০৪:৫৯ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে কৃষি জমিতে আগাছা, ফলন বিপর্যয়ের আশঙ্কা

ইমরান হোসেন মনিমঃ রাজবাড়ী জেলাটি কৃষি নির্ভর একটি জেলা। এ জেলায় সব ধরনের কৃষি পণ্য উৎপাদন হয়ে থাকে। বর্তমানে কৃষি জমি গুলেঅতে সোনালী আঁশ পাট, তিল এবং বোনা আমন ধানের আবাদ হয়েছে মাঠে। আবাদী এ জমি গুলোতে প্রচুর পরিমানে আগাছা ও ঘাসের কারনে পাট, তিল ও বোনা আমন ধানের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। অতি বৃষ্টির কারনে আবাদী এ জমি গুলোতে অতি মাত্রায় আগাছার জন্ম হয়েছে।

আর আগাছার কারনে আবাদী ফসলের ব্যাপক ভাগে ফলন বিপর্যয়ের আশঙ্কা করছেন কৃষকেরা। একদিকে শ্রমিক সংকট অন্যদিকে অর্থাভাবে তারা সময় মত এ জমির আগাছা দমন করতে পারছেন না বলে জানান। কোন ধরনের কৃষি সাহাজ্য সহযোগীতা না পাওয়ার অভিযোগও করেন কৃষকেরা।

রাজবাড়ীর ৫টি উপজেলাতে পাট, তিল ও বোনা আমন ধান আবাদ হয়েছে। আবাদী জমিতে ফসলের চাইতে আগাছাই জন্মেছে বেশি। আগাছা গুলো দেখলে মনে হবে সুন্দর ফসল জন্মেছে অথচ কৃষক যেভাবে আগাছা ক্ষেত থেকে তুলে ফেলছেন দেখে মনে হচ্ছে ঘন হওয়ার কারনে এসব ফসল কৃষক ইচ্ছে করে তুলে ফেলছেন। অথচ এসবই ক্ষেতে জন্মানো ঘাস ও আগাছা। যা ক্ষেতে আবাদী ফসলের ব্যাপকভাবে ক্ষতি করছে। অতি বৃষ্টিপাতের কারনে এবছর রাজবাড়ীতে পাট, তিল ও বোনা আমন ধানের ক্ষেতে আগাছা ও ঘাসের কারনে ফলন বিপর্যয়ের আশঙ্কা করছেন কৃষকেরা। অনেক ফসলি ক্ষেতের ফসল এরই মধ্যে মরে গেছে। বর্তমান কোন আয় না থাকায় এবং শ্রমিক না পওয়ায় তারা আবাদী ক্ষেতের আগাছা ও ঘাস ধমন করতে পারছেন না। অর্থাভাবে নিজের ক্ষেতের ফসল নিজেকেই পরিচ্ছন্ন করতে হচ্ছে। এতে ফসলী জমির আগাছা দমনে সময় নষ্ট হচ্ছে। আর সঠিক সময়ে পরিচর্যা না করতে পেরে ফসলের ব্যপক ক্ষতি হচ্ছে।

সদর উপজেলার পাঁচুরিয়া ইউনিয়নের ব্রাম্মনদিয়া গ্রামের কৃষক আব্দুল মান্নান তালুকদার ও তোফাজ্জল হোসেন ভূইয়া, নুর ইসলাম বলেন, তারা অর্থ ব্যায় করে পাট এবং তিল আবাদ করেছেন। কিন্তু আবাদী এ ক্ষেতে প্রচুর পরিমানে আগাছা ও ঘাসের কারনে ফসল গুলো নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে। যে পরিমান খরচ হয়েছে ফসল আবাদে তার চেয়ে বেশি অর্থ ব্যায় হওয়ার কথা বলেন ফসলী ক্ষেতের আগাছা পরিস্কার করেেত। অথচ এ সময়ে তারা ক্ষেতের এ আগাছা পরিচ্ছন্ন করতে তাদের অর্থের কোন ধরনের যোগান নেই। তাই কৃষি অফিসের সহযোগীতা এখন প্রয়োজন বলে মনে করনে। ফসলেও চাইতে এখন শ্রমিকের মজুরিই বেশি। একদিকে শ্রমিক সংকট অন্যদিকে শ্রমিকের অত্যাধিক মজুরীর কারনে ফসলী জমির আগাছা সঠিক সময়ে তুলতে পারছেন না। এতে মারাত্বকভাবে ফলন বিপর্যয়ের সম্ভাবনা দেখছেন তারা।

রাজবাড়ী জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক গোপাল কৃষ্ণ দাস বলেন, রাজবাড়ীতে এ বছর ৪৬ হাজার ৪৪৩ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে। তিলের আবাদ হয়েছে ৫ হাজার ২৫০ হেক্টর এবং এ পর্যন্ত আউশ ধানের আবাদ হয়েছে প্রায় দের হাজার ৫০ হেক্টর জমিতে, আরো আবাদ বর্তমানে চলছে। তবে কৃষকদের পাট, তিল ও আউশ ধান আবাদী জমিতে আগাছা ও ঘাস জন্মেছে প্রচুর পরিমানে। তবে এ জেলা থেকে ধান কাটতে শ্রমিকেরা অন্য জেলাতে যাওয়ায় শ্রমিক কিছুটা সংকট দেখা দিয়েছে। তারা জেলায় ফিরে আসলে পাট, তিল ও ধান ক্ষেতের আগাছা চাষিরা পরিচ্ছন্ন করতে পারবে। বর্তমানে তাদের সহযোগীতায় কৃষি অফিসের কোন ধরনের প্রনোদনা নেই বলেও জানান তিনি।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

