১১:৩৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথঃ পানি ও স্রোত বাড়ায় ফেরি পারাপারে সময় লাগছে, আটকা পড়ছে গাড়ি

রাজবাড়ীরমেইল ডেস্কঃ পদ্মা ও যমুনা নদীতে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় স্রোত বেড়েছে। এতে করে রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ও মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া নৌপথে ফেরি চলাচলে সময় লাগছে বেশি। গত তিন দিন ধরে এ অবস্থা চলায় দৌলতদিয়া ও পাটুরিয়া ঘাটে আটকা পড়ছে পণ্যবাহি গাড়ি। রোববার দৌলতদিয়া প্রান্তে কয়েকশ পণ্যবাহি গাড়ি আটকা পড়ে।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয় জানায়, তিন-চার দিন ধরে নদীতে পানি হু হু করে বাড়ছে। পানি বাড়ার সাথে নদীতে স্রোতও বেড়েছে। আর স্রোত বাড়ায় দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে চলাচলরত ফেরিগুলো আগের থেকে প্রায় ১০ থেকে ১৫ মিনিট করে সময় বেশি লাগছে। তিন দিন আগেও যেখানে একটি ফেরিকে এক ঘাট থেকে আরেক ঘাটে পৌছতে ২৫ থেকে ৩০ মিনিট সময় লাগতো।

বর্তমানে সেখানে স্রোতের বিপরিতে চলতে গিয়ে সময় লাগছে প্রায় ৩৫ থেকে ৪০ মিনিট। ফলে প্রতিটি ফেরির ট্রিপও কিছুটা কমে গেছে।
পানি বাড়ার কারণে দৌলতদিয়ার কিছু ফেরি ঘাট স্থানান্তর করা হয়েছে। ৩ নম্বর ঘাটের আপ ও ডাউনে দুইটি ঘাট থাকলেও নিচু স্তরের ঘাট স্থানান্তর করে দুই ঘাটের মাঝে একটি মধ্যম স্তরের ঘাট চালু রাখা হয়েছে। তিন দিন আগে ঘাট স্থানান্তরের কাজটি করা হয়। ওই সময় আরেকটি ঘাট বন্ধ করে সাবেক দুই নম্বর ঘাটে পন্টুন সরিয়ে রাখা হয়েছে। এ ছাড়া একই দিন প্রায় এক বছর ধরে বন্ধ থাকা ৬নম্বর ছোট ঘাটটিও চালু করা হয়েছে। বর্তমানে ৩নম্বর ঘাট, ৪, ৫ ও ৬ নম্বর ঘাট চালু রয়েছে।

এদিকে করোনা পরিস্থিতি সারাদেশে লকডাউন শীথিল হওয়ায় দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন অঞ্চলগামী যানবাহন নদী পাড়ি দিতে দৌলতদিয়ায় পৌছছে। বিপরিত দিকে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলগামী গাড়িও পাটুরিয়া ঘাটে এসে ভিড় করছে। দৌলতদিয়া ঘাটের যানবাহনের চাপ কমাতে জেলা পুলিশ গোয়ালন্দ মোড় এলাকায় আটকে রাখছে। ঘাট যানবাহন শূণ্য হলে তবেই গোয়ালন্দ মোড় থেকে গাড়ি ছেড়ে যাচ্ছে।

যশোরে জরুরী মালপত্র নামিয়ে দিয়ে শনিবার রাতেই ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা করেন কার্ভাডভ্যান চালক মুঞ্জুর হোসেন। গতকাল রোববার বেলা সাড়ে এগারটার দিকে দৌলতদিয়ার ক্যানাল ঘাট এলাকায় লাইনে আটকে থাকা অবস্থায় তিনি জানান, শনিবার মধ্যরাতের দিকে গোয়ালন্দ মোড় পৌছলে স্থানীয় পুলিশ গাড়ি আটকে দেয়। আজ সকাল নয়টার দিকে ঘাটের উদ্দেশ্যে ছেড়ে দেয়। এরকম আরো অনেক গাড়ি আটকে রাখছে। আবার দৌলতদিয়ায় পৌছে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কেও যানবাহনের লম্বা লাইনে ঘন্টার পর ঘন্টা আটকে থাকতে হচ্ছে।

রোববার দুপুরে দেখা যায়, দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের প্রায় তিন কিলোমিটার এলাকা জুড়ে পণ্যবাহি গাড়ির লাইন। কোথাও কোথাও দুই লাইনও তৈরী হয়েছে। লম্বা লাইনে পণ্যবাহি ট্রাক, কার্ভাডভ্যানসহ অন্যান্য গাড়ি রয়েছে। এ ছাড়া কিছু যাত্রীবাহি দূর পাল্লার পরিবহনও আটকে থাকতে দেখা যায়।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের সহকারী ব্যবস্থাপক মাহবুব আলী সরদার বলেন, মূলত নদীতে পানি বাড়ায় ¯্রােতও বেড়েছে। এতে ফেরি চলাচলে আগের থেকে ১০-১৫ মিনিট সময় বেশি লাগছে। যে কারণে কিছু ট্রিপ সংখ্যাও কমে এসেছে। যার ফলে ঘাটে পণ্যবাহি গাড়ির লম্বা লাইন তৈরী হচ্ছে। এ ছাড়া পণ্যবাহি গাড়ি সংখ্যা কিছুটা বেড়েছে। তবে বর্তমানে ছোট-বড় মিলে সবকটি (১৫ টি) ফেরি চালু থাকায় পরিস্থিতি অনুকূলে রয়েছে। এ ছাড়া দৌলতদিয়া প্রান্তে চারটি ফেরি ঘাট চালু রয়েছে।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথঃ পানি ও স্রোত বাড়ায় ফেরি পারাপারে সময় লাগছে, আটকা পড়ছে গাড়ি

