১২:০৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

প্রথম আলো গোয়ালন্দ বন্ধুসভা ১৬০ অসহায় পরিবারে পৌছে দিল সহমর্মিতার ঈদ উপহার

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ “ভালোর সাথে, আলোর পথে” এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে এবার করোনাকালীন সময়ে সহমর্মিতার ঈদ পালনে সচেষ্ট ছিল প্রথম আলো বন্ধুসভার সদস্যরা। রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে বন্ধুসভার সদস্য, শুভাকাঙ্খিদের সহযোগিতায় অসহায়, অসচ্ছল পরিবারের মাঝে নগদ অর্থ, ঈদ বাজার ও চাল বিতরণ করেছে। ঈদের আগের দিন পর্যন্ত ১৬০টি পরিবারের বাড়িতে পৌছে দিয়েছে এসব সামগ্রী।

প্রতি বছরের ন্যায় এবারও বন্ধুসভার সদস্য, শুভাকাঙ্খি ও প্রবাসী বন্ধুদের সার্বিক সহযোগিতায় ঈদের আগের দিন পর্যন্ত গোয়ালন্দ পৌরসভা সহ উপজেলার উজানচর, দৌলতদিয়া ও ছোটভাকলা ইউনিয়নের ১৬০ পরিবারের মাঝে সহমর্মিতার ঈদ উপহার পৌছে দেয়া হয়। বন্ধুসভা এসব অসহায় ও অসচ্ছল পরিবারের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তাদের চাহিদা মাফিক ঈদ উপহার হিসেবে নগদ ৫০০ করে টাকা অথবা ১০ কেজি করে চাল ও ঈদ বাজার সামগ্রী তুলে দেন। ঈদ বাজারের মধ্যে ছিল ১ কেজি উন্নত মানের পোলার চাল, ১ কেজি সয়াবিন তেল, ১ কেজি চিনি, ৫০০ গ্রাম ডাল, ১ প্যাকেট চিকন সেমান, ১ প্যাকেট লাচ্চা সেমাই, ১ প্যাকেট করে গুড়া দুধ, গরম মসল্লা, কিচমিচ, তেজপাতা, জিরাসহ আনুসাঙ্গিক সামগ্রী। এসব সামগ্রী হাতে পেয়ে অনেকে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন।

ঈদের আগের দিন ঈদের পরিপূর্ণ বাজার বাড়ি বসে পেয়ে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন গৃহকর্মী ফাতেমা বেগম। তিনি বলেন, স্বামী মিরাজ হোসেন বেশ কিছুদিন ধরে করোনার কারণে বেকার হয়ে বসে আছেন। নিজের জমি বলতে কিছুই নেই। পৌরসভার কুমড়াকান্দি এলাকায় স্থানীয় এক ব্যক্তির একটি টিনের ছাপড়া ঘর ৬০০ টাকায় ভাড়া থাকেন। বেকার হয়ে পড়ায় বাড়ি ভাড়া মাসিক ৬০০ টাকাও তারা (ফাতেমা-মিরাজ দম্পতি) পরিশোধ করতে পারছিলেন না। এমন অবস্থায় দুই সপ্তাহ আগে তাদের ঘরে জন্ম নেয় একটি ফুটফুটে কন্যা শিশু সন্তান। নবজাতক সন্তান ও মায়ের যতœও তাদের হচ্ছে না। সেখানে ঈদের দিন একটু ভালো মন্দ খাবার অনেকটা দুঃস্বপ্নই বটে।
এমন অবস্থায় ঈদের আগের দিন দুপুরে তাদের বাড়িতে হাজির হন বন্ধুসভা। নবজাতক সন্তান কোলে অসহায় হয়ে দাড়িয়ে থাকা ফাতেমার হাতে পৌছে দেন সহমর্মিতার ঈদ উপহার ব্যাগভর্তি বাজার। ব্যাগভর্তি বাজার পেয়ে আনন্দে আত্মহারা হয়ে পড়েন।

অনুভূতি ধরে রাখতে না পেরে ঈদের দিন সকালে মুঠোফোনে এ প্রতিবেদককে ফাতেমা দম্পতি বলেন,“আপনারা যে কাজটি করেছেন তা পরিবারের অনেকেই করেনা। এই বাজার না পেলে হয়তো ঈদের দিন আমাদের চুলার আগুনও জ¦লতো না। এমন বাজার পেয়েছি বলে ঈদের দিন খেতে পারছি। আপনাদের এ ঋন কোনদিন শোধ করতে পারবো না।”

বন্ধুসভার সভাপতি বাবর আলী ও সাধারণ সম্পাদক মাহাফুজ মিলন বলেন, প্রতি বছরের ন্যায় এবারও বন্ধুসভা থেকে ঈদের আগে নানা কর্মসূচি ছিল। কিন্তু করোনার কারণে সবকিছুই এলোমেলো হয়ে গেল। অর্থনৈতিক মন্দার কারণে বর্তমানে কেউ তেমন ভালো নেই। এরপরও আমরা এ বছর সংঘবদ্ধ না হয়ে সতর্কতার সাথে অসচ্ছল সদস্য ও অসহায় মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে নগদ আর্থিক সহযোগিতা প্রদান, ঈদ বাজার ও চাল কিনে দিয়েছি। সহমর্মিতার ঈদ উপহার হিসেবে ঈদের আগের দিন পর্যন্ত ১৬০টি পরিবারের মাঝে এসব সামগ্রী পৌছে দেওয়া হয়েছে। আমাদের সহমর্মিতার ঈদ উপহার কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

