June 22, 2021, 8:55 pm
Title :
রাজবাড়ীতে পুকুরে মাছের পোনা অবমুক্ত ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ দৌলতদিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে করোনায় সংক্রমণ রোধে কঠোরবিধি নিষেধ, পৌরসভার উদ্যোগে মাস্ক বিতরণ গোয়ালন্দ থানা পুলিশের উদ্যোগঃ বিট পুলিশকে তথ্য দিন, নিরাপদে কাটবে দিন করোনা নিয়ে উদ্বেগঃ রাজবাড়ীর তিন পৌরসভায় এক সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ রাজবাড়ীতে দ্বিতীয় পর্যায়ে ঘর পেল ভূমিহীন ৪৩০টি পরিবার পাংশায় আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের মাঝে জমিসহ গৃহ প্রদান কার্যক্রম অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে নতুন ঘরে নতুন আশা নিয়ে নতুন দিনের স্বপ্নে ৩০ পরিবার এবার যমুনা নদীতে জেলেদের জালে ধরা পড়লো ৪৭ কেজি ওজনের বাগাড় রাজবাড়ীতে ১০দিন ব্যাপি সাঁতার প্রশিক্ষণ উদ্বোধন

করোনার চিকিৎসায় জীবন রক্ষাকারী ওষুধ পাওয়া গেছে: বিবিসি

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, জুন ১৬, ২০২০
  • 12 Time View
শেয়ার করুনঃ

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ বিজ্ঞানীরা বলছেন, এ ওষুধটিই করোনার চিকিৎসায় গুরুতর অসুস্থ ব্যক্তিদের জীবন রক্ষা করতে সক্ষম। মূলত করোনায় আক্রান্ত যেসব রোগীর ভেন্টিলেশন ও অক্সিজেনের প্রয়োজন হয়, সেসব রোগীর জীবন বাঁচাতে ডেক্সামেথাসোন অত্যন্ত কার্যকর বলে দেখা গেছে। এটা একধরনের স্টেরয়েড। তবে মৃদু উপসর্গযুক্ত রোগীদের জন্য এই ওষুধ ব্যবহারের প্রয়োজন নেই।

বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির একদল গবেষক এ গবেষণাটি চালিয়েছেন। হাসপাতালে ভর্তি হওয়া প্রায় ২ হাজার করোনা রোগীর শরীরে ডেক্সামেথাসোন পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করা হয়েছিল। তা থেকে প্রাপ্ত ফলাফল বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, ভেন্টিলেশনে থাকা রোগীদের ক্ষেত্রে মৃত্যুঝুঁকি ৪০ শতাংশ থেকে ২৮ শতাংশে কমে আসে। আর যেসব রোগীর অক্সিজেন গ্রহণের প্রয়োজন হয়, সেসব রোগীর মৃত্যুঝুঁকি ২৫ শতাংশ থেকে ২০ শতাংশে কমে আসে।

গবেষকেরা বলছেন, পরীক্ষামূলক প্রয়োগের ক্ষেত্রে ডেক্সামেথাসোন নেওয়া রোগীদের ফলের সঙ্গে ওই ওষুধ না নেওয়া চার হাজার রোগীর অবস্থা মিলিয়ে দেখা হয়। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের শরীরে এ ওষুধটি এরই মধ্যে প্রয়োগ করা হচ্ছে। দেখা গেছে, রোগীর শরীরের রোগ প্রতিরোধব্যবস্থা যখন অতিরিক্ত প্রতিক্রিয়া দেখাতে শুরু করে, তখন যেসব ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা থাকে, তা থামাতে ডেক্সামেথাসোন কার্যকর ভূমিকা রাখে। মানুষের শরীরের যখন অতিরিক্ত প্রতিক্রিয়া দেখাতে শুরু করে, তখন তাকে বলে সাইটোকাইন স্টর্ম। এটি রোগীর মৃত্যুর কারণ হতে পারে। ডেক্সামেথাসোন এ ক্ষেত্রে বেশ কার্যকর বলে গবেষণায় দেখা গেছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রতি ২০ জন করোনা রোগীর মধ্যে ১৯ জনেরই হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার প্রয়োজন হয় না। আবার যাঁরা হাসপাতালে ভর্তি হন, তাঁদের মধ্যেও অধিকাংশই সুস্থ হয়ে যান। তবে কারও কারও অক্সিজেন ও ভেন্টিলেশন-সুবিধার প্রয়োজন হয়। এই উচ্চ ঝুঁকির রোগীদের চিকিৎসার ক্ষেত্রেই উপকারী হিসেবে পাওয়া গেছে ডেক্সামেথাসোনের নাম।

অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির গবেষক দলের প্রধান অনুসন্ধানকারী ও অধ্যাপক পিটার হরবি বলেন, এটাই একমাত্র ওষুধ, যার প্রয়োগে মৃত্যুহার কমতে দেখা গেছে এবং সত্যিকার অর্থেই বেশ ভালো পরিমাণে কমে। এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কার।

প্রধান গবেষক ও অধ্যাপক মার্টিন ল্যানড্রে বলছেন, গবেষণায় প্রাপ্ত ফলাফলে দেখা গেছে, প্রতি আটজন রোগী, যাঁদের ভেন্টিলেটরের প্রয়োজন হয়, তাঁদের মধ্যে একজনের জীবন বাঁচাতে পারে ডেক্সামেথাসোন। আর অক্সিজেন প্রয়োজন হয়, এমন প্রতি ২০ থেকে ২৫ জন রোগীদের ক্ষেত্রে একজন রোগীর জীবন বাঁচানো যায়।

সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মৃদু উপসর্গ থাকা করোনা রোগীদের ক্ষেত্রে ডেক্সামেথাসোন খুব একটা কার্যকর নয়। অর্থাৎ যেসব করোনা রোগীর শ্বাসকষ্টের সমস্যা হয় না, তাঁদের ক্ষেত্রে ডেক্সামেথাসোন প্রয়োজন নেই।

ডেক্সামেথাসোন বেশ পরিচিত একটি ওষুধ এবং দামেও অত্যন্ত সস্তা। সংশ্লিষ্ট গবেষকেরা বলছেন, যুক্তরাজ্যে প্রতিদিনের চিকিৎসায় ডেক্সামেথাসোন ব্যবহারের খরচ প্রায় সাড়ে পাঁচ পাউন্ড। ১০ দিন পর্যন্ত ডেক্সামেথাসোন প্রয়োগ করার কথা বলা হচ্ছে। যুক্তরাজ্যের বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য, করোনা মহামারির শুরুতে এই ওষুধের কার্যকারিতা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া গেলে প্রায় পাঁচ হাজার মানুষের মৃত্যু ঠেকানো যেত।    (তথ্য সূত্রঃ প্রথম আলো)

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102