June 19, 2021, 7:12 pm
Title :
গোয়ালন্দে অস্বচ্ছল নারীদের মাঝে বিনামূল্যে সেলাই মেশিন বিতরণ সামান্য বৃষ্টিতে রাজবাড়ীর বড় বাজার নোংরা ও দূষিত পানিতে সয়লাব, দুর্ভোগ গোয়ালন্দে আগুনে ঘর পুড়ে সর্বশান্ত ৫ পরিবার দৌলতদিয়া-পাটুরিয়াঃ দুই ঘন্টা বন্ধের পর লঞ্চ চালু, ফেরিতে লোড-আনলোড ব্যাহত গোয়ালন্দে দুর্যোগ বিষয়ক অবহিতকরণ প্রশিক্ষণ কর্মশালা রাস্তার সন্তান প্রসব, হাসপাতালে পৌছাতে যানজটে বাড়তি ভোগান্তি দৌলতদিয়া যৌনপল্লীর এক যৌনকর্মীর ওপর বর্বর নির্যাতনের অভিযোগ গোয়ালন্দে মাতৃমৃত্যু কমাতে নিরাপদ ও প্রাতিষ্ঠানিক প্রসব বৃদ্ধির লক্ষে সচেতনতামূলক কর্মশালা চলে গেলেন গোয়ালন্দের নাট্যগুরু বিশ্বনাথ বিশ্বাস মসজিদে সচেতনতামূলক বক্তব্যে ঢাকা রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ ওসি গোয়ালন্দের তায়াবীর

দৌলতদিয়া ঘাটের চা বিক্রেতা শিশু আনোয়ারের ‘জীবন যুদ্ধের গল্প’

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, জুন ২১, ২০২০
  • 8 Time View
শেয়ার করুনঃ

আবুল হোসেনঃ চা গরম, চা গরম, চা, চা খাবেন নাকি এভাবে খরিদ্দারদের ডেকে চা খাওয়ার আমন্ত্রন জানাচ্ছিল রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ঘাট বাজারে ১১ বছর বয়সী শিশু আনোয়ার। দৌলতদিয়া বাজার ঘুরে ঘুরে চা বিক্রি করে ছোট্র সংসার চালায় পিতৃহারা এতিম এই শিশুটি। দৌলতদিয়া বাজারে চা বিক্রিকালে কথা হয় শিশু আনোয়ারের সাথে।

আলাপকালে আনোয়ার জানায়, তার চা বিক্রি করার বাস্তব জীবন যুদ্ধের গল্প। যে সময়টা তার হাতে থাকার কথা বই খাতা কলম। এসবের পরিবর্তে তার হাতে রয়েছে চায়ের ফ্লাক্স। এখন সে বাজার ও ঘাট ঘুরে চা বিক্রি করে সংসার চালাচ্ছে। তিন বছর আগে আনোয়ার পিতাকে হারিয়েছে। মাকে নিয়ে এখন দৌলতদিয়া রেল ষ্টেনের পাশে একটি ছাপড়া ঘরে ভাড়া থাকে। মা দৌলতদিয়া রেল ষ্টেশনে হোটেলে রাঁধুনির কাজ করেন। দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমনের ফলে লকডাউনে সকল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেলে তার সাথে সাথে ঘাটের হোটেল গুলো বন্ধ হয়ে যায়। অসহায় মা শিশু আনোয়ারকে নিয়ে চরম কষ্টে খেয়ে না খেয়ে দিন যাপন করতে থাকে।

পরে প্রতিবেশি এক খালার পরামর্শে স্থানীয় কয়েক জনের নিকট থেকে ধার দেনাকরে চৌদ্দশ টাকা দিয়ে একটি চায়ের ফ্লাক্স ও ছোট একটি বালতি কিনে আনোয়ার হয়ে উঠলো চাওয়ালা। এখন প্রতিদিন বেলা ১১টার পর চা নিয়ে বেরিয়ে পরে দৌলতদিয়া বাজার, ট্রাক টার্মিনাল এলাকায়। সাারদিন ঘুরে ঘুরে এক ফ্লাক্স (চল্লিশ কাপ) চা, পাঁচ টাকা দরে বিক্রি করে দিন শেষে ২০০ টাকা নিয়ে মায়ের হাতে দেয়। চা বিক্রি শেষ না হওয়া পষর্ন্ত দুপুরে বিশ টাকা দিয়ে স্থানীয় কোন হোটেলে মাছের ঝোল দিয়ে ভাত খেয়ে নেয়। চা বিক্রি শেষেই ফিরে যায় মায়ের কাছে। চা তৈরীতে তার ৮০ টাকার মতো খরচ হয়।

আলাপকালে আনোয়ার আরো বলে, দৌলতদিয়া কে.কে.এস শিশু বিদ্যালয়ে তৃতীয় শ্রেনী পষর্ন্ত লেখাপড়া করেছে। বাবা মারা যাওয়ার পর তার আর লেখাপড়া হয়নি। পিতৃহারা সংসারে তার মা আর এক খালা আছেন। খালা রাজবাড়ীতেই থাকেন। তার সহপাঠিরা স্কুলে যায়, এতে তার মনে কষ্ট হলেও বড় কষ্ট ক্ষুধা নিয়ে। ঠিকমতো তিন বেলা খেতেও পায়না। প্রায় প্রতিদিনই রাতের খাবার খাওয়া হয়না। কারন আগে মা হোটেলে কাজ করে ভাত নিয়ে আসতো। সেই ভাত আমি রাতে খেতাম। এখন মায়ের হোটেলে কাজ নেই, তাই মা ভাত আনতে পারেনা। মায়ের সাথে গল্প করতে করতে রাতে ঘুমিয়ে যাই। বড় হয়ে তার ইচ্ছা একটা খাবার হোটেল দেওয়া। যাতে তার আর খাবার কষ্ট না থাকে। আর মাকে যেন কাজ করে খাবার আনতে না হয়।

দৌলতদিয়া শিশুদের নিয়ে কাজ করা বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা পায়াক্ট বাংলাদেশ দৌলতদিয়া ঘাট অফিস ইনচার্জ শেখ মো. রাজীব বলেন, শিশুটির ব্যাপারে খোজ খবর নিয়ে প্রয়োজনে তাকে সেভ হোমে রেখে সার্বিক সহযোগিতা করবো।

গোয়ালন্দ উপজেলা প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও উজানচর মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুহাম্মদ বাবর আলী বলেন, শিশুশ্রম সম্পূর্ণ নিষেধ। তাকে পুনোরায় স্কুলে ফিরিয়ে আনা যায় সে ব্যপারে তার স্কুলের প্রধান শিক্ষকের সাথে কথা বলে ব্যবস্থা নিব। প্রয়োজনে উপজেলা প্রশাসনের সহায়তায় তাকে আর্থিক সহযোগিতা করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102