September 25, 2021, 4:02 pm
Title :
রাজবাড়ীতে পদ্মার গর্ভে বিলীন চরনিসিলিমপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন সংবাদ সম্মেলন জেলা আ.লীগের সভাপতি প্রার্থীতা ঘোষনা দিলেন সাংসদ কাজী কেরামত রাজবাড়ীতে বাইসাইকেল পেলো ৯৮ গ্রাম পুলিশ গোয়ালন্দে মাদক সেবনকারী ৫ ব্যাক্তিকে ৩ মাস করে কারাদণ্ড প্রদান পাংশায় মাছ ধরতে গিয়ে নিখোঁজের দুই দিন পর যুবকের লাশ উদ্ধার রাজবাড়ীতে বিদুৎ স্পর্শে ইলেকট্রিক মিস্ত্রির মৃত্যু রাজবাড়ীতে আ.লীগের বর্ধিত সভাঃ ‘দলকে শক্তিশালী করতে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান’ গোয়ালন্দে ভ্রাম্যমাণ আদালত কতৃক মুরগীর খামারীকে জরিমানা প্রয়াত নুরু মন্ডলের মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া মাহ্ফিল ও স্বরণ সভা রাজবাড়ীতে স্বপ্নচূড়া’র আয়োজনে শাহ আব্দুল করিমে’র মৃত্যু বার্ষিকী পালিত

দৌলতদিয়া-কাজিরহাট নৌপথঃ অবৈধভাবে চলাচল করছে স্পীডবোট, মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, জুন ৪, ২০২০
  • 31 Time View
শেয়ার করুনঃ

বিশেষ প্রতিনিধিঃ রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ও পাবনার কাজিরহাট নৌপথে প্রায় তিন বছর ধরে অবৈধভাবে স্পীডবোটে যাত্রী পারাপার করা হচ্ছে। নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় বা বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরবিহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) এর অনুমোদন নেই। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে স্বাস্থ্যবিধি মানার কথা বলা হলেও যাত্রীরা গাদাগাদি করেই আসা যাওয়া করছে। এছাড়া অতিরিক্ত ভাড়া আদায়েরও অভিযোগ উঠেছে।

ঘাট সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, প্রতিদিন দৌলতদিয়া ঘাট থেকে ৬টি ও কাজির হাট ঘাট থেকে ৩টি স্পীড নিয়মিত যাত্রী পারাপার করছে। স্থানীয়ভাবে যাত্রী পারাপারের টিকিট ছাপিয়ে জনপ্রতি ২৫০ টাকা ভাড়া লেখা রয়েছে। করোনার কারণে বেশ কিছু দিন অন্যান্য নৌযান বন্ধের সাথে স্পীডবোর্ট চলাচল বন্ধ ছিল। নৌযান চালুর পর থেকে স্পীডবোটে পুরোদমে যাত্রী আনা নেয়া শুরু করেছে। টিকিটের গায়ে যাত্রীদের নিরাপত্তার স্বার্থে লাইফ জ্যাকেট পরার কথা বলা হলেও বাস্তবে তেমন নেই। করোনার সংক্রমণ রোধে বিভিন্ন ধরনের যানবাহনে যাত্রী বহনে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে বলা হলেও এখানে মানা হচ্ছে না। ২০ থেকে ২২ মিনিটে দৌলতদিয়া থেকে কাজির হাট পৌছানো সম্ভব হওয়ায় অনেকে স্পীডবোটে যাতায়াত করে থাকে।

দৌলতদিয়া ঘাটে দেখা যায়, লঞ্চ ঘাটের পাশেই স্পীডবোটে যাত্রী ওঠানামা করা হয়। কাজির হাট থেকে আসা একটি স্পীডবোট দৌলতদিয়ায় ভিড়লে তাতে ২০ জন যাত্রী বহন করতে দেখা যায়। ধারণ ক্ষমতা ২৫জন হলেও ২০জন যাত্রী বহনের পাশাপাশি জনপ্রতি ২৫০ টাকার পরিবর্তে ভাড়া ৩০০ টাকা করে আদায় করা হচ্ছে। স্পীডবোট চালকের মাথায় বিশেষ টুপি ও হাতে হ্যান্ডগ্লাভস ব্যবহার করতে দেখা যায়। কয়েকজন যাত্রীর মুখে মাস্ক থাকলেও অনেকের মুখে মাস্ক বা হ্যান্ডগ্লাভস ছিলনা। এছাড়া একজনের সাথে আরেকজনকে গা ঘেঁসে বসে থাকতে দেখা যায়।

