১২:২৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

অন্য সম্প্রদায়ের দরিদ্র কৃষকের ধান কেটে দিল ইসলামী আন্দোলন

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ হিন্দু-মুসলিম ভাই, ভাই, কারো সাথে বিরোধ নাই। এমন শ্লোগানে সম্প্রীতির বন্ধনের বহিপ্রকাশ ঘটেছে আজ বৃহস্পতিবার রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ নামের সংগঠনের উদ্যোগে গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ও উজানচর ইউনিয়নের দরিদ্র কয়েক কৃষকের পাকা ধান স্বেচ্ছা শ্রমের ভিত্তিতে কেটে দিয়েছেন।

করোনার কারণে সারাদেশের অনেকে অসহায় হয়ে পড়েছেন। বিশেষ করে শ্রমজীবী মানুষের অভাবে অনেক কৃষি কাজ করতে বিঘœ সৃষ্টি হচ্ছে। মাঠের পর মাঠ পাকা ধান জমিতে পড়ে থাকলেও শ্রমিকের অভাবে অনেকটা খেতেই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এমন অসহায় কৃষকের কথা ভেবে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে রাজবাড়ী জেলা শাখার তত্বাবধানে ধানা কেটে বাড়ি পৌছে দেওয়ার কর্মসূচি হাতে নেই। বৃহস্পতিবার রাজবাড়ী জেলা ও গোয়ালন্দ উপজেলা শাখার সংগঠনের প্রায় ৭০ জন স্বেচ্ছাসেবক গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া ও উজানচর ইউনিয়নের বিভিন্ন কৃষকের ধান কেটে তাঁর বাড়ি পৌছে দেয়।

এসময় সংগঠনের নেতা মাওলানা মুফতি ইফতেখার উদ্দিন, হাফেজ মো. রহমত উল্লাহ, মাওলানা ক্বারী আবু ইউসুফ, মাওলানা আমিনুল ইসলাম কাসেমী, হাফেজ মো. সাব্বির হোসাইন, আবুল হাসান, কোরবান আলী, আবুল বাশার প্রমূখ সহ ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন, যুব আন্দোলন, শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের নেতাকর্মীরা অংশ গ্রহণ করেন। গোয়ালন্দের পাশাপাশি রাজবাড়ী ও ফরিদপুর জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকেও স্বেচ্ছাসেবকরা অংশ গ্রহণ করেন।

উপজেলার উজানচর ইউনিয়নের মাখনরায় পাড়া গ্রামের কাঠমিস্ত্রি ভৈরব সরকার বর্তমানে কাজ না থাকায় বাড়িতে বসে আছেন। ১০ কাঠা জমিতে ইরি-২৯ জাতের ধান রোপন করেন। খেতের সমস্ত ধান পাকলেও শ্রমিক খুঁজে পাচ্ছিলেন না। বৃহস্পতিবার সকালে পাশের দৌলতদিয়ার তোমছের মাতুব্বর পাড়ায় একদল স্বেচ্ছাসেবক কৃষক আব্বাস উদ্দিনের পাকা ধান কেটে দিচ্ছেন খবর পেয়ে তিনি ছুটে যান। দলীয় নেতা জাতীয় ওলামা মাসায়েক আয়েম্মা পরিষদ জেলা শাখার সাবেক আহ্বায়ক মাওলানা অমিনুল ইসলাম কাসেমীকে অবগত করলে তিনি দ্রুততার সাথে আব্বাছ উদ্দিনের ২ বিঘা জমির ধান কাটা শেষে ভৈরবের ধান কাটার নির্দেশনা দেন।

ভৈরব সরকার বলেন, আমি খেতের পাকা ধান নিয়ে অনেকটা বেকায়দায় ছিলাম। কারণ এই জমির ধান কাটা শেষ করে ফেল ইরি-৪৮ জাতের ধান রোপনের জন্য চারা রোপন করেছি। কিন্তু শ্রমিক পাচ্ছিলাম না। এমন সময় ইসলামী আন্দোলন এর স্থানীয় নেতা কোরবান আলীর মাধ্যমে তাদের সাথে যোগাযোগ করলে তারা আমার ধান কেটে বাড়ি পৌছে দেয়। আমি অন্য সম্প্রদায়ের হলেও তাঁদের এমন মহানুভবতার কাছে পরাজিত হয়েছি। আমার পাশের এমন আরো একজনের ধান কেটে দিয়েছেন।

মাওলানা আমিনুল ইসলাম বলেন, দৌলতদিয়ার কৃষক আব্বাস উদ্দিনের ২ বিঘা, আবু হানিফের ১ বিঘা, সোনা মদ্দিনের ১ বিঘার পাকা ধান কেটে দিয়েছি। এছাড়া উজানচরের কৃষক ভৈরব সরকারের ১০ কাঠাসহ পাশের আরো এক কৃষকের কিছু ধান কেটে তাদের বাড়ি পৌছে দিয়েছি। এখানে হিন্দু-মসুলমান আমরা সবাই মানুষ। এই করোনায় কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে আমরা অসহায় কৃষকের পাকা ধান কেটে বাড়ি পৌছে দিচ্ছি।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