রাজবাড়ীতে কৃষি জমিতে আগাছা, ফলন বিপর্যয়ের আশঙ্কা

পোস্ট হয়েছেঃ ০৫:১৪:১২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৫ জুন ২০২০

ইমরান হোসেন মনিমঃ রাজবাড়ী জেলাটি কৃষি নির্ভর একটি জেলা। এ জেলায় সব ধরনের কৃষি পণ্য উৎপাদন হয়ে থাকে। বর্তমানে কৃষি জমি গুলেঅতে সোনালী আঁশ পাট, তিল এবং বোনা আমন ধানের আবাদ হয়েছে মাঠে। আবাদী এ জমি গুলোতে প্রচুর পরিমানে আগাছা ও ঘাসের কারনে পাট, তিল ও বোনা আমন ধানের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। অতি বৃষ্টির কারনে আবাদী এ জমি গুলোতে অতি মাত্রায় আগাছার জন্ম হয়েছে।

আর আগাছার কারনে আবাদী ফসলের ব্যাপক ভাগে ফলন বিপর্যয়ের আশঙ্কা করছেন কৃষকেরা। একদিকে শ্রমিক সংকট অন্যদিকে অর্থাভাবে তারা সময় মত এ জমির আগাছা দমন করতে পারছেন না বলে জানান। কোন ধরনের কৃষি সাহাজ্য সহযোগীতা না পাওয়ার অভিযোগও করেন কৃষকেরা।

রাজবাড়ীর ৫টি উপজেলাতে পাট, তিল ও বোনা আমন ধান আবাদ হয়েছে। আবাদী জমিতে ফসলের চাইতে আগাছাই জন্মেছে বেশি। আগাছা গুলো দেখলে মনে হবে সুন্দর ফসল জন্মেছে অথচ কৃষক যেভাবে আগাছা ক্ষেত থেকে তুলে ফেলছেন দেখে মনে হচ্ছে ঘন হওয়ার কারনে এসব ফসল কৃষক ইচ্ছে করে তুলে ফেলছেন। অথচ এসবই ক্ষেতে জন্মানো ঘাস ও আগাছা। যা ক্ষেতে আবাদী ফসলের ব্যাপকভাবে ক্ষতি করছে। অতি বৃষ্টিপাতের কারনে এবছর রাজবাড়ীতে পাট, তিল ও বোনা আমন ধানের ক্ষেতে আগাছা ও ঘাসের কারনে ফলন বিপর্যয়ের আশঙ্কা করছেন কৃষকেরা। অনেক ফসলি ক্ষেতের ফসল এরই মধ্যে মরে গেছে। বর্তমান কোন আয় না থাকায় এবং শ্রমিক না পওয়ায় তারা আবাদী ক্ষেতের আগাছা ও ঘাস ধমন করতে পারছেন না। অর্থাভাবে নিজের ক্ষেতের ফসল নিজেকেই পরিচ্ছন্ন করতে হচ্ছে। এতে ফসলী জমির আগাছা দমনে সময় নষ্ট হচ্ছে। আর সঠিক সময়ে পরিচর্যা না করতে পেরে ফসলের ব্যপক ক্ষতি হচ্ছে।

সদর উপজেলার পাঁচুরিয়া ইউনিয়নের ব্রাম্মনদিয়া গ্রামের কৃষক আব্দুল মান্নান তালুকদার ও তোফাজ্জল হোসেন ভূইয়া, নুর ইসলাম বলেন, তারা অর্থ ব্যায় করে পাট এবং তিল আবাদ করেছেন। কিন্তু আবাদী এ ক্ষেতে প্রচুর পরিমানে আগাছা ও ঘাসের কারনে ফসল গুলো নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে। যে পরিমান খরচ হয়েছে ফসল আবাদে তার চেয়ে বেশি অর্থ ব্যায় হওয়ার কথা বলেন ফসলী ক্ষেতের আগাছা পরিস্কার করেেত। অথচ এ সময়ে তারা ক্ষেতের এ আগাছা পরিচ্ছন্ন করতে তাদের অর্থের কোন ধরনের যোগান নেই। তাই কৃষি অফিসের সহযোগীতা এখন প্রয়োজন বলে মনে করনে। ফসলেও চাইতে এখন শ্রমিকের মজুরিই বেশি। একদিকে শ্রমিক সংকট অন্যদিকে শ্রমিকের অত্যাধিক মজুরীর কারনে ফসলী জমির আগাছা সঠিক সময়ে তুলতে পারছেন না। এতে মারাত্বকভাবে ফলন বিপর্যয়ের সম্ভাবনা দেখছেন তারা।

রাজবাড়ী জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক গোপাল কৃষ্ণ দাস বলেন, রাজবাড়ীতে এ বছর ৪৬ হাজার ৪৪৩ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে। তিলের আবাদ হয়েছে ৫ হাজার ২৫০ হেক্টর এবং এ পর্যন্ত আউশ ধানের আবাদ হয়েছে প্রায় দের হাজার ৫০ হেক্টর জমিতে, আরো আবাদ বর্তমানে চলছে। তবে কৃষকদের পাট, তিল ও আউশ ধান আবাদী জমিতে আগাছা ও ঘাস জন্মেছে প্রচুর পরিমানে। তবে এ জেলা থেকে ধান কাটতে শ্রমিকেরা অন্য জেলাতে যাওয়ায় শ্রমিক কিছুটা সংকট দেখা দিয়েছে। তারা জেলায় ফিরে আসলে পাট, তিল ও ধান ক্ষেতের আগাছা চাষিরা পরিচ্ছন্ন করতে পারবে। বর্তমানে তাদের সহযোগীতায় কৃষি অফিসের কোন ধরনের প্রনোদনা নেই বলেও জানান তিনি।