১২:১৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে কেজি প্রতি চালের দাম বেড়েছে ৭ থেকে ৮ টাকা

ইমরান হোসেনঃ বাজারে নতুন চাল উঠেছে এ মাসের প্রথমেই। পর্যাপ্ত চালও রয়েছে বাজারে। তা সত্বেও রাজবাড়ীর বাজার গুলোতে প্রতি কেজি চালের দাম বেড়েছে ৭ থেকে ৮ টাকা। আর বস্তা প্রতি তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৫০ টাকা থেকে ৩০০ টাকা।

গত দুই সপ্তাহ আগে যেখানে রাজাবাড়ীর বাজারগুলোতে প্রতি কেজি সরু চাল বিক্রি হয়েছে মান ভেদে ৪২ টাকা থেকে ৫০ টাকা কেজি দরে। বর্তমানে তা বিক্রি হচ্ছে ৫৫ থেকে ৬০ টাকা কেজি দরে। অর্থাৎ প্রতি কেজি সরু চালের দাম বেড়েছে ৮ থেকে ১০ টাকা। শুক্রবার সকালে রাজবাড়ীর বড় বাজারে গিয়ে দেখা যায়, পর্যাপ্ত চাল বাজারে থাকা সত্বেও বেশি দরে তা বিক্রি করা হচ্ছে। আর মোটা চাল প্রতি কেজি আগে বিক্রি হত ৩৪ টাকা থেকে ৩৮ টাকা। মোটা চালের দামও বেড়েছে কেজি প্রতি ৭ থেকে ৮ টাকা। বর্তমানে মোটা চাল বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৪৮ টাকা কেজি দরে। অথচ বাজারে নতুন চাল উঠলেও এবং ব্যবসায়ীদের কাছে পর্যাপ্ত চালের মজুদ থাকা সত্বেও চালের বাজার লাগামহীনভাবে বাড়ছে। এতে সাধারন মানুষের চাল কিনতে ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে। বাজারে চাল কিনতে এসে তারা এখন হিমশিম খাচ্ছেন।

সাধারন ক্রেতারা বলছেন, বাজারে চালের অভাব নেই। অথচ ব্যবসায়ীরা কেনো চালের দাম বাড়িয়ে বিক্রি করছেন তা তারা জানেন না। চালের বাজার স্থিতিশীল করতে প্রশাসনের নজরদারি প্রয়োজন বলে মনে করেন।

ব্যবসায়ীরা বলেন, বাজারে প্রচুর চাল রয়েছে। কিন্তু মিলাররা তাদের কাছে চালের বাড়তি দাম নিচ্ছেন। তাই তারা বাড়তি দামে চাল বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন। আর আগের চাইতে মোটা ও সরু চালের দাম প্রকার ভেদে কেজি প্রতি বেড়েছে ৬ থেকে ৮ টাকা। আর বস্তা প্রতি বেড়েছে ২০০ টাকা থেকে ২৫০ টাকার মত। চালের বাজার দর বাড়তি এটা মিলারদের কারসাজি। কারন সবে মাত্র কাজারে নতুন চাল এসেছে। বাজারে পর্যাপ্ত চালও রয়েছে, তাই চালের বাজার দর বেশি হওয়ার কোন কারন নেই। মিলারদের কাছ থেকে বেশি দরে কিনতে হয়। বিধায় বেশি দরে বিক্রি করতে হচ্ছে তাদের।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

রাজবাড়ীতে কেজি প্রতি চালের দাম বেড়েছে ৭ থেকে ৮ টাকা

পোস্ট হয়েছেঃ ১০:৫৩:৪৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৭ জুন ২০২০

ইমরান হোসেনঃ বাজারে নতুন চাল উঠেছে এ মাসের প্রথমেই। পর্যাপ্ত চালও রয়েছে বাজারে। তা সত্বেও রাজবাড়ীর বাজার গুলোতে প্রতি কেজি চালের দাম বেড়েছে ৭ থেকে ৮ টাকা। আর বস্তা প্রতি তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৫০ টাকা থেকে ৩০০ টাকা।

গত দুই সপ্তাহ আগে যেখানে রাজাবাড়ীর বাজারগুলোতে প্রতি কেজি সরু চাল বিক্রি হয়েছে মান ভেদে ৪২ টাকা থেকে ৫০ টাকা কেজি দরে। বর্তমানে তা বিক্রি হচ্ছে ৫৫ থেকে ৬০ টাকা কেজি দরে। অর্থাৎ প্রতি কেজি সরু চালের দাম বেড়েছে ৮ থেকে ১০ টাকা। শুক্রবার সকালে রাজবাড়ীর বড় বাজারে গিয়ে দেখা যায়, পর্যাপ্ত চাল বাজারে থাকা সত্বেও বেশি দরে তা বিক্রি করা হচ্ছে। আর মোটা চাল প্রতি কেজি আগে বিক্রি হত ৩৪ টাকা থেকে ৩৮ টাকা। মোটা চালের দামও বেড়েছে কেজি প্রতি ৭ থেকে ৮ টাকা। বর্তমানে মোটা চাল বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৪৮ টাকা কেজি দরে। অথচ বাজারে নতুন চাল উঠলেও এবং ব্যবসায়ীদের কাছে পর্যাপ্ত চালের মজুদ থাকা সত্বেও চালের বাজার লাগামহীনভাবে বাড়ছে। এতে সাধারন মানুষের চাল কিনতে ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে। বাজারে চাল কিনতে এসে তারা এখন হিমশিম খাচ্ছেন।

সাধারন ক্রেতারা বলছেন, বাজারে চালের অভাব নেই। অথচ ব্যবসায়ীরা কেনো চালের দাম বাড়িয়ে বিক্রি করছেন তা তারা জানেন না। চালের বাজার স্থিতিশীল করতে প্রশাসনের নজরদারি প্রয়োজন বলে মনে করেন।

ব্যবসায়ীরা বলেন, বাজারে প্রচুর চাল রয়েছে। কিন্তু মিলাররা তাদের কাছে চালের বাড়তি দাম নিচ্ছেন। তাই তারা বাড়তি দামে চাল বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন। আর আগের চাইতে মোটা ও সরু চালের দাম প্রকার ভেদে কেজি প্রতি বেড়েছে ৬ থেকে ৮ টাকা। আর বস্তা প্রতি বেড়েছে ২০০ টাকা থেকে ২৫০ টাকার মত। চালের বাজার দর বাড়তি এটা মিলারদের কারসাজি। কারন সবে মাত্র কাজারে নতুন চাল এসেছে। বাজারে পর্যাপ্ত চালও রয়েছে, তাই চালের বাজার দর বেশি হওয়ার কোন কারন নেই। মিলারদের কাছ থেকে বেশি দরে কিনতে হয়। বিধায় বেশি দরে বিক্রি করতে হচ্ছে তাদের।