০১:৪০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

করোনায় আক্রান্ত পুলিশ সদস্য, এ নিয়ে গোয়ালন্দে মোট ৮ জন শনাক্ত

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে এবার এক পুলিশ সদস্য করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন। ওই পুলিশ সদস্য (২৫) রাজবাড়ী জেলা পুলিশ লাইন থেকে গোয়ালন্দে কর্তব্য পালন করছিলেন। তাকে গতকাল রোববার রাজবাড়ী জেলা পুলিশ লাইনে পাঠানো হয়েছে। তাঁর সংস্পর্শে থাকা সকল সদস্যের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

আজ সোমবার বিকেলে রাজবাড়ীমেইলকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ। তিনি বলেন, রোববার বিকেলেই ওই পুলিশ সদস্যের সংস্পর্শে থাকা ১০ সদস্যের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এ ছাড়া আগামীকাল মঙ্গলবার আরো ১০ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হবে।

এর আগে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ায় কর্মরত পাঁচ কর্মী, তাঁদের আবাসিক মেসের সহকারীসহ (বুয়া) স্থানীয় এক কিশোরী করোনা শনাক্ত হন। গত ২৩ মার্চ বিআইডব্লিউটিসির আবাসিক মেসের দুই কর্মীর প্রথম নমুনা সংগ্রহ করলে ২৬ মার্চ প্রতিবেদনে প্রথম দুই জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়। তাদের শরীরে সর্দি, জ্বরসহ করোনার উপসর্গ ছিল। পরবর্তীতে ২৭ এপ্রিল তাদের সংস্পর্শে থাকা ১৫ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। ৩০ এপ্রিল মেসের আরো তিন কর্মীর করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়। বাকি দুই কর্মীর নেগেটিভ আসলেও ওই দুইজনকে মেসে লক ডাউন করে রাখা হয়। অবশিষ্ট কর্মী ও বিআইডব্লিউটিসির কাউন্টারে কর্মরত আনসার সদস্য এবং মেসের দুই কাজের সহকারীসহ (বুয়া) ১০ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয় ৩ মে। গত ৬ মে মেসের কাজের এক সহকারীর (বুয়া) পজিটিভ আসে। এই সহকারীর কোন উপসর্গ ছিল না। ১০ মে মেসের সহকারীর পরিবারসহ আশপাশ এলাকার ১৫ জন এবং অন্যান্য আরো ৭ জন ২২ জনের করোনার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। ১৩ মে সন্ধ্যায় আসা ফলাফলে কিশোরীর করোনা পজিটিভশনাক্তের খবর আসে। কিশোরীর কোন ধরনের করোনা উপসর্গ ছিল না। তাকে ওই দিন রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে পাঠানো হয়। এ নিয়ে গোয়ালন্দে মোট ৮ জন করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছে।

স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ আরো জানান, গোয়ালন্দে ৮জনের মধ্যে শুধুমাত্র দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় ৭ জন করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় দৌলতদিয়া ঘাট সাইনবোড এলাকা থেকে ঘাটের বিআইডব্লিউটিসির বুকিং কাউন্টার পর্যন্ত এলাকাকে গত বৃহস্পতিবার থেকে রেডজোন হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে (ইউএনও) অবগত করা হয়েছে।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশিকুর রহমান জানান, থানার নিয়মিত পুলিশ সদস্যের পাশাপাশি কর্তব্য পালনে জেলা পুলিশ লাইন থেকেও অতিরিক্ত সদস্য আনা হয়। করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত পুলিশ সদস্যকে রোববার জেলা পুলিশ লাইনে পাঠানো হয়েছে। তার সংস্পর্শে থাকা বাকি সদস্যদের দুটি ভাগে গোয়ালন্দ বাজার মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন এবং শহীদ স্মৃতি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলু রাজবাড়ীমেইলকে জানান, করোনা সংকট মোকাবেলায় সর্বত্র সচেতনতা চালানো হচ্ছে। দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় রেডজোন হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। এলাকার জন সাধারণকে সতর্কতার সাথে চলাফেরা করতে বলা হয়েছে।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

