০১:১৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটঃ ফেরি চালু নিয়ে কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত পরিবর্তনে বিপাকে চালকেরা

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া এবং মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া নৌরুট দিয়ে যাত্রী ও যানবাহন পারপার ঠেকাতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের বার বার সিদ্ধান্ত পরিবর্তেনে বিপাকে পড়ছেন চালকেরা। মঙ্গলবার দিনে সীমিত আকারে জরুরী গাড়ি পারাপারে ছোট দুইটি ফেরি চালু রাখা হলে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে আসা পণ্যবাহি গাড়ির লাইন পাঁচ কিলোমিটার ছাড়িয়ে যায়। সন্ধ্যার পর থেকে সম্পূর্ণভাবে ফেরি বন্ধ রাখার পর গভীররাতে ফের সবকটি ফেরি চালু করা হয়। সারারাত পারাপার শেষে আজ বুধবার ভোর ৬টা থেকে সম্পূর্ণভাবে ফেরি বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

ঘাট সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, যাত্রী বা যানবাহন পারাপার নিয়ন্ত্রণ করতে ঘাট সংশ্লিষ্ট সকল প্রতিষ্ঠান বার বার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করছে। মঙ্গলবার দিনের বেলায় অনেকক্ষণ বিরতি দিয়ে দুটি ইউটিলিটি (ছোট) ও একটি মাঝারী ফেরি চালু রাখা হয়। সাধারণ যে কোন যানবাহন ও যাত্রী পারাপার ঠেকাতে বাকি সব ফেরি বন্ধ রাখা হয়। শুধুমাত্র রোগীবাহি বা লাশবাহি এ্যাম্বুলেন্স পারাপারে ছোট দুটি ফেরি চালু রাখা হয়। কিন্তু যখনই এসব ছোট ফেরি জরুরী গাড়ি নিয়ে ঘাট ছেড়ে যায় তখনই ঘাটে অপেক্ষমান মানুষ হুমড়ি খেয়ে পড়ে। মানুষের ভিড়ে ফেরিতে দাড়ানোর ঠাই থাকে না। পণ্যবাহি গাড়ি পারাপার বন্ধ থাকায় ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে দৌলতদিয়া ফেরি ঘাট থেকে ঢাকাগামী গাড়ির লাইন গোয়ালন্দ বাজার ছাড়িয়ে পাঁচ কিলোমিটার দীর্ঘ হয়।

ফেরির পাশাপাশি ইঞ্জিন চালিত নৌকায় মানুষভর্তি হয়ে পারাপার হতে থাকে। অতিরিক্ত যাত্রী বহনের কারণে মঙ্গলবার সকালে পাটুরিয়া ঘাট থেকে ছেড়ে আসা একটি ছোট ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটে। ট্রলারে থাকা যাত্রীদের স্থানীয় জেলেরা উদ্ধার করে। এসময় ঈদে ঘরমুখি দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের যাত্রীদের অনেকের টাকাসহ মূল্যবান জিনিসপত্র খোয়া যায়।

মঙ্গলবার দিন শেষে পণ্যবাহি ঢাকাগামী গাড়ির লাইন গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদ ছাড়িয় ছয় কিলোমিটার লম্বা হয়। এদিকে উচ্চ পর্যায়ের সিদ্ধান্তে সাধারণ পণ্যবাহি গাড়ি পারাপার না করার সিদ্ধান্তে মহা বিপাকে পড়েন এসব গাড়ি চালক। সন্ধ্যার পর সকল ফেরি বন্ধ করে দিয়ে এই রুটের পরিবর্তে বঙ্গবন্ধু সেতু হয়ে ঘুরে আটকে থাকা যানবাহন ঢাকায় যাওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়। বাধ্য হয়ে অনেকে গাড়ি ঘুরিয়ে বঙ্গবন্ধু সেতুর দিকে রওয়ানা করে। পরবর্তীতে রাত সাড়ে ১১টা থেকে পুনরায় এসব গাড়ি ফেরিতে পারাপারের সিদ্ধান্ত হয়। এমন সিদ্ধান্তে রাতভর সকল পণ্যবাহি গাড়ি পারাপার করা হয়। আজ বুধবার ভোর ছয়টা পর্যন্ত উভয় ঘাটে আটকে থাকা গাড়ি পারাপার করা হলে ঘাট যানবাহন শূণ্য হয়। ভোর ছয়টার পর থেকে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের সিদ্ধান্তে ফের সকল ধরনের ফেরি বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে অতিব জরুরী লাশ বা রোগীবাহি এ্যাম্বুলেন্স পারাপারে পড়ন্ত বেলায় এক-দুটি ছোট ফেরি চালু রাখা হতে পারে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয়ের সহকারী ব্যবস্থাপক মাহাবুব আলী সরদার জানান, মঙ্গলবার সারাদিন পণ্যবাহি গাড়ি পারাপার বন্ধ থাকায় দৌলতদিয়া প্রান্তে কয়েকশ গাড়ি আটকা পড়ে। সন্ধ্যার পর কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তে এসব গাড়ি বঙ্গবন্ধু সেতু হয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। পরবর্তীতে ফের রাত সাড়ে এগারটা থেকে সবকটি ফেরি চালু রেখে দ্রুত আটকে থাকা সকল গাড়ি পারাপারের সিদ্ধান্ত আসলে রাতভর সব গাড়ি পারাপার করা হয়। আজ বুধবার ভোর ছয়টা থেকে ফের সকল ফেরি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। তবে অতিব জরুরী এ্যাম্বুলেন্স বা লাশবাহি গাড়ি পারাপারের ক্ষেত্রে বিশেষ ব্যবস্থায় এক-দুটি ছোট ফেরি ছাড়া লাগতে পারে।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটঃ ফেরি চালু নিয়ে কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত পরিবর্তনে বিপাকে চালকেরা

