০৮:০৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৩ অক্টোবর ২০২৩, ১৮ আশ্বিন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

গোয়ালন্দে হাসপাতাল ছেড়ে যাওয়া সেই স্কুলছাত্র করোনা পজিটিভ শনাক্ত

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ করোনার উপসর্গ নিয়ে ঈদের পরদিন রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে জোরর্পূবক চলে যাওয়া সেই স্কুল ছাত্রের (১৭) করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। করোনার উপসর্গ দেখা দিলে তাকে ঈদের দিন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। ঈদের পরদিন সে হাসপাতাল ছেড়ে গেলে পরবর্তীতে বাড়ি থেকে অনেকটা জোরপূর্বক তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এসময় স্বাস্থ্য বিভাগের লোকজনের সাথে খারাপ ব্যবহার করে। শুক্রবার (২৯ মে) বিকেলে তার করোনার পজিটিভ ফলাফল আসে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ জানান, গোয়ালন্দের উজানচর ইউনিয়নের নবুওছিমদ্দিন পাড়ার ওই তরুণ এ বছর এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে। ৩১ মে এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল বের হওয়ার কথা। ঈদের আগে তার শরীরে জ্বর, শর্দি, কাসিসহ করোনার উপসর্গ দেখা দিলে ঈদের দিন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। ঈদের পরদিন সে জোরপূর্বক হাসপাতাল ছেড়ে যায়। পরে তার বাড়ি থেকে অনেকটা জোরপূর্বক নমুনা সংগ্রহ করা হয়। শুক্রবার বিকেলে উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে পাঠানো হয়।

স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জানান, রাজবাড়ী পুলিশ লাইন থেকে গোয়ালন্দে অতিরিক্ত দায়িত্ব পালনে আসা এক পুলিশ কনেষ্টবলের ঈদের আগের দিন (২৫) ২৪ মে করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়। তাকে ওইদিন পুলিশ লাইনে পাঠানো হয়। ওই দিন গোয়ালন্দ ঘাট থানার ২২ পুলিশ সদস্য ও তরুণসহ ২৪ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। তাদের সকলের নেগেটিভ আসে। ঈদের আগের দিন আরো ১০ পুলিশ সদস্যের নমুনা নেয়া হলে তাদের নেগেটিভ আসে। এ নিয়ে গোয়ালন্দে মোট ৯ জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হলো।

স্থানীয় কয়েকজন জানান, ঈদের চারদিন আগে নবুওছিমদ্দিন পাড়ার খোরশেদ বেপারীর স্ত্রীসহ তিন সন্তান নারায়ণগঞ্জ থেকে বাড়ি আসে। এসময় তারা প্রত্যেকেই জ্বর, শর্দি, কাশিতে ভুগছিল। দুই দিন পর খোরশেদ বেপারীর স্ত্রী মারা যান। দুই দিন পর ওই পরিবারের আরেক সন্তান ওই তরুণ বেশি অসুস্থ্য হয়ে পড়লে ঈদের দিন তাকে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি আশিকুর রহমান জানান, দৌলতদিয়া ঘাটে পুলিশ করোনা ঝুকি নিয়ে কাজ করছে। এ কারণে থানার সকল পুলিশ সদস্যকে তিনটি ভাগে ভাগ করে রাখা হয়েছে। একটি গ্রুপ থানায়, আরেকটি গ্রুপ বাজারের মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনে এবং আরেকটি গ্রুপকে সরকারি শহীদ স্মৃতি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে রাখা হয়েছে।

এর আগে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) এর দৌলতদিয়ায় কর্মরত পাঁচ কর্মী, তাঁদের আবাসিক মেসের সহকারী (বুয়া), এক কিশোরীসহ মোট সাতজন করোনা পজেটিভ শনাক্ত হন। তারা প্রত্যেকে সুস্থ্য হয়ে নিজ নিজ এলাকায় ফিরে গেছেন।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

