July 6, 2022, 1:17 pm
শিরোনামঃ
তীব্র স্রোতে যানবাহন পারাপার ব্যাহত, সড়কে সিরিয়াল পাংশায় অস্ত্র, গুলি ও মাদকসহ গ্রেপ্তার দুই গোয়ালন্দে ২৩৫ বোতল ফেনসিডিল সহ গ্রেপ্তার দুই রাজবাড়ীর নিমতলা-কোলারহাট সড়কের গাছ রাতের অন্ধকারে কাটছে প্রভাবশালীরা গরু নিয়ে আমাদের আর দৌলতদিয়া ঘাটে অপেক্ষা করতে হয়না ডিবি পুলিশের অভিযানে দৌলতদিয়ায় সাত হাজার ইয়াবাসহ দুইজন গ্রেপ্তার শিক্ষক হত্যা ও লাঞ্ছনার প্রতিবাদে গোয়ালন্দে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত গোয়ালন্দের উজানচর ইউনিয়নে বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দ থানা পুলিশের পৃথক অভিযানে ইয়াবা ও হেরোইনসহ গ্রেপ্তার ৩ রাজবাড়ীতে কৃষকদের মাঝে কৃষি যন্ত্রপাতি ও পিকআপ ভ্যান বিতরন

দৌলতদিয়া-কাজিরহাট নৌপথঃ অবশেষে পুলিশ বন্ধ করে দিল অবৈধ স্পিডবোটে যাত্রী পারাপার

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, জুন ৭, ২০২০
  • 79 Time View
শেয়ার করুনঃ

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ অবশেষে রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ও পাবনার কাজিরহাট নৌপথে চলাচলরত অবৈধ স্পিডবোট চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে পুলিশ। রোববার দুপুরে গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশ দৌলতদিয়ায় গিয়ে স্পিডবোট চলাচল বন্ধ করে দেয়। সংবাদের সত্যতা নিশ্চিত করেন গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি আশিকুর রহমান।

গত ৪ জুন বৃহস্পতিবার প্রথম আলোতে ‘দৌলতদিয়া-কাজিরহাট নৌপথ অবৈধভাবে চলছে স্পিডবোট, লঙ্ঘন হচ্ছে স্বাস্থ্যবিধি’ শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এছাড়া ‘ঝুঁকি’ শিরোনামে প্রথম পৃষ্ঠায় মূল কভার ছবিও ছাপা হয়। একই সাথে রাজবাড়ী জেলার জনপ্রিয় নিউজ পোর্টাল রাজবাড়ী মেইল ডট কম এ ‘দৌলতদিয়া-কাজিরহাট নৌপথ, অবৈধভাবে চলাচল করছে স্পিডবোট, মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি” শিরোনামে লিড নিউজ প্রকাশিত হয়। এরপর জেলা পুলিশ এ পদক্ষেপ গ্রহণ করেন।

রোববার সকালে এ প্রতিবেদক দৌলতদিয়ায় দেখেন ঘাট থেকে ৯জন যাত্রী নিয়ে একটি স্পিডবোট কাজির হাটের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাচ্ছে। ঘাটে তদারকিতে থাকা কয়েকজন জানান, প্রতিবেদন প্রকাশের পর বিআইডব্লিউটিএ, নৌপুলিশ তাদের সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে যাত্রী পারাপার করতে বলেছেন। স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে যাত্রী পারাপার করছি। আগের থেকে অর্ধেক সংখ্যক যাত্রী পারাপার করছি। এতে আমাদের প্রতিদিন লোকসান গুনতে হচ্ছে। দৌলতদিয়া থেকে একবার কাজিরহাট যেতে প্রায় ৩২০০ টাকার তেল খরচ হয়। ১২জন যাত্রী নিলে ৩৬০০ টাকা ভাড়া ওঠে। এর সাথে রয়েছে চালকের বেতন, ঘাট প্রতিনিধির বেতনসহ অন্যান্য খরচ।

