০৭:১৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ নভেম্বর ২০২৩, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে দেদার বিক্রি হচ্ছে ফসলি জমির মাটি, ফসল উৎপাদন ব্যাহত

ইমরান হোসেন মনিমঃ রাজবাড়ী জেলা কৃষি নির্ভর অঞ্চল। মাটির উর্বরা শক্তির কারনে সব ধরনের ফসল উৎপাদন ভালো হয়ে থাকে। কয়েক বছর ধরে জেলার প্রায় প্রত্যেক উপজেলার ফসলি মাঠের মাটি বিক্রির হিরিক পরেছে। ইটভাটা, মাছ চাষের ঘের ও পুকুর তৈরীতে বেশি লাভের আশায় দেদারছে মাটি বিক্রি করায় কমছে ফসলি জমি। বিভিন্ন ওজুহাতে তিন ফসলী উর্বরা এসব জমি কমে যাওয়ায় উৎপাদন ব্যহত হচ্ছে।

রাজবাড়ী সদরসহ পাংশা, বালিয়াকান্দি, কালুখালী ও গোয়ালন্দ উপজেলার প্রায় ইটভাটার সংখ্যা রয়েছে প্রায় ৮০টি। ভাটায় ইট তৈরীতে প্রতিদিন অনেক মাটির প্রয়োজন হয়। ভাটা মালিক, সংশ্লিষ্টরা বিভিন্ন উপায়ে জমি মালিকদের থেকে মাটি কিনে নেয় ইট তৈরীর জন্য। অনেকে বাড়ির গর্ত ভরাট, মাছ চাষে লাভ দেখিয়ে ফসলী জমির এ মাটি বিক্রি করছে দেদারছে। ফলে ফসল উৎপাদনে লাভ না হওয়ার অজুহাতে মাটি বিক্রির ফলে এভাবে জমি হারাচ্ছে। আবাদী জমি আর ব্যহত হচ্ছে ফসল উৎপাদন। সদর উপজেলার দাদশী ইউনিয়নের বক্তারপুর ফসলী মাঠ, খানখানাপুর, চন্দনী, রামকান্তপুর, বসন্তপুর, সুলতানপুর সহ প্রায় প্রতি এলাকার মাঠের মাটি বিক্রি করতে দেখা গেছে। ট্রাক প্রতি ১৫০ থেকে হাজার টাকায় মাটি বিক্রি করছে জমির মালিকরা। একটি অংশ পাচ্ছেন খনন যন্ত্রের মালিকরা।

কয়েকজন জমির মালিক বলেন, ফসল উৎপাদন ও চাষাবাদে তাদের তেমন লাভ না হওয়ায় মাছ চাষ করতে বিভিন্ন ইট ভাটা ও বাড়ির মালিকদের কাছে মাটি বিক্রি করছেন। তারা রবলছেন এতে ফসলী জমির কোন ক্ষতি হচ্ছেনা। আবার পাশের জমি থেকে মাটি বিক্রির ফলে আবাদী জমি হুমকির মুখে পরছে। বিভিন্ন ধরনের ফসল তারা চাষ করতে পারছেন না। জমি খনন করায় এক ফসল চাষ করতে হচ্ছে। ফসলি জমির মাটি বিক্রি বন্ধ না হলে ফসল উৎপাদন চরমভাবে ব্যহত হবে বলে। তারা লোকসানের মধ্যে পরবেন বলে জানান।

আবার অনেক স্থানে দেখা গেছে, ফসলি জমির পাশ থেকে অবৈধ ড্রেজার বসিয়ে মাটি বিক্রি করছেন। এতে পার্শ্ববর্তী জমির মালিকদের ফসলী জমি ভেঙ্গে নষ্ট হচ্ছে। প্রভাবশালী হওয়ায় এসব ড্রেজার মালিকদের তারা কিছু বলতে পারছেন না। এদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেও কোন লাভ হয়না বলে জানান ভুক্তভোগীরা।