রাজবাড়ীতে বিএনপি জামায়াতের সন্ত্রাস নৈরাজ্যের প্রতিবাদে আ.লীগের শান্তি সমাবেশ অনুষ্ঠিত

গোয়ালন্দে হাসপাতাল ছেড়ে যাওয়া সেই স্কুলছাত্র করোনা পজিটিভ শনাক্ত

পোস্ট হয়েছেঃ ০৮:৪৮:৫০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ করোনার উপসর্গ নিয়ে ঈদের পরদিন রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে জোরর্পূবক চলে যাওয়া সেই স্কুল ছাত্রের (১৭) করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। করোনার উপসর্গ দেখা দিলে তাকে ঈদের দিন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। ঈদের পরদিন সে হাসপাতাল ছেড়ে গেলে পরবর্তীতে বাড়ি থেকে অনেকটা জোরপূর্বক তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এসময় স্বাস্থ্য বিভাগের লোকজনের সাথে খারাপ ব্যবহার করে। শুক্রবার (২৯ মে) বিকেলে তার করোনার পজিটিভ ফলাফল আসে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ জানান, গোয়ালন্দের উজানচর ইউনিয়নের নবুওছিমদ্দিন পাড়ার ওই তরুণ এ বছর এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে। ৩১ মে এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল বের হওয়ার কথা। ঈদের আগে তার শরীরে জ্বর, শর্দি, কাসিসহ করোনার উপসর্গ দেখা দিলে ঈদের দিন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। ঈদের পরদিন সে জোরপূর্বক হাসপাতাল ছেড়ে যায়। পরে তার বাড়ি থেকে অনেকটা জোরপূর্বক নমুনা সংগ্রহ করা হয়। শুক্রবার বিকেলে উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে পাঠানো হয়।

স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জানান, রাজবাড়ী পুলিশ লাইন থেকে গোয়ালন্দে অতিরিক্ত দায়িত্ব পালনে আসা এক পুলিশ কনেষ্টবলের ঈদের আগের দিন (২৫) ২৪ মে করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়। তাকে ওইদিন পুলিশ লাইনে পাঠানো হয়। ওই দিন গোয়ালন্দ ঘাট থানার ২২ পুলিশ সদস্য ও তরুণসহ ২৪ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। তাদের সকলের নেগেটিভ আসে। ঈদের আগের দিন আরো ১০ পুলিশ সদস্যের নমুনা নেয়া হলে তাদের নেগেটিভ আসে। এ নিয়ে গোয়ালন্দে মোট ৯ জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হলো।

স্থানীয় কয়েকজন জানান, ঈদের চারদিন আগে নবুওছিমদ্দিন পাড়ার খোরশেদ বেপারীর স্ত্রীসহ তিন সন্তান নারায়ণগঞ্জ থেকে বাড়ি আসে। এসময় তারা প্রত্যেকেই জ্বর, শর্দি, কাশিতে ভুগছিল। দুই দিন পর খোরশেদ বেপারীর স্ত্রী মারা যান। দুই দিন পর ওই পরিবারের আরেক সন্তান ওই তরুণ বেশি অসুস্থ্য হয়ে পড়লে ঈদের দিন তাকে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি আশিকুর রহমান জানান, দৌলতদিয়া ঘাটে পুলিশ করোনা ঝুকি নিয়ে কাজ করছে। এ কারণে থানার সকল পুলিশ সদস্যকে তিনটি ভাগে ভাগ করে রাখা হয়েছে। একটি গ্রুপ থানায়, আরেকটি গ্রুপ বাজারের মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনে এবং আরেকটি গ্রুপকে সরকারি শহীদ স্মৃতি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে রাখা হয়েছে।

এর আগে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) এর দৌলতদিয়ায় কর্মরত পাঁচ কর্মী, তাঁদের আবাসিক মেসের সহকারী (বুয়া), এক কিশোরীসহ মোট সাতজন করোনা পজেটিভ শনাক্ত হন। তারা প্রত্যেকে সুস্থ্য হয়ে নিজ নিজ এলাকায় ফিরে গেছেন।