অভিযোগ রয়েছে, দৌলতদিয়া-কাজিরহাট নৌপথে প্রায় তিন বছর ধরে স্পিডবোটে যাত্রী বহন করা হচ্ছে। নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় বা বিআইডব্লিউটিএর অনুমোদন নেই। করোনাভাইরাসে সংক্রমণ রোধে স্বাস্থ্যবিধি মানার কথা বলা হলেও যাত্রীরা গাদাগাদি করে আসা যাওয়া করছিল। অতিরিক্ত ভাড়া আদায়েরও অভিযোগ উঠেছে। দৌলতদিয়ার ৬টি ও কাজিরহাট থেকে ৩টি স্পিডবোট নিয়মিত যাত্রী পারাপার করতো। যাত্রী পারাপারের টিকিট জনপ্রতি ২৫০ টাকা ভাড়া লেখা থাকলেও ৩০০ টাকা করে আদায় করছিল। করোনায় বেশ কিছু দিন নৌযান বন্ধের সাথে স্পিডবোর্ট বন্ধ ছিল। নৌযান চালুর সাথে স্পিডবোটে যাত্রী আনা নেয়া শুরু করে। যাত্রীদের নিরাপত্তার স্বার্থে লাইফ জ্যাকেট পরার কথা বলা হলেও বাস্তবে নেই। করোনাসংক্রমণ রোধে যানবাহনে যাত্রী বহনে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে বলা হলেও এখানে মানা হচ্ছিলনা। ২০ থেকে ২২ মিনিটে দৌলতদিয়া থেকে কাজিরহাট পৌছানো সম্ভব হওয়ায় অনেকে স্পিডবোটে যাতায়াত করে।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আশিকুর রহমান বলেন, পুলিশ সুপারের নির্দেশে বর্ষার পানিতে নদী ভরে যাওয়ায় স্রোত বেড়েছে। এই রুটে স্পিডবোট চলাচলের কোন অনুমোদনও নেই। অবৈধভাবে স্পিডবোট চলাচল করছিল। প্রথম আলো এবং অনলাইন নিউজ পোর্টাল রাজবাড়ী মেইল ডট কমসহ একাধিক গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশিত হলে পুলিশ সুপারের দ্রুত বন্ধ করার নির্দেশ দেন। লাইফ জ্যাকেট ছাড়া যাত্রী পারাপার করায় দুর্ঘটনা এড়াতে স্পিডবোট বন্ধ করে তাদেরকে কাগজপত্র থাকলে দেখাতে বলেছি।

ওসি আরো জানান, শুধু স্পিডবোট নয়, গোয়ালন্দ পৌরসভা এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে অনিয়মতান্ত্রিক উপায়ে বিভিন্ন যানবাহন থেকে রশিদের বিনিময়ে টাকা আদায় করা হতো। পৌর পার্কিংয়ের নামে বিভিন্ন যানবাহন থেকে নিয়মিত টাকা আদায় করে ভাগাভাগি করে নিত। পুলিশ সুপারের নির্দেশে রোববার সকাল থেকে এ টাকা আদায়ও বন্ধ করে দিয়েছে। দৌলতদিয়া ঘাটে অবস্থিত কুষ্টিয়া ও ফরিদপুর বাস কাউন্টারে শ্রমিকদের নামে পরিবহন থেকে নির্দিষ্ট অংকে টাকা আদায় করতো শ্রমিক ইউনিয়নের লোকজন। শনিবার রাত থেকে এসব কাউন্টারে টাকা আদায়ও বন্ধ করে দিয়েছি।

পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান রাজবাড়ীমেইলকে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে অবৈধভাবে স্পিডবোট চলাচলের বিষয় দেখভালের দায়িত্ব নৌপুলিশের। এ ধরনের প্রতিবেদন প্রকাশিত হলে নিজেদের দায়বদ্ধতার জায়গা থেকে ওসিকে বন্ধ করে দিতে বলেছি। জেলার সকল পৌরসভায় পার্কিং চার্জের নামে যানবাহন থেকে টাকা আদায় এবং ঘাটে কাউন্টার থেকে শ্রমিক সংগঠনের নামে প্রতি গাড়ি থেকে টাকা আদায়ও বন্ধ করে দিয়েছি। প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দেখাতে পারলে বিষয়টি বিবেচনা করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
DeveloperAsif
themesba-lates1749691102
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x