December 4, 2022, 5:01 am

লক্ষ্য পূরণ ছাড়া ঘরে ফিরব না: তাপস

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, জুন ৭, ২০২০
  • 87 Time View
শেয়ার করুনঃ

রাজবাড়ী মেইল ডেস্কঃ ৩২ নং ওয়ার্ডের সামসাবাদ মাঠে বছরব্যাপী সমন্বিত মশক নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনা কার্যক্রমের উদ্বোধন

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেছেন, ‘আমি যে লক্ষ্য নিয়ে এসেছি, আমাদের নেত্রী যে লক্ষ্য দিয়েছেন সেই লক্ষ্য পূরণ ছাড়া ঘরে ফিরব না। আমি সার্বক্ষণিক আপনাদের জন্য নিয়োজিত আছি, দিনে ২৪ ঘণ্টাও যদি কাজ করতে হয় আমি আপনাদের জন্য কাজ করব’।

৩২ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হাজী এম এ মান্নানের তত্তাবধানে ও সার্বিক ব্যবস্থাপনায় রোববার (০৭ জুন) দুপুরে সামসাবাদ মাঠে বছরব্যাপী সমন্বিত মশক নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনা কার্যক্রমের উদ্বোধনকালে মেয়র একথা বলেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ডিএসসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শাহ মোহাম্মদ ইমদাদুল হক,
ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফী, সাধারণ সম্পাদক হুমায়ন কবির বংশাল থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব গোলাম মোস্তফা সাধারণ সম্পাদক সিরাজউদ্দীন বাদল প্রমুখ।

মেয়র তাপস বলেন, আমি নির্বাচনী ইশতিহারে জনগণকে যে কথা দিয়েছি তা বাস্তবায়নের লক্ষ্য কাজ শুরু করে দিয়েছি। অচিরেই তার প্রতিফলন উপলদ্ধি করতে পারবেন। আগে মশক নিধনে গতানুগতিক কার্যক্রম ছিল সেটা ঢেলে সাজিয়েছি। নতুন করে কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করেছি।

তিনি বলেন, মশক নিধন কোন অল্প সময়ের কার্যক্রম না। এটা বছরব্যাপী কার্যক্রম। আগের গতানুগতিকভাবে সকাল ৮ টার সময় এক ঘণ্টা মাত্র লার্ভিসাইডিং করা হতো, এখন সকাল ৯ টা থেকে দুপুর একটা পর্যন্ত চার ঘণ্টা লার্ভিসাইডিং করা হবে। আগে গতানুগতিকভাবে শুধু সন্ধ্যার সময় এক ঘণ্টার মতো ফগার মেশিনের ধোয়া দিয়ে এডালটি সাইড এর মাধ্যমে মশক নিধন করা হতো, এখন দুপুর আড়াইটা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা অর্থাৎ মাগরিব পর্যন্ত চার ঘণ্টা পুরো ওয়ার্ডব্যাপী এডালটি সাইড কার্যক্রম চলবে।

মেয়র তাপস বলেন, জলাশয় নর্দমা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে লার্ভা নিধন করা বিভিন্ন জলাশয়ে হাঁস চাষ করে জলাশয় সচল করা হবে। এই কার্যক্রম পুরো বছর করতে পারলে আশা করি আগামী বছর থেকে মশকের প্রজনন ব্যাপকভাবে হ্রাস পাবে, কমে যাবে, আমরা সফল হব।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস
তিনি বলেন, এই মহামারি করোনার মধ্যে ঢাকাবাসীকে আর কোন মহামারির প্রকোপ যেমন-ডেঙ্গু, চিকুনগুনিয়ার প্রকোপে আক্রান্ত করতে চাই না। আমরা অত্যান্ত অগ্রাধিকার দিয়ে মহামারির মধ্যে মশক নিধন কার্যক্রম বেগমান করেছি। আশা করছি আজ থেকে যে মশক নিধন কার্যক্রম শুরু হলো এই কার্যক্রম পুরোপুরি চললে এবছর ডেঙ্গুর প্রকোপ থেকে ঢাকাবাসীকে মুক্ত করতে পারব।

ঢাকাবাসীর স্বাস্থ্যসেবা নিয়ে বলেন, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বিদ্যমান স্বাস্থ্যব্যবস্থা একদম নাজুক এবং ভঙ্গুর। আমার সেটাকে ঢেলে সাজাতে পরিকল্পনা নিয়েছি। তবে এটা বাস্তবায়ন করতে একটু সময় লাগবে।

ঢাকাবাসীর উদ্দেশে বলেন, এই মশক নিধন কার্যক্রমে প্রতিটি ওয়ার্ডে ৮জন করে মশক নিধনকর্মী কাজ করবে। সবমিলিয়ে প্রতিটি ওয়ার্ডে ২১ জন কর্মকর্তা কর্মচারী কাজ করবে। আপনারা যদি মশার লার্ভা বা মশকের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হন তাহলে আমাদের উপ স্বাস্থ্যকর্মকর্তাকে জানান, না হলে কাউন্সিলরকে জানান তারপরেও যদি সুরাহা না পান সরাসরি আমাকে জানাবেন।

ঢাকা সিটি এলাকায় লকডাউন নিয়ে বলেন, সংক্রমণ যদি বন্ধ করতে হয় তাহলে ব্যবস্থা নিতে হবে। যদিও জীবিকার জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে, যেসকল জায়গায় সংক্রমণ বৃদ্ধি পাবে সেসব জায়গায় লকডাউন বা আপনাদের নিয়ে জনগণকে সুস্থ করতে পারি সে লক্ষ্য কাজ করার একটি প্রস্তাবনা এসেছে। প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দিলে প্রজ্ঞাপন আকারে আসলে ডিএসসিসি ও ডিএনসিসি উভয় সেই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করব। ৩২ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হাজী এম এ মান্নান ও ওয়ার্ডবাসীকে ধন্যবাদ জানিয়ে ফগার মেশিনের মাধ্যমে বছরব্যাপী এ কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করে ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় ফগার মেশিন পাঠানো হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
DeveloperAsif
themesba-lates1749691102