July 6, 2022, 1:42 pm
শিরোনামঃ
তীব্র স্রোতে যানবাহন পারাপার ব্যাহত, সড়কে সিরিয়াল পাংশায় অস্ত্র, গুলি ও মাদকসহ গ্রেপ্তার দুই গোয়ালন্দে ২৩৫ বোতল ফেনসিডিল সহ গ্রেপ্তার দুই রাজবাড়ীর নিমতলা-কোলারহাট সড়কের গাছ রাতের অন্ধকারে কাটছে প্রভাবশালীরা গরু নিয়ে আমাদের আর দৌলতদিয়া ঘাটে অপেক্ষা করতে হয়না ডিবি পুলিশের অভিযানে দৌলতদিয়ায় সাত হাজার ইয়াবাসহ দুইজন গ্রেপ্তার শিক্ষক হত্যা ও লাঞ্ছনার প্রতিবাদে গোয়ালন্দে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত গোয়ালন্দের উজানচর ইউনিয়নে বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দ থানা পুলিশের পৃথক অভিযানে ইয়াবা ও হেরোইনসহ গ্রেপ্তার ৩ রাজবাড়ীতে কৃষকদের মাঝে কৃষি যন্ত্রপাতি ও পিকআপ ভ্যান বিতরন

করোনাকালের জীবনঃ পাল্টে গেল তাদের কর্ম

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, জুন ১৮, ২০২০
  • 100 Time View
শেয়ার করুনঃ

বিশেষ প্রতিনিধিঃ করোনা পরিস্থিতির কারণে দেশের অনেক মানুষ বেকার হয়ে পড়েছে। অনেকে সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে কাজ করতে না পারায় পেশা পরিবর্তন করতে বাধ্য হয়েছেন। রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার করোনাকালে পাল্টে যাওয়া কয়েক জনের সাথে আলাপকালে রাজবাড়ীমেইল এর কাছে এমন চিত্রই উঠে আসে।

গোয়ালন্দ পৌরসভার কুমড়াকান্দি গ্রামের নয়ন শেখ পেশায় চটপটি বিক্রেতা। প্রতিদিন বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ঘুরে চটপটি, ফুচকা বিক্রি করতেন। দিনে স্কুল-কলেজে ঘুরে এসব খাবার বিক্রি শেষে রাতে গোয়ালন্দ বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় বসতেন। গভীররাত পর্যন্ত বেচাকেনা শেষে বাড়ি ফিরতেন। প্রতিদিন গড়ে খরচ বাদ দিয়ে প্রায় ১ হাজার থেকে ১২০০ টাকা আয় হতো। করোনার কারণে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে পড়ায় এসব খাবার বিক্রিও বন্ধ হয়ে গেছে। এমনকি সন্ধ্যার পর নিয়মিত বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় বসলেও মানুষের সমাগম বা জড়ো হওয়া নিষেধ থাকায় তাও বন্ধ হয়ে পড়ে। বাধ্য হয়ে নেমে পড়েন রঙ মিস্ত্রির সহকারী হিসেবে।

আলাপকালে নয়ন জানান, করোনার কারণে অনেকে বাড়িতে অবস্থান করছেন। এ সুযোগে কিছু মধ্যবিত্ত পরিবারের অনেকে বাড়ি-ঘর ঘষাঁমাজা করে রঙ করিয়ে নিচ্ছে। তাই বাড়ি বসে না থেকে রঙ মিস্ত্রির সহকারী হিসেবে কাজ করছি। দিন শেষে এখন ৪৫০ টাকা করে বেতন পাচ্ছি। মাঝেমধ্যে এসব কাজও বন্ধ হয়ে যায়। কাজ না করলে পরিবারের লোকজন খাবে কি? পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত এখন এই কাজই করতে হবে।

রঙের প্রধান মিস্ত্রি চান মিয়া বলেন, আগে প্রতিদিন একটি গ্রুপ কাজ করতাম। করোনা শুরুর পর বাড়ি-ঘরে রঙ করার চাহিদা বেড়ে যায়। এখন আমার পাঁচটি দল বিভিন্ন এলাকায় কাজ করছেন। একেকটি দলে ৪ থেকে ৬জন করে কাজ করছে। কাজের চাহিদা থাকায় অনেক সহকারীর (হেলপার) প্রয়োজন পড়ছে। অনেক তরুন-যুবক আসছেন সহকারী হিসেবে কাজ করতে।

গোয়ালন্দ শহরে ঝাল-মুড়ি বিক্রেতা দুলাল দাসের পরিচিতি সর্বত্র। শহরের প্রতিটি অলিগলি তার পদচারণায় মুখর থাকতো সবাই। দুলাল দাস করোনা শুরু থেকে ঝাল-মুড়ি বিক্রি বাদ দেন। কিন্তু এভাবে বসে থাকলে সংসার চলবে কিভাবে? এখন ওই ভ্যানে সবজি বিক্রি করছেন। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় এখন ঝাল মুড়ির চাহিদা নেই। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা থাকলে শিক্ষার্থীদের চাহিদার ওপর নির্ভর করতো তার ঝাল-মুড়ির ব্যবসা।

সবজি বিক্রিকালে দুলাল দাস বলেন, স্কুল-কলেজ খোলা থাকায় এ স্কুল থেকে আরেক স্কুল-কলেজ ছুটে বেড়াতাম। সারাদিন ঝাল-মুড়ির সাথে বিভিন্ন প্রকারের আচার বিক্রি করতোম। দিন শেষে ৮০০ থেকে ৯০০ টাকা, কোনদিন ১ হাজার টাকাও রোজগার হতো। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় এখন কে ঝাল-মুড়ি খাবে? মানুষজন এখন বাইরের খাবার তেমন খায়না। সংসার তো চালাতে হবে। বাধ্য হয়ে আড়াই মাস ধরে সবজি বিক্রি করছি। এখন দিন শেষে ৪০০ টাকা, কোনদিন তার বেশিও হয়।

গোয়ালন্দ বাজারে ভ্যানে লেবু বিক্রিকালে আব্দুর আলমগীরে হোসেন বলেন, নিজের ভ্যান দিয়ে প্রতিদিন বিভিন্নস্থানে মালামাল বহন করতাম। তাতে গড়ে ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা রোজগার হতো। এখন বিকেল হলেই সবকিছু বন্ধ হয়ে পড়ে। আগের মতো ভাড়া পাওয়া যায়না। তাই লেবু পাইকারি দরে কিনে খুচরা বিক্রি করছি। দিন শেষে যা আয় হয় তাই দিয়ে মোটামুটি চলছে।

করোনা পরিস্থিতিতে চটপটি বিক্রেতা নয়ন শেখ, ঝালমুড়ি বিক্রেতা দুলাল দাস বা ভ্যান চালক আলমগীরের মতো অনেকে পেটের তাগিতে পেশা পরিবর্তন করতে বাধ্য হয়েছেন। তারাও দ্রুত এ পরিস্থিতির অবসান চান।

Please Share This Post in Your Social Media

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
DeveloperAsif
themesba-lates1749691102
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x