প্রথম আলো গোয়ালন্দ বন্ধুসভা ১৬০ অসহায় পরিবারে পৌছে দিল সহমর্মিতার ঈদ উপহার

পোস্ট হয়েছেঃ ০৯:৪৩:৩৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৫ মে ২০২০

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ “ভালোর সাথে, আলোর পথে” এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে এবার করোনাকালীন সময়ে সহমর্মিতার ঈদ পালনে সচেষ্ট ছিল প্রথম আলো বন্ধুসভার সদস্যরা। রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে বন্ধুসভার সদস্য, শুভাকাঙ্খিদের সহযোগিতায় অসহায়, অসচ্ছল পরিবারের মাঝে নগদ অর্থ, ঈদ বাজার ও চাল বিতরণ করেছে। ঈদের আগের দিন পর্যন্ত ১৬০টি পরিবারের বাড়িতে পৌছে দিয়েছে এসব সামগ্রী।

প্রতি বছরের ন্যায় এবারও বন্ধুসভার সদস্য, শুভাকাঙ্খি ও প্রবাসী বন্ধুদের সার্বিক সহযোগিতায় ঈদের আগের দিন পর্যন্ত গোয়ালন্দ পৌরসভা সহ উপজেলার উজানচর, দৌলতদিয়া ও ছোটভাকলা ইউনিয়নের ১৬০ পরিবারের মাঝে সহমর্মিতার ঈদ উপহার পৌছে দেয়া হয়। বন্ধুসভা এসব অসহায় ও অসচ্ছল পরিবারের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তাদের চাহিদা মাফিক ঈদ উপহার হিসেবে নগদ ৫০০ করে টাকা অথবা ১০ কেজি করে চাল ও ঈদ বাজার সামগ্রী তুলে দেন। ঈদ বাজারের মধ্যে ছিল ১ কেজি উন্নত মানের পোলার চাল, ১ কেজি সয়াবিন তেল, ১ কেজি চিনি, ৫০০ গ্রাম ডাল, ১ প্যাকেট চিকন সেমান, ১ প্যাকেট লাচ্চা সেমাই, ১ প্যাকেট করে গুড়া দুধ, গরম মসল্লা, কিচমিচ, তেজপাতা, জিরাসহ আনুসাঙ্গিক সামগ্রী। এসব সামগ্রী হাতে পেয়ে অনেকে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন।

ঈদের আগের দিন ঈদের পরিপূর্ণ বাজার বাড়ি বসে পেয়ে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন গৃহকর্মী ফাতেমা বেগম। তিনি বলেন, স্বামী মিরাজ হোসেন বেশ কিছুদিন ধরে করোনার কারণে বেকার হয়ে বসে আছেন। নিজের জমি বলতে কিছুই নেই। পৌরসভার কুমড়াকান্দি এলাকায় স্থানীয় এক ব্যক্তির একটি টিনের ছাপড়া ঘর ৬০০ টাকায় ভাড়া থাকেন। বেকার হয়ে পড়ায় বাড়ি ভাড়া মাসিক ৬০০ টাকাও তারা (ফাতেমা-মিরাজ দম্পতি) পরিশোধ করতে পারছিলেন না। এমন অবস্থায় দুই সপ্তাহ আগে তাদের ঘরে জন্ম নেয় একটি ফুটফুটে কন্যা শিশু সন্তান। নবজাতক সন্তান ও মায়ের যতœও তাদের হচ্ছে না। সেখানে ঈদের দিন একটু ভালো মন্দ খাবার অনেকটা দুঃস্বপ্নই বটে।
এমন অবস্থায় ঈদের আগের দিন দুপুরে তাদের বাড়িতে হাজির হন বন্ধুসভা। নবজাতক সন্তান কোলে অসহায় হয়ে দাড়িয়ে থাকা ফাতেমার হাতে পৌছে দেন সহমর্মিতার ঈদ উপহার ব্যাগভর্তি বাজার। ব্যাগভর্তি বাজার পেয়ে আনন্দে আত্মহারা হয়ে পড়েন।

অনুভূতি ধরে রাখতে না পেরে ঈদের দিন সকালে মুঠোফোনে এ প্রতিবেদককে ফাতেমা দম্পতি বলেন,“আপনারা যে কাজটি করেছেন তা পরিবারের অনেকেই করেনা। এই বাজার না পেলে হয়তো ঈদের দিন আমাদের চুলার আগুনও জ¦লতো না। এমন বাজার পেয়েছি বলে ঈদের দিন খেতে পারছি। আপনাদের এ ঋন কোনদিন শোধ করতে পারবো না।”

বন্ধুসভার সভাপতি বাবর আলী ও সাধারণ সম্পাদক মাহাফুজ মিলন বলেন, প্রতি বছরের ন্যায় এবারও বন্ধুসভা থেকে ঈদের আগে নানা কর্মসূচি ছিল। কিন্তু করোনার কারণে সবকিছুই এলোমেলো হয়ে গেল। অর্থনৈতিক মন্দার কারণে বর্তমানে কেউ তেমন ভালো নেই। এরপরও আমরা এ বছর সংঘবদ্ধ না হয়ে সতর্কতার সাথে অসচ্ছল সদস্য ও অসহায় মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে নগদ আর্থিক সহযোগিতা প্রদান, ঈদ বাজার ও চাল কিনে দিয়েছি। সহমর্মিতার ঈদ উপহার হিসেবে ঈদের আগের দিন পর্যন্ত ১৬০টি পরিবারের মাঝে এসব সামগ্রী পৌছে দেওয়া হয়েছে। আমাদের সহমর্মিতার ঈদ উপহার কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।