পোস্ট হয়েছেঃ ০৯:০৯:২৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ৭ জুন ২০২০

রাজবাড়ীরমেইল ডেস্কঃ পদ্মা ও যমুনা নদীতে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় স্রোত বেড়েছে। এতে করে রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ও মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া নৌপথে ফেরি চলাচলে সময় লাগছে বেশি। গত তিন দিন ধরে এ অবস্থা চলায় দৌলতদিয়া ও পাটুরিয়া ঘাটে আটকা পড়ছে পণ্যবাহি গাড়ি। রোববার দৌলতদিয়া প্রান্তে কয়েকশ পণ্যবাহি গাড়ি আটকা পড়ে।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয় জানায়, তিন-চার দিন ধরে নদীতে পানি হু হু করে বাড়ছে। পানি বাড়ার সাথে নদীতে স্রোতও বেড়েছে। আর স্রোত বাড়ায় দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে চলাচলরত ফেরিগুলো আগের থেকে প্রায় ১০ থেকে ১৫ মিনিট করে সময় বেশি লাগছে। তিন দিন আগেও যেখানে একটি ফেরিকে এক ঘাট থেকে আরেক ঘাটে পৌছতে ২৫ থেকে ৩০ মিনিট সময় লাগতো।

বর্তমানে সেখানে স্রোতের বিপরিতে চলতে গিয়ে সময় লাগছে প্রায় ৩৫ থেকে ৪০ মিনিট। ফলে প্রতিটি ফেরির ট্রিপও কিছুটা কমে গেছে।
পানি বাড়ার কারণে দৌলতদিয়ার কিছু ফেরি ঘাট স্থানান্তর করা হয়েছে। ৩ নম্বর ঘাটের আপ ও ডাউনে দুইটি ঘাট থাকলেও নিচু স্তরের ঘাট স্থানান্তর করে দুই ঘাটের মাঝে একটি মধ্যম স্তরের ঘাট চালু রাখা হয়েছে। তিন দিন আগে ঘাট স্থানান্তরের কাজটি করা হয়। ওই সময় আরেকটি ঘাট বন্ধ করে সাবেক দুই নম্বর ঘাটে পন্টুন সরিয়ে রাখা হয়েছে। এ ছাড়া একই দিন প্রায় এক বছর ধরে বন্ধ থাকা ৬নম্বর ছোট ঘাটটিও চালু করা হয়েছে। বর্তমানে ৩নম্বর ঘাট, ৪, ৫ ও ৬ নম্বর ঘাট চালু রয়েছে।

এদিকে করোনা পরিস্থিতি সারাদেশে লকডাউন শীথিল হওয়ায় দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন অঞ্চলগামী যানবাহন নদী পাড়ি দিতে দৌলতদিয়ায় পৌছছে। বিপরিত দিকে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলগামী গাড়িও পাটুরিয়া ঘাটে এসে ভিড় করছে। দৌলতদিয়া ঘাটের যানবাহনের চাপ কমাতে জেলা পুলিশ গোয়ালন্দ মোড় এলাকায় আটকে রাখছে। ঘাট যানবাহন শূণ্য হলে তবেই গোয়ালন্দ মোড় থেকে গাড়ি ছেড়ে যাচ্ছে।

যশোরে জরুরী মালপত্র নামিয়ে দিয়ে শনিবার রাতেই ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা করেন কার্ভাডভ্যান চালক মুঞ্জুর হোসেন। গতকাল রোববার বেলা সাড়ে এগারটার দিকে দৌলতদিয়ার ক্যানাল ঘাট এলাকায় লাইনে আটকে থাকা অবস্থায় তিনি জানান, শনিবার মধ্যরাতের দিকে গোয়ালন্দ মোড় পৌছলে স্থানীয় পুলিশ গাড়ি আটকে দেয়। আজ সকাল নয়টার দিকে ঘাটের উদ্দেশ্যে ছেড়ে দেয়। এরকম আরো অনেক গাড়ি আটকে রাখছে। আবার দৌলতদিয়ায় পৌছে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কেও যানবাহনের লম্বা লাইনে ঘন্টার পর ঘন্টা আটকে থাকতে হচ্ছে।

রোববার দুপুরে দেখা যায়, দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের প্রায় তিন কিলোমিটার এলাকা জুড়ে পণ্যবাহি গাড়ির লাইন। কোথাও কোথাও দুই লাইনও তৈরী হয়েছে। লম্বা লাইনে পণ্যবাহি ট্রাক, কার্ভাডভ্যানসহ অন্যান্য গাড়ি রয়েছে। এ ছাড়া কিছু যাত্রীবাহি দূর পাল্লার পরিবহনও আটকে থাকতে দেখা যায়।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের সহকারী ব্যবস্থাপক মাহবুব আলী সরদার বলেন, মূলত নদীতে পানি বাড়ায় ¯্রােতও বেড়েছে। এতে ফেরি চলাচলে আগের থেকে ১০-১৫ মিনিট সময় বেশি লাগছে। যে কারণে কিছু ট্রিপ সংখ্যাও কমে এসেছে। যার ফলে ঘাটে পণ্যবাহি গাড়ির লম্বা লাইন তৈরী হচ্ছে। এ ছাড়া পণ্যবাহি গাড়ি সংখ্যা কিছুটা বেড়েছে। তবে বর্তমানে ছোট-বড় মিলে সবকটি (১৫ টি) ফেরি চালু থাকায় পরিস্থিতি অনুকূলে রয়েছে। এ ছাড়া দৌলতদিয়া প্রান্তে চারটি ফেরি ঘাট চালু রয়েছে।