করোনায় আক্রান্ত পুলিশ সদস্য, এ নিয়ে গোয়ালন্দে মোট ৮ জন শনাক্ত

পোস্ট হয়েছেঃ ০৮:২১:০৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৫ মে ২০২০

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে এবার এক পুলিশ সদস্য করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন। ওই পুলিশ সদস্য (২৫) রাজবাড়ী জেলা পুলিশ লাইন থেকে গোয়ালন্দে কর্তব্য পালন করছিলেন। তাকে গতকাল রোববার রাজবাড়ী জেলা পুলিশ লাইনে পাঠানো হয়েছে। তাঁর সংস্পর্শে থাকা সকল সদস্যের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

আজ সোমবার বিকেলে রাজবাড়ীমেইলকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ। তিনি বলেন, রোববার বিকেলেই ওই পুলিশ সদস্যের সংস্পর্শে থাকা ১০ সদস্যের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এ ছাড়া আগামীকাল মঙ্গলবার আরো ১০ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হবে।

এর আগে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ায় কর্মরত পাঁচ কর্মী, তাঁদের আবাসিক মেসের সহকারীসহ (বুয়া) স্থানীয় এক কিশোরী করোনা শনাক্ত হন। গত ২৩ মার্চ বিআইডব্লিউটিসির আবাসিক মেসের দুই কর্মীর প্রথম নমুনা সংগ্রহ করলে ২৬ মার্চ প্রতিবেদনে প্রথম দুই জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়। তাদের শরীরে সর্দি, জ্বরসহ করোনার উপসর্গ ছিল। পরবর্তীতে ২৭ এপ্রিল তাদের সংস্পর্শে থাকা ১৫ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। ৩০ এপ্রিল মেসের আরো তিন কর্মীর করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়। বাকি দুই কর্মীর নেগেটিভ আসলেও ওই দুইজনকে মেসে লক ডাউন করে রাখা হয়। অবশিষ্ট কর্মী ও বিআইডব্লিউটিসির কাউন্টারে কর্মরত আনসার সদস্য এবং মেসের দুই কাজের সহকারীসহ (বুয়া) ১০ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয় ৩ মে। গত ৬ মে মেসের কাজের এক সহকারীর (বুয়া) পজিটিভ আসে। এই সহকারীর কোন উপসর্গ ছিল না। ১০ মে মেসের সহকারীর পরিবারসহ আশপাশ এলাকার ১৫ জন এবং অন্যান্য আরো ৭ জন ২২ জনের করোনার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। ১৩ মে সন্ধ্যায় আসা ফলাফলে কিশোরীর করোনা পজিটিভশনাক্তের খবর আসে। কিশোরীর কোন ধরনের করোনা উপসর্গ ছিল না। তাকে ওই দিন রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে পাঠানো হয়। এ নিয়ে গোয়ালন্দে মোট ৮ জন করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছে।

স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ আরো জানান, গোয়ালন্দে ৮জনের মধ্যে শুধুমাত্র দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় ৭ জন করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় দৌলতদিয়া ঘাট সাইনবোড এলাকা থেকে ঘাটের বিআইডব্লিউটিসির বুকিং কাউন্টার পর্যন্ত এলাকাকে গত বৃহস্পতিবার থেকে রেডজোন হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে (ইউএনও) অবগত করা হয়েছে।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশিকুর রহমান জানান, থানার নিয়মিত পুলিশ সদস্যের পাশাপাশি কর্তব্য পালনে জেলা পুলিশ লাইন থেকেও অতিরিক্ত সদস্য আনা হয়। করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত পুলিশ সদস্যকে রোববার জেলা পুলিশ লাইনে পাঠানো হয়েছে। তার সংস্পর্শে থাকা বাকি সদস্যদের দুটি ভাগে গোয়ালন্দ বাজার মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন এবং শহীদ স্মৃতি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবায়েত হায়াত শিপলু রাজবাড়ীমেইলকে জানান, করোনা সংকট মোকাবেলায় সর্বত্র সচেতনতা চালানো হচ্ছে। দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় রেডজোন হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। এলাকার জন সাধারণকে সতর্কতার সাথে চলাফেরা করতে বলা হয়েছে।