া-পাটুরিয়াঃ দুই ঘন্টা বন্ধের পর লঞ্চ চালু, ফেরিতে লোড-আনলোড ব্যাহত গোয়ালন্দে দুর্যোগ বিষয়ক অবহিতকরণ প্রশিক্ষণ কর্মশালা রাস্তার সন্তান প্রসব, হাসপাতালে পৌছাতে যানজটে বাড়তি ভোগান্তি দৌলতদিয়া যৌনপল্লীর এক যৌনকর্মীর ওপর বর্বর নির্যাতনের অভিযোগ গোয়ালন্দে মাতৃমৃত্যু কমাতে নিরাপদ ও প্রাতিষ্ঠানিক প্রসব বৃদ্ধির লক্ষে সচেতনতামূলক কর্মশালা চলে গেলেন গোয়ালন্দের নাট্যগুরু বিশ্বনাথ বিশ্বাস মসজিদে সচেতনতামূলক বক্তব্যে ঢাকা রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ ওসি গোয়ালন্দের তায়াবীর গোয়ালন্দে স্বল্প সুদে যুবদের মাঝে ঋনের চেক বিতরণ গোয়ালন্দে শিশু ও নারী উন্নয়নে সচেতনতামূলক কর্মশালা ওজনে কম দেয়ায় সপ্তবর্ণা তেলের পাম্পকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা

গোয়ালন্দে ৬ কিলোমিটার এলাকায় ভাঙন, ঝুঁকিতে তিন হাজার পরিবার (ভিডিও)

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, জুন ৩০, ২০২০
  • 5 Time View
শেয়ার করুনঃ

বিশেষ প্রতিনিধিঃ বর্ষা মৌসুমের শুরুতে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ফেরি ঘাট থেকে দেবগ্রাম ইউনিয়নের অন্তারমোড় পর্যন্ত ৬ কিলোমিটার এলাকায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। গত তিন সপ্তাহে ভাঙন আতঙ্কে অন্তত ২০০পরিবার অন্যত্র গেছে। ভাঙন আতঙ্কে রয়েছে প্রায় ৩ হাজার পরিবার। ভাঙন ঠেকাতে দৌলতদিয়া ফেরিঘাটের উজানে ৫০০ মিটার অংশে প্রায় ৫ কোটি টাকা ব্যায়ে এবং দেবগ্রাম অন্তারমোড় ক্রসবাধ রক্ষায় দেড় কোটি টাকা ব্যায়ে বালুভর্তি জিওব্যাগ ও জিটিউব ফেলছে।

সরেজমিন দেখা যায়, উপজেলার দেবগ্রাম ইউনিয়নের অন্তারমোড় কাঁচরন্দ এলাকায় পাউবোর নিয়োজিত লোকজন একদিকে ট্রলারে করে বালু এনে জিওব্যাগ ভরছে। আরেক দিকে বাল্কহেড থেকে বালু-পানি মিশ্রিত করে সরাসরি জিটিউব ব্যাগ ভর্তি করছে। দুটি এলাকায় অর্ধ শতাধিক শ্রমিক বালুভর্তির কাজ করছেন। দৌলতদিয়ার নতুন পাড়া এলাকায় দেখা যায়, সেখানে বালুভর্তি জিওব্যাগ ও জিটিউব ফেলা হচ্ছে। কয়েকশ শ্রমিক অবিরাম কাজ করে যাচ্ছেন।

দেবগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাফিজুল ইসলাম বলেন, ৩০ বছরের বেশি সময় ধরে পদ্মার ভাঙন চললেও নদী শাসনে কোন উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। বহু আগেই পদ্মার গর্ভে চলে গেছে তাঁদের বাড়ি-ঘর, জমি জায়গা সব সম্পত্তি। এখন বাধ্য হয়ে বাস করতে হচ্ছে গোয়ালন্দ শহরে। মাটির টান, আত্মীয় স্বজন ও এলাকাবাসীর কারণে প্রতিনিয়ত ছুটে আসতে হয় দেবগ্রামে। প্রতি বছর ভাঙতে ভাঙতে দেবগ্রাম ইউনিয়ন বেশি মানচিত্র থেকে অর্ধেকের বেশি হারিয়েছে।

