January 20, 2022, 4:50 pm

ইউপি সদস্য পান্নু মোল্লাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে দাবী পরিবারের

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, জুন ২২, ২০২০
  • 37 Time View
শেয়ার করুনঃ

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য, যুবলীগ নেতা রাশেদুল ইসলাম পান্নু মোল্লাকে (৩৬) পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে দাবী করেছে পরিবার। শনিবার রাত পৌনে আটটার দিকে দৌলতদিয়া বাজারের বাড়ি থেকে ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পরিবার। এসময় তার হাতের আঙ্গুলে ছিদ্র পাওয়া গেছে। পরিবারের ধারণা তাতে বিষ প্রয়োগ করা হয়েছে। তবে পুলিশের প্রাথমিক ধারণা সে গলায় গামছা পেচিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

পান্নু মোল্লা দৌলতদিয়া ইউনিয়নের ৩নম্বর ওয়ার্ড সদস্য ও দৌলতদিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ছিলেন। স্থানীয় ১নম্বর বেপারী পাড়া গ্রামের ইয়াকুব মোল্লা ওরফে টোকাই মোল্লার ছেলে। গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে পরদিন রোববার সকালে ময়না তদন্তের জন্য রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে পাঠায়। এ ঘটনায় শনিবার রাতেই পুলিশ বাদী হয়ে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করেছে।

পান্নু মোল্লার আপন বড় মামা ও ছোটভাকলা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী মিয়া বলেন, দৌলতদিয়া বাজার ও পতিতালয়ের মধ্যে পান্নুর একাধিক ব্যবসা আছে। ব্যবসা ও পারিবারিক বিষয় নিয়ে দীর্ঘদিন ঝামেলা চলছিল। তার দুই স্ত্রী রয়েছে। কিছুদিন ধরে প্রথম স্ত্রী কুষ্টিয়ার নিজ বাড়িতে অবস্থান করছেন। দ্বিতীয় স্ত্রীর সন্তানসম্ভবা থাকায় ফরিদপুর বাবার বাড়ি ছিল। গত শনিবার (২০ জুন) দৌলতদিয়া বাজারের বাড়িতে পান্নুর মা ও তত্বাবধায়ক মনির হোসেন ছাড়া কেউ ছিলনা। বাড়ির চারপাশে সিসি ক্যামেরা বসানো ছিল। ঘটনার দিন ক্যামেরার সংযোগ বিচ্ছিন্ন ছিল। ওইদিন তত্বাবধায়কের সাথে বহিরাগত দুই-তিন জন বাড়িতে কয়েকবার আসা যাওয়া করে। দুপুরে খাওয়া দাওয়া করে। পান্নুর ঘরে ঢুকার একাধিক দরজা রয়েছে। ঘরের প্রতিটি দরজার চাবি কেয়ারটেকারের কাছে থাকে। সে ছাড়া ঘরে কারো পক্ষে প্রবেশ করা সম্ভবনা। বিকেল কয়েকজন বাড়িতে আসলে পান্নুর মা মনিরকে ডাকতে বলেন। এসময় মনির জানায়, ভাই (পান্নু) ঘুমাচ্ছে। এ কথা বলার পর মার অনুরোধে জানালা দিয়ে উকিঁ দিয়ে দেখে মেঝতে কাঠের চেয়ারে পান্নু গলায় লাল গামছা পেচিয়ে বসে আছে। মনির দরজার একপাশ ভেঙ্গে চেয়ার থেকে নামিয়ে দেখেন পান্নু বেঁচে নেই। এসময় পান্নুর মা সাথে ছিলেন।

পান্নুর মা আছিয়া বেগমের বরাত দিয়ে মোহাম্মদ আলী মিয়া অভিযোগে বলেন, পান্নু যেভাবে চেয়ারে গলায় ফ্যানের সাথে গামছা পেচিয়ে বসে ছিল তাতে কোনভাবেই আত্মহত্যার কথা না। ডান হাতের মাঝের তিনটি আঙ্গুলের মাথা ছিদ্র ছিল। ঘরে একটি সিরিঞ্জ পাওয়া গেছে। ধারণা কেয়ারটেকার মনিরের সহযোগিতায় হাতের আঙ্গুলে সিরিঞ্জের মাধ্যমে বিষ প্রয়োগ করে হত্যা করা হয়েছে। শনিবার বাড়ির সিসি ক্যামেরার সংযোগ বিচ্ছিন্ন ছিল। পুলিশকে বিষয়টি ভালো করে তদন্তের দাবী জানান তারা। রোববার বিকেলে দৌলতদিয়া খানকাপাক আঞ্জুমান কাদরিয়ার পাশে কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।

দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান মন্ডল বলেন, ২০১৯ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর ইউপি নির্বাচনে পান্নু মোল্লা এলাকাবাসী ভালোবাসায় বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়। তাঁর অকাল মৃত্যু কেউ মিনে নিতে পারছেন না। প্রকৃতপক্ষে পান্নু মোল্লা আত্মহত্যা করেছে না কি মৃত্যুর পিছনে অন্য কোন কারণ রয়েছে বিষয়টি পুলিশকে ভালোভাবে খতিয়ে দেখার অনুরোধ জানান। তবে আমাদের কাছে তাঁর মৃত্যু রহস্যজনক মনে হচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আশিকুর রহমান পিপিএম বলেন, প্রাথমিকভাবে পান্নু মোল্লার মৃত্যু আত্মহত্যা বলে মনে হচ্ছে। বাড়িতে তাঁর মা ও কেয়ারটেকার ছাড়া কেউ ছিলেন না। বাড়ির ওই কেয়ারটেকার জানালা দিয়ে ঝুলতে দেখে ঘরের দরজা ভেঙ্গে তাকে উদ্ধার করে। প্রাথমিক তদন্তে মনে হয়েছে পারিবারিক অশান্তি, ঋনের বোঝার চাপ ও অতিরিক্ত নেশার কারণে সে আত্মহত্যা করে থাকতে পারে। শনিবার রাতে লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন শেষে রোববার সকালে ময়না তদন্ত করা হয়েছে। ময়না তদন্তের প্রতিবেদন পেলেই মৃত্যুর প্রকৃত কারণ বের হয়ে আসবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102