December 3, 2021, 1:06 am

গোয়ালন্দে এবার করোনাভাইরাসে একই গ্রামের ১০ জন আক্রান্ত, মোট আক্রান্ত ১৯

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, জুন ৩, ২০২০
  • 62 Time View
শেয়ার করুনঃ

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে এবার একই গ্রামের ১০ জন করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ৫ জন নারী, ১ জন কিশোরী ও ৪ জন পুরুষ রয়েছেন। ৩০ মে উজানচর ইউনিয়নের নবুওছিমদ্দিন পাড়ার ৫৩ জনের কাছ থেকে করোনার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল। সংবাদের সত্যতা নিশ্চিত করেন উপজেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগ। এর আগে ওই গ্রামের এক কিশোর করোনা শনাক্ত হলে ২৯ মে তাকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে পাঠানো হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ জানান, উজানচর ইউনিয়নের (ইউপি) নবুওছিমদ্দিন পাড়ার এক কিশোরের (১৭) করোনা শনাক্ত হলে ২৯ মে তাকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরদিন ৩০ মে ওই পরিবারসহ গ্রামের ৫৩জনের কাছ থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়। আজ বুধবার (৩ জুন) বিকেলে করোনার ফলাফল আসলে ১০ জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়। ওই পরিবারের ২জন সহ পাশের বাড়ির ৪ জন এবং গ্রামের আরো ৪ জন রয়েছেন। এরমধ্যে ৫ জন নারী, ১ জন কিশোরী এবং বাকি ৪ জন পুরুষ রয়েছেন। আমরা এখন গ্রামটিকে লকডাউন করার চিন্তা করছি।

স্বাস্থ্য কমকর্তা আরো জানান, ঈদের আগে ওই কিশোরের জ¦র, শর্দি, কাঁশিসহ করোনার উপসর্গ দেখা দেয়। পরিবার থেকে জোরপূর্বক ঈদের দিন তাকে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। ঈদের পরদিন আবার পরিবারের লোকজন হাসপাতাল থেকে কিশোরকে রিলিজ নিয়ে যায়। এরপর তাদের বাড়িতে নমুনা সংগ্রহ করতে গেলে তাদের আপত্তিতে অনেকটা জোরপূর্বক তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। ওই দিন গোয়ালন্দ ঘাট থানার ২২ পুলিশ সদস্যসহ ২৪ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। ২৯ মে বিকেলে ওই তরুণ করোনা পজিটিভ ও বাকিদের নেগেটিভ খবর আসে। ঈদের আগের দিন আরো ১০ পুলিশ সদস্যের নমুনা নেওয়া হয়। তাদেরও প্রত্যেকের নেগেটিভ আসে।

এর আগে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) এর দৌলতদিয়ায় কর্মরত পাঁচ কর্মী, তাঁদের আবাসিক মেসের সহকারী (বুয়া), এক কিশোরীসহ ৭জন করোনা পজেটিভ শনাক্ত হন। তারা প্রত্যেকে সুস্থ্য হয়ে নিজ এলাকায় ফিরে যান। এ নিয়ে গোয়ালন্দে মোট ১৯ জন করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। এরমধ্যে ৮জন সুস্থ্য হয়ে বাড়িতে ফিরে গেছেন।

নবুওছিমদ্দিন পাড়া গ্রামের কয়েকজন জানান, ঈদের চারদিন আগে গ্রামের খোরশেদ বেপারীর স্ত্রীসহ তিন ছেলে নারায়ণগঞ্জ থেকে গ্রামের বাড়িতে আসে। এসময় তাদের প্রত্যেকের শরীরে জ্বর, শর্দিসহ করোনার উপসর্গ ছিল। দুইদিন পর খোরশেদ বেপারীর স্ত্রী মারা যান। এরপরও তারা কেউ করোনার নমুনা দেননি। পরিবারের লোকজন ২৯ মে শুক্রবার বাড়িতে এলাকাবাসীকে সাথে নিয়ে কুলখানির আয়োজন করে। ওই দিন বিকেলে পরিবারের সন্তান কিশোরের করোনা পজিটিভ আসে।

এ প্রসঙ্গে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলু রাজবাড়ীমেইলকে বলেন, নবুওছিমদ্দিন পাড়ার ওই পরিবারসহ নতুন আক্রান্ত ১০ ব্যক্তিকে বাড়িতে রেখে আইসোলেশনের মাধ্যমে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। ওই সব পরিবারের দেখভাল করতে ইতিমধ্যে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আক্রান্তদের প্রয়োজনীয় ঔষুধ এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য সামগ্রী হাসপাতালের মাধ্যমে দেওয়া হবে। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদেরকে খাদ্য সহায়তাও প্রদান করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102