০৪:০৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথঃ লঞ্চে মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্ব

আবুল হোসেনঃ রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ও মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া নৌপথে এখনো মানা হচ্ছে না সামাজিক দুরত্ব। ঘাট থেকে যাত্রীদের লঞ্চে ওঠার আগে দুই হাত ধুইয়ে এবং মুখে মাস্ক ব্যবহার করে উঠতে অনুরোধ জানানো হলেও লঞ্চের ভিতর এবং ওঠা নামার সময় নির্দেশনার কোন বালাই মানা হচ্ছে না। আজ মঙ্গলবারও দৌলতদিয়া লঞ্চ ঘাটে এমন চিত্র দেখা যায়।

মঙ্গলবার দুপুরে দৌলতদিয়া লঞ্চ ঘাটে দেখা যায়, পাটুরিয়া থেকে এম.ভি নজির এক্সপ্রেস নামের একটি লঞ্চের ডেকে এবং ভিতরসহ সামনে যাত্রী বোঝাই করে এসে ঘাটে ভিড়ছে। লঞ্চ পন্টুনের সাথে থামতে না থামতেই লঞ্চের ডেকের ওপর ও ভিতরে থাকা যাত্রীরা হুড়মুড় করে বের হতে থাকে। এসময় পন্টুনে থাকা বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) এর ট্রাফিক বিভাগের লোকজন হ্যান্ড মাইক দিয়ে বার বার সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে নামার অনুরোধ জানালেও কে শুনে কার কথা। বরং লঞ্চ থেকে নামার সিরি না দেওয়ায় অনেক যাত্রীদের নামতে বেকায়দায় পড়তে হয়। তারপরও একজনের শরীরের সাথে আরেকজনের শরীর ঘেঁসে নামতে থাকে।

পন্টুনের সাথেই একটু দূরে নোঙর করে রাখা ছিল বিআইডব্লিউটিএর একটি জাহাজ। যাত্রীদের এমনে হুড়মুড় করে নামা এবং গা ঘেঁসে সবাই চলাচল করায় ওই জাহাজের ক্যাপ্টেনসহ একাধিক ব্যক্তি যাত্রীদের সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে যাওয়ার অনুরোধ জানান। কিন্তু লঞ্চ থেকে নামা মাগুরাগামী এক যাত্রী চিল্লায় বলেন, কিসের করোনা। কিছুই হবে না। যার মরণ হবে সে মারা যাবেই। আগামী ১০০ বছরে করোনায় কিছু করতে পারবে না। ফালতু সব কোথাকার। যার ভালো লাগে সে মাস্ক পড়বে, আর যার ভালো লাগে না সে পড়বে না। এ নিয়ে এত কথা কিসের?

এসময় জাহাজের ক্যাপ্টেন দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, ‘ভাই আপনারাই বলেন, এসব মানুষের কি করা উচিত। তাদের ভালো পরামর্শ দিতে গিয়ে উল্টো অনেক কথা শুনিয়ে দিল। এমন মানুষের জন্য তো আজ দেশের বারোটা বাজছে। লঞ্চ ঘাটে ভেড়ার আগেই সবাই হুড়মুড় করে একত্রে জটলা বেধে নামছে। আবার একইভাবে তারা উঠছে। একজনের শরীরের সাথে আরেকজনের শরীর ঘেঁসে ওঠানামা করছে। আবার তারা লঞ্চ থেকে নামার পর দলবেধে একত্রে চলাচল করছে। এটা খুবই দুঃখজনক।

একইভাবে দৌলতদিয়া ঘাট থেকে ছেড়ে যাওয়া এম.ভি ব্লাকবার্ড নামক লঞ্চে যাত্রীরা ওঠার পর ডেকের সামনে ও মাষ্টারের পাশে ফাঁকা স্থানে সারিবদ্ধভাবে গা ঘেঁসে দাড়িয়ে ও বসে থাকছে। এমন দৃশ্য দেখার পর লঞ্চটি ছাড়ার আগ মুহুর্তে ঢাকাগামী যাত্রী রিপন বিশ^াস বলেন, সবারই তো যেতে চাই। কে কোথায় সরবে? সেই জায়গাটুকো তো আর নেই। তাই দাড়ানোর জায়গা না পেয়ে বসে আছি। এখন বাকি সব আল্লাহর হাতে।

ঘাটে কর্তব্যরত বিআইডব্লিউটিএ আরিচা কার্যালয়ের ট্রাফিক পরিদর্শক আফতাব উদ্দিন বলেন, আমরা তিনজন লোক সকাল থেকে সন্ধ্যার আগ পর্যন্ত যাত্রীদের লঞ্চে ওঠা-নামার ক্ষেত্রে বার বার সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাচলের অনুরোধ করছি। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চেষ্টা করে যাচ্ছি তাদেরকে সচেতন করতে। এরপর তো আর জীবন দিয়ে দিতে পারছি না।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথঃ লঞ্চে মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্ব