তিনি আরো বলেন, গত বছর দেবগ্রাম, কাওয়ালজানি ও কাঁচরন্দ মৌজার প্রায় ৩০০পরিবারের বসতভিটা বিলীন হলে অন্যত্র চলে যায়। চলতি বছর বর্ষার শুরুতেই নদী ভাঙন দেখা দিয়েছে। ইতিমধ্যে কয়েকশ বিঘা জমি পদ্মাগর্ভে চলে গেছে। তিন সপ্তাহে ৮০টি পরিবার অন্যত্র গেছে। ভাঙন আতঙ্কে রয়েছে আরো ১৫০০ পরিবার। ভাঙন প্রতিরোধে পানি উন্নয়ন বোর্ড শুধুমাত্র অন্তারমোড় ক্রসবাধের সামনে বালুভর্তি জিওব্যাগ ফেলছে। প্রতি বছর বর্ষায় জিওব্যাগ ফেললেও শুষ্ক মৌসুমে তেমন উদ্যোগ নেয়া হয়নি।

দৌলতদিয়া ইউনিয়নে নদী তীরবর্তী এলাকায় ভাঙন বেড়েছে। কয়েকদিনে বেশকিছু পরিবার বসতভিটা ফেলে অন্যত্র গেছে। লালু মন্ডল পাড়া, নতুন পাড়া, সিদ্দিক কাজী পাড়া ও মজিদ শেখ পাড়ায় ভাঙন বেশি। নতুন পাড়া ও বেপারী পাড়ায় পাউবো বালুভর্তি জিও ব্যাগ ও জিটিউব ব্যাগ ফেলার কাজ করেছে।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান মন্ডল বলেন, গত বছর ভাঙনে তিনটি ওয়ার্ডের কয়েকশ পরিবার ভিটেমাটি হারিয়ে নিঃশ্ব হয়েছে। এবার নতুন করে ভাঙন দেখা দিলে ভরা বর্ষায় ভাঙন আরো অনেক বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে। গ্রামের পাশাপাশি বেশি ঝুকিতে ফেরি ঘাট। ভাঙন আতঙ্কে তিন সপ্তাহে শতাধিক পরিবার অন্যত্র গেছে। ঝুকিতে রয়েছে আরো প্রায় দেড় হাজার পরিবার। ফেরিঘাটের উজানে মাত্র ৫০০ মিটার এলাকায় জিওব্যাগ ফেলছে।

তিনি আরো বলেন, ফেরি ঘাট রক্ষায় বিআইডব্লিউটিএ বালুভর্তি জিও ব্যাগ ফেলছে। ফেরি ঘাটের উজানে নতুন পাড়ায় পাউবো জিওব্যাগ ও জিটিউব ব্যাগ ফেলছে। এত অল্প জায়গায় এসব ফেলে কতটুকো কাজে আসবে? ফেরি ঘাট থেকে শুরু করে অন্তারমোড় পর্যন্ত ৬ কিলোমিটার জুড়ে ব্যবস্থা নেয়া দরকার। না হলে ভরা বর্ষায় ভাঙনে বহু ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত বলেন, দৌলতদিয়া ও দেবগ্রামে নদী তীরবর্তী এলাকা ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। বৃষ্টির শুরুতেই অনেক ফসলি জমি বিলীন হয়েছে। তিন সপ্তাহে প্রায় ২০০টি পরিবার ভাঙন ঝুকিতে অন্যত্র গেছে। ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের তালিকা তৈরী করতে ইউপি চেয়ারম্যানদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। জরুরী পদক্ষেপ নিতে পানি উন্নয়নবোর্ডকে অনুরোধ জানিয়েছি।

পানি উন্নয়ন বোর্ড রাজবাড়ীর নির্বাহী প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম শেখ বলেন, এ বছর বর্ষার আগে ভাঙন প্রতিরোধে কাজ হচ্ছেনা। গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা রক্ষায় দৌলতদিয়া ফেরিঘাট এলাকায় বিআইডব্লিউটিএ কাজ করছে। গত ২৬ জুন থেকে পাউবো ঘাটের উজানে নতুন পাড়া ৫০০মিটার এলাকায় বালুভর্তি জিওব্যাগ ও জিটিউব ফেলছে। এতে ৫কোটি টাকার বেশি ব্যায় হচ্ছে। এতে কতটুকো ঘাট রক্ষা পাবে তা বলতে পারছিনা। দেবগ্রামের অন্তারমোড় ক্রসবাদ রক্ষায় জরুরী বিভাগীয় মেরামতের অংশ হিসেবে প্রায় দেড় কোটি টাকা ব্যায়ে জিওব্যাগ ও জিটিউব ব্যাগ ফেলার কাজ চলছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102