স্পীডবোট চালক কাজির হাটের বকুল সরদার বলেন, পাবনার রুপপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এই বোটের মালিক। তিনি প্রতিদিনের বেতনভুক্ত চালক। ঘাট ছাড়ার আগে যাত্রীদের হাত ধুইয়ে, জীবাণুনাশক স্প্রে করে তবেই বোটে ওঠানো হয়। এছাড়া ২৫-২৬জন যাত্রী বহন করা গেলেও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে কম তুলে আনা হচ্ছে।

বোটে এত যাত্রী বহনে সামাজিক দূরত্ব কতটুকো বজায় থাকলো জানতে চাইলে বলেন, অনেকদিন পর বোট চালু হওয়ায় যাত্রী বেশি হচ্ছে। আপনাদের চলাচলের অনুমোদন, বোট চালানোর ড্রাইভিং লাইসেন্স আছে কি না জানতে চাইলে বলেন, মালিকপক্ষ ভালো বলতে পারবেন। আমার লাইসেন্সের জন্য অনেক আগেই কাগজপত্র জমা দিয়েছে। এখনো কোন অনুমোদন পাইনি। তাহলে কোন দুর্ঘটনা ঘটলে এর দায়ভার কে নিবে? এমন প্রশ্নের জবাব তিনি দিতে পারেননি।

দৌলতদিয়া ঘাট এলাকার একটি স্পিডবোটের মালিক কাদের ব্যাপারী সাংবাদিকদের বলেন, প্রায় তিন বছর ধরে আমরা এই নৌ-রুটে স্পিড বোট চালাচ্ছি। আমাদের কোন বৈধ কাগজ পত্র নেই। তবে জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করেছি ।

দৌলতদিয়ায় যাত্রী পারাপারে টিকিট দেয়ার দায়িত্বরত মালিকপক্ষের প্রতিনিধি নুরুল ইসলাম বলেন, স্থানীয় বিভিন্ন ব্যক্তির ৬টি বোট রয়েছে। তাদের প্রতিনিধি হিসেবে আমি দায়িত্ব পালন করছি। নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন রয়েছে বলে জানি। স্বাস্থ্যবিধি মানতে হাত ধুইয়ে ও জীবাণুনাশক স্প্রে করেই যাত্রী তুলছি। এমনকি ২৫-২৬ জন যাত্রীর স্থানে অর্ধেক যাত্রী তুলছি। বিভিন্ন যানবাহন ভাড়া প্রায় দ্বিগুন হলেও আমরা ২৫০ টাকার পরিবর্তে মাত্র ৫০ টাকা বাড়িয়ে ৩০০ টাকা করে নিচ্ছি।

লঞ্চ ঘাটে কর্মরত বিআইডব্লিউটিএ’র ট্রাফিক পরিদর্শক আফতাব উদ্দিন বলেন, দৌলতদিয়া-কাজিরহাট নৌপথে স্পীডবোটে অবৈধভাবে যাত্রী পারাপার করছে। নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন নিতে অনুরোধ করেছি। করোনায় নৌযান বন্ধের আগেও বলেছি। জানামতে এখনো অনুমোদন পাননি। যাত্রী বহনে স্বাস্থ্যবিধি এবং সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার অনুরোধ করেছি। অনুমোদন ছাড়া কিভাবে যাত্রী বহন করছে জানতে চাইলে বলেন, এক-দুইদিনের মধ্যে আবারও খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনী ব্যবস্থা নিব। এছাড়া নৌপুলিশের দেখভালের কথা রয়েছে।

জানতে চাইলে দৌলতদিয়া নৌপুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মুন্নাফ আলী রাজবাড়ীমেইলকে বলেন, স্পীডবোট চলাচলের বিষয়টি বিআইডব্লিউটিএর দেখার কথা। ঘাটে সামাজিক দূরত্ব বজায় না রাখা বা আইনশৃঙ্খলার বিষয়টি আমরা দেখবো। এরপরও এ বিষয়ে খোঁজ খবর নিব।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102