পোস্ট হয়েছেঃ ০৭:৫২:০৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ জুন ২০২০

আবুল হোসেনঃ রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ও মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া নৌপথে এখনো মানা হচ্ছে না সামাজিক দুরত্ব। ঘাট থেকে যাত্রীদের লঞ্চে ওঠার আগে দুই হাত ধুইয়ে এবং মুখে মাস্ক ব্যবহার করে উঠতে অনুরোধ জানানো হলেও লঞ্চের ভিতর এবং ওঠা নামার সময় নির্দেশনার কোন বালাই মানা হচ্ছে না। আজ মঙ্গলবারও দৌলতদিয়া লঞ্চ ঘাটে এমন চিত্র দেখা যায়।

মঙ্গলবার দুপুরে দৌলতদিয়া লঞ্চ ঘাটে দেখা যায়, পাটুরিয়া থেকে এম.ভি নজির এক্সপ্রেস নামের একটি লঞ্চের ডেকে এবং ভিতরসহ সামনে যাত্রী বোঝাই করে এসে ঘাটে ভিড়ছে। লঞ্চ পন্টুনের সাথে থামতে না থামতেই লঞ্চের ডেকের ওপর ও ভিতরে থাকা যাত্রীরা হুড়মুড় করে বের হতে থাকে। এসময় পন্টুনে থাকা বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) এর ট্রাফিক বিভাগের লোকজন হ্যান্ড মাইক দিয়ে বার বার সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে নামার অনুরোধ জানালেও কে শুনে কার কথা। বরং লঞ্চ থেকে নামার সিরি না দেওয়ায় অনেক যাত্রীদের নামতে বেকায়দায় পড়তে হয়। তারপরও একজনের শরীরের সাথে আরেকজনের শরীর ঘেঁসে নামতে থাকে।

পন্টুনের সাথেই একটু দূরে নোঙর করে রাখা ছিল বিআইডব্লিউটিএর একটি জাহাজ। যাত্রীদের এমনে হুড়মুড় করে নামা এবং গা ঘেঁসে সবাই চলাচল করায় ওই জাহাজের ক্যাপ্টেনসহ একাধিক ব্যক্তি যাত্রীদের সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে যাওয়ার অনুরোধ জানান। কিন্তু লঞ্চ থেকে নামা মাগুরাগামী এক যাত্রী চিল্লায় বলেন, কিসের করোনা। কিছুই হবে না। যার মরণ হবে সে মারা যাবেই। আগামী ১০০ বছরে করোনায় কিছু করতে পারবে না। ফালতু সব কোথাকার। যার ভালো লাগে সে মাস্ক পড়বে, আর যার ভালো লাগে না সে পড়বে না। এ নিয়ে এত কথা কিসের?

এসময় জাহাজের ক্যাপ্টেন দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, ‘ভাই আপনারাই বলেন, এসব মানুষের কি করা উচিত। তাদের ভালো পরামর্শ দিতে গিয়ে উল্টো অনেক কথা শুনিয়ে দিল। এমন মানুষের জন্য তো আজ দেশের বারোটা বাজছে। লঞ্চ ঘাটে ভেড়ার আগেই সবাই হুড়মুড় করে একত্রে জটলা বেধে নামছে। আবার একইভাবে তারা উঠছে। একজনের শরীরের সাথে আরেকজনের শরীর ঘেঁসে ওঠানামা করছে। আবার তারা লঞ্চ থেকে নামার পর দলবেধে একত্রে চলাচল করছে। এটা খুবই দুঃখজনক।

একইভাবে দৌলতদিয়া ঘাট থেকে ছেড়ে যাওয়া এম.ভি ব্লাকবার্ড নামক লঞ্চে যাত্রীরা ওঠার পর ডেকের সামনে ও মাষ্টারের পাশে ফাঁকা স্থানে সারিবদ্ধভাবে গা ঘেঁসে দাড়িয়ে ও বসে থাকছে। এমন দৃশ্য দেখার পর লঞ্চটি ছাড়ার আগ মুহুর্তে ঢাকাগামী যাত্রী রিপন বিশ^াস বলেন, সবারই তো যেতে চাই। কে কোথায় সরবে? সেই জায়গাটুকো তো আর নেই। তাই দাড়ানোর জায়গা না পেয়ে বসে আছি। এখন বাকি সব আল্লাহর হাতে।

ঘাটে কর্তব্যরত বিআইডব্লিউটিএ আরিচা কার্যালয়ের ট্রাফিক পরিদর্শক আফতাব উদ্দিন বলেন, আমরা তিনজন লোক সকাল থেকে সন্ধ্যার আগ পর্যন্ত যাত্রীদের লঞ্চে ওঠা-নামার ক্ষেত্রে বার বার সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাচলের অনুরোধ করছি। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চেষ্টা করে যাচ্ছি তাদেরকে সচেতন করতে। এরপর তো আর জীবন দিয়ে দিতে পারছি না।