রাজবাড়ী সদর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা মো. বাহাউদ্দিন বলেন, বাংলাদেশে শক্তিশালী ল্যান্ড পলিসি না থাকায় অনেকে মাছের ঘের বা পুকুর তৈরী এবং ইট ভাটায় জমির মাটি বিক্রি করছে যত্রতত্র ভাবে। এতে ফসলী জমি নষ্ট হওয়ার পাশাপাশি কৃষি জমি ও কৃষি উৎপাদন হুমকিতে পড়ছে। প্রশাসন ও সচেতন নাগরিকদের কাছে কৃষি জমি রক্ষার অনুরোধ জানান। ভবিষ্যৎ প্রজন্ম এবং কৃষিকে আরো লাভজনক ও কৃষিকে বাচিয়ে রাখতে একে সুরক্ষা করা প্রয়োজন। নিয়ন্ত্রিত মাত্রায় মাটির ব্যবহার ও মাটির ওপরভাগের উর্বরা পলি পুকুর কেটে ও ইট ভাটায় না বিক্রি করতে সকলের প্রতি আহবান জানান।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক গোপাল কৃষ্ণদাস বলেন, কৃষি জমির উর্বরা ওপরভাগের মাটি বিক্রির কারনে আবাদী ফসলি জমি কমে যাচ্ছে, সাথে উৎপাদন ব্যহত হচ্ছে। তবে প্রশাসনের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে ফসলি জমির মাটি বিক্রি বন্ধ করতে চেস্টা করবেন বলে জানান।

জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম বলেন, ফসলি জমির উর্বর যে মাটি রয়েছে এটি আসলে ফসল উৎপাদনেই ব্যবহার হওয়ার দরকার। অন্য কোন কাজে ব্যবহার হওয়ার কথা নয়। এভাবে জমি নষ্ট করা হচ্ছে এমন অভিযোগ তিনি পাননি। যদি কেউ এভাবে অবৈধভাবে জমি নষ্ট করে ফসল উৎপাদন ব্যহত করার চেষ্টা করে বা চাষাবাদের জন্য ক্ষতির কারন হচ্ছে তাহলে ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলে জানান।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ আইডিয়াল উচ্চবিদ্যালয়ঃ বেতনবিল স্বাক্ষরে প্রধান শিক্ষকের ঘুষ দাবি, দায় চাপালেন কর্মকর্তাদের ওপর

রাজবাড়ীতে দেদার বিক্রি হচ্ছে ফসলি জমির মাটি, ফসল উৎপাদন ব্যাহত

পোস্ট হয়েছেঃ ০৮:১৪:৩৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুন ২০২০

ইমরান হোসেন মনিমঃ রাজবাড়ী জেলা কৃষি নির্ভর অঞ্চল। মাটির উর্বরা শক্তির কারনে সব ধরনের ফসল উৎপাদন ভালো হয়ে থাকে। কয়েক বছর ধরে জেলার প্রায় প্রত্যেক উপজেলার ফসলি মাঠের মাটি বিক্রির হিরিক পরেছে। ইটভাটা, মাছ চাষের ঘের ও পুকুর তৈরীতে বেশি লাভের আশায় দেদারছে মাটি বিক্রি করায় কমছে ফসলি জমি। বিভিন্ন ওজুহাতে তিন ফসলী উর্বরা এসব জমি কমে যাওয়ায় উৎপাদন ব্যহত হচ্ছে।

রাজবাড়ী সদরসহ পাংশা, বালিয়াকান্দি, কালুখালী ও গোয়ালন্দ উপজেলার প্রায় ইটভাটার সংখ্যা রয়েছে প্রায় ৮০টি। ভাটায় ইট তৈরীতে প্রতিদিন অনেক মাটির প্রয়োজন হয়। ভাটা মালিক, সংশ্লিষ্টরা বিভিন্ন উপায়ে জমি মালিকদের থেকে মাটি কিনে নেয় ইট তৈরীর জন্য। অনেকে বাড়ির গর্ত ভরাট, মাছ চাষে লাভ দেখিয়ে ফসলী জমির এ মাটি বিক্রি করছে দেদারছে। ফলে ফসল উৎপাদনে লাভ না হওয়ার অজুহাতে মাটি বিক্রির ফলে এভাবে জমি হারাচ্ছে। আবাদী জমি আর ব্যহত হচ্ছে ফসল উৎপাদন। সদর উপজেলার দাদশী ইউনিয়নের বক্তারপুর ফসলী মাঠ, খানখানাপুর, চন্দনী, রামকান্তপুর, বসন্তপুর, সুলতানপুর সহ প্রায় প্রতি এলাকার মাঠের মাটি বিক্রি করতে দেখা গেছে। ট্রাক প্রতি ১৫০ থেকে হাজার টাকায় মাটি বিক্রি করছে জমির মালিকরা। একটি অংশ পাচ্ছেন খনন যন্ত্রের মালিকরা।