অন্য সম্প্রদায়ের দরিদ্র কৃষকের ধান কেটে দিল ইসলামী আন্দোলন

পোস্ট হয়েছেঃ ০৫:২৫:১৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ জুন ২০২০

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ হিন্দু-মুসলিম ভাই, ভাই, কারো সাথে বিরোধ নাই। এমন শ্লোগানে সম্প্রীতির বন্ধনের বহিপ্রকাশ ঘটেছে আজ বৃহস্পতিবার রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ নামের সংগঠনের উদ্যোগে গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ও উজানচর ইউনিয়নের দরিদ্র কয়েক কৃষকের পাকা ধান স্বেচ্ছা শ্রমের ভিত্তিতে কেটে দিয়েছেন।

করোনার কারণে সারাদেশের অনেকে অসহায় হয়ে পড়েছেন। বিশেষ করে শ্রমজীবী মানুষের অভাবে অনেক কৃষি কাজ করতে বিঘœ সৃষ্টি হচ্ছে। মাঠের পর মাঠ পাকা ধান জমিতে পড়ে থাকলেও শ্রমিকের অভাবে অনেকটা খেতেই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এমন অসহায় কৃষকের কথা ভেবে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে রাজবাড়ী জেলা শাখার তত্বাবধানে ধানা কেটে বাড়ি পৌছে দেওয়ার কর্মসূচি হাতে নেই। বৃহস্পতিবার রাজবাড়ী জেলা ও গোয়ালন্দ উপজেলা শাখার সংগঠনের প্রায় ৭০ জন স্বেচ্ছাসেবক গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া ও উজানচর ইউনিয়নের বিভিন্ন কৃষকের ধান কেটে তাঁর বাড়ি পৌছে দেয়।

এসময় সংগঠনের নেতা মাওলানা মুফতি ইফতেখার উদ্দিন, হাফেজ মো. রহমত উল্লাহ, মাওলানা ক্বারী আবু ইউসুফ, মাওলানা আমিনুল ইসলাম কাসেমী, হাফেজ মো. সাব্বির হোসাইন, আবুল হাসান, কোরবান আলী, আবুল বাশার প্রমূখ সহ ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন, যুব আন্দোলন, শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের নেতাকর্মীরা অংশ গ্রহণ করেন। গোয়ালন্দের পাশাপাশি রাজবাড়ী ও ফরিদপুর জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকেও স্বেচ্ছাসেবকরা অংশ গ্রহণ করেন।

উপজেলার উজানচর ইউনিয়নের মাখনরায় পাড়া গ্রামের কাঠমিস্ত্রি ভৈরব সরকার বর্তমানে কাজ না থাকায় বাড়িতে বসে আছেন। ১০ কাঠা জমিতে ইরি-২৯ জাতের ধান রোপন করেন। খেতের সমস্ত ধান পাকলেও শ্রমিক খুঁজে পাচ্ছিলেন না। বৃহস্পতিবার সকালে পাশের দৌলতদিয়ার তোমছের মাতুব্বর পাড়ায় একদল স্বেচ্ছাসেবক কৃষক আব্বাস উদ্দিনের পাকা ধান কেটে দিচ্ছেন খবর পেয়ে তিনি ছুটে যান। দলীয় নেতা জাতীয় ওলামা মাসায়েক আয়েম্মা পরিষদ জেলা শাখার সাবেক আহ্বায়ক মাওলানা অমিনুল ইসলাম কাসেমীকে অবগত করলে তিনি দ্রুততার সাথে আব্বাছ উদ্দিনের ২ বিঘা জমির ধান কাটা শেষে ভৈরবের ধান কাটার নির্দেশনা দেন।

ভৈরব সরকার বলেন, আমি খেতের পাকা ধান নিয়ে অনেকটা বেকায়দায় ছিলাম। কারণ এই জমির ধান কাটা শেষ করে ফেল ইরি-৪৮ জাতের ধান রোপনের জন্য চারা রোপন করেছি। কিন্তু শ্রমিক পাচ্ছিলাম না। এমন সময় ইসলামী আন্দোলন এর স্থানীয় নেতা কোরবান আলীর মাধ্যমে তাদের সাথে যোগাযোগ করলে তারা আমার ধান কেটে বাড়ি পৌছে দেয়। আমি অন্য সম্প্রদায়ের হলেও তাঁদের এমন মহানুভবতার কাছে পরাজিত হয়েছি। আমার পাশের এমন আরো একজনের ধান কেটে দিয়েছেন।

মাওলানা আমিনুল ইসলাম বলেন, দৌলতদিয়ার কৃষক আব্বাস উদ্দিনের ২ বিঘা, আবু হানিফের ১ বিঘা, সোনা মদ্দিনের ১ বিঘার পাকা ধান কেটে দিয়েছি। এছাড়া উজানচরের কৃষক ভৈরব সরকারের ১০ কাঠাসহ পাশের আরো এক কৃষকের কিছু ধান কেটে তাদের বাড়ি পৌছে দিয়েছি। এখানে হিন্দু-মসুলমান আমরা সবাই মানুষ। এই করোনায় কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে আমরা অসহায় কৃষকের পাকা ধান কেটে বাড়ি পৌছে দিচ্ছি।