কয়েকজন জমির মালিক বলেন, ফসল উৎপাদন ও চাষাবাদে তাদের তেমন লাভ না হওয়ায় মাছ চাষ করতে বিভিন্ন ইট ভাটা ও বাড়ির মালিকদের কাছে মাটি বিক্রি করছেন। তারা রবলছেন এতে ফসলী জমির কোন ক্ষতি হচ্ছেনা। আবার পাশের জমি থেকে মাটি বিক্রির ফলে আবাদী জমি হুমকির মুখে পরছে। বিভিন্ন ধরনের ফসল তারা চাষ করতে পারছেন না। জমি খনন করায় এক ফসল চাষ করতে হচ্ছে। ফসলি জমির মাটি বিক্রি বন্ধ না হলে ফসল উৎপাদন চরমভাবে ব্যহত হবে বলে। তারা লোকসানের মধ্যে পরবেন বলে জানান।

আবার অনেক স্থানে দেখা গেছে, ফসলি জমির পাশ থেকে অবৈধ ড্রেজার বসিয়ে মাটি বিক্রি করছেন। এতে পার্শ্ববর্তী জমির মালিকদের ফসলী জমি ভেঙ্গে নষ্ট হচ্ছে। প্রভাবশালী হওয়ায় এসব ড্রেজার মালিকদের তারা কিছু বলতে পারছেন না। এদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেও কোন লাভ হয়না বলে জানান ভুক্তভোগীরা।

রাজবাড়ী সদর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা মো. বাহাউদ্দিন বলেন, বাংলাদেশে শক্তিশালী ল্যান্ড পলিসি না থাকায় অনেকে মাছের ঘের বা পুকুর তৈরী এবং ইট ভাটায় জমির মাটি বিক্রি করছে যত্রতত্র ভাবে। এতে ফসলী জমি নষ্ট হওয়ার পাশাপাশি কৃষি জমি ও কৃষি উৎপাদন হুমকিতে পড়ছে। প্রশাসন ও সচেতন নাগরিকদের কাছে কৃষি জমি রক্ষার অনুরোধ জানান। ভবিষ্যৎ প্রজন্ম এবং কৃষিকে আরো লাভজনক ও কৃষিকে বাচিয়ে রাখতে একে সুরক্ষা করা প্রয়োজন। নিয়ন্ত্রিত মাত্রায় মাটির ব্যবহার ও মাটির ওপরভাগের উর্বরা পলি পুকুর কেটে ও ইট ভাটায় না বিক্রি করতে সকলের প্রতি আহবান জানান।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক গোপাল কৃষ্ণদাস বলেন, কৃষি জমির উর্বরা ওপরভাগের মাটি বিক্রির কারনে আবাদী ফসলি জমি কমে যাচ্ছে, সাথে উৎপাদন ব্যহত হচ্ছে। তবে প্রশাসনের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে ফসলি জমির মাটি বিক্রি বন্ধ করতে চেস্টা করবেন বলে জানান।

জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম বলেন, ফসলি জমির উর্বর যে মাটি রয়েছে এটি আসলে ফসল উৎপাদনেই ব্যবহার হওয়ার দরকার। অন্য কোন কাজে ব্যবহার হওয়ার কথা নয়। এভাবে জমি নষ্ট করা হচ্ছে এমন অভিযোগ তিনি পাননি। যদি কেউ এভাবে অবৈধভাবে জমি নষ্ট করে ফসল উৎপাদন ব্যহত করার চেষ্টা করে বা চাষাবাদের জন্য ক্ষতির কারন হচ্ছে তাহলে ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলে জানান।