পোস্ট হয়েছেঃ ০৮:২৫:৫১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২০ মে ২০২০

রাজবাড়ীমেইল ডেস্কঃ রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া এবং মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া নৌরুট দিয়ে যাত্রী ও যানবাহন পারপার ঠেকাতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের বার বার সিদ্ধান্ত পরিবর্তেনে বিপাকে পড়ছেন চালকেরা। মঙ্গলবার দিনে সীমিত আকারে জরুরী গাড়ি পারাপারে ছোট দুইটি ফেরি চালু রাখা হলে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে আসা পণ্যবাহি গাড়ির লাইন পাঁচ কিলোমিটার ছাড়িয়ে যায়। সন্ধ্যার পর থেকে সম্পূর্ণভাবে ফেরি বন্ধ রাখার পর গভীররাতে ফের সবকটি ফেরি চালু করা হয়। সারারাত পারাপার শেষে আজ বুধবার ভোর ৬টা থেকে সম্পূর্ণভাবে ফেরি বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

ঘাট সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, যাত্রী বা যানবাহন পারাপার নিয়ন্ত্রণ করতে ঘাট সংশ্লিষ্ট সকল প্রতিষ্ঠান বার বার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করছে। মঙ্গলবার দিনের বেলায় অনেকক্ষণ বিরতি দিয়ে দুটি ইউটিলিটি (ছোট) ও একটি মাঝারী ফেরি চালু রাখা হয়। সাধারণ যে কোন যানবাহন ও যাত্রী পারাপার ঠেকাতে বাকি সব ফেরি বন্ধ রাখা হয়। শুধুমাত্র রোগীবাহি বা লাশবাহি এ্যাম্বুলেন্স পারাপারে ছোট দুটি ফেরি চালু রাখা হয়। কিন্তু যখনই এসব ছোট ফেরি জরুরী গাড়ি নিয়ে ঘাট ছেড়ে যায় তখনই ঘাটে অপেক্ষমান মানুষ হুমড়ি খেয়ে পড়ে। মানুষের ভিড়ে ফেরিতে দাড়ানোর ঠাই থাকে না। পণ্যবাহি গাড়ি পারাপার বন্ধ থাকায় ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে দৌলতদিয়া ফেরি ঘাট থেকে ঢাকাগামী গাড়ির লাইন গোয়ালন্দ বাজার ছাড়িয়ে পাঁচ কিলোমিটার দীর্ঘ হয়।

ফেরির পাশাপাশি ইঞ্জিন চালিত নৌকায় মানুষভর্তি হয়ে পারাপার হতে থাকে। অতিরিক্ত যাত্রী বহনের কারণে মঙ্গলবার সকালে পাটুরিয়া ঘাট থেকে ছেড়ে আসা একটি ছোট ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটে। ট্রলারে থাকা যাত্রীদের স্থানীয় জেলেরা উদ্ধার করে। এসময় ঈদে ঘরমুখি দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের যাত্রীদের অনেকের টাকাসহ মূল্যবান জিনিসপত্র খোয়া যায়।

মঙ্গলবার দিন শেষে পণ্যবাহি ঢাকাগামী গাড়ির লাইন গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদ ছাড়িয় ছয় কিলোমিটার লম্বা হয়। এদিকে উচ্চ পর্যায়ের সিদ্ধান্তে সাধারণ পণ্যবাহি গাড়ি পারাপার না করার সিদ্ধান্তে মহা বিপাকে পড়েন এসব গাড়ি চালক। সন্ধ্যার পর সকল ফেরি বন্ধ করে দিয়ে এই রুটের পরিবর্তে বঙ্গবন্ধু সেতু হয়ে ঘুরে আটকে থাকা যানবাহন ঢাকায় যাওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়। বাধ্য হয়ে অনেকে গাড়ি ঘুরিয়ে বঙ্গবন্ধু সেতুর দিকে রওয়ানা করে। পরবর্তীতে রাত সাড়ে ১১টা থেকে পুনরায় এসব গাড়ি ফেরিতে পারাপারের সিদ্ধান্ত হয়। এমন সিদ্ধান্তে রাতভর সকল পণ্যবাহি গাড়ি পারাপার করা হয়। আজ বুধবার ভোর ছয়টা পর্যন্ত উভয় ঘাটে আটকে থাকা গাড়ি পারাপার করা হলে ঘাট যানবাহন শূণ্য হয়। ভোর ছয়টার পর থেকে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের সিদ্ধান্তে ফের সকল ধরনের ফেরি বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে অতিব জরুরী লাশ বা রোগীবাহি এ্যাম্বুলেন্স পারাপারে পড়ন্ত বেলায় এক-দুটি ছোট ফেরি চালু রাখা হতে পারে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয়ের সহকারী ব্যবস্থাপক মাহাবুব আলী সরদার জানান, মঙ্গলবার সারাদিন পণ্যবাহি গাড়ি পারাপার বন্ধ থাকায় দৌলতদিয়া প্রান্তে কয়েকশ গাড়ি আটকা পড়ে। সন্ধ্যার পর কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তে এসব গাড়ি বঙ্গবন্ধু সেতু হয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। পরবর্তীতে ফের রাত সাড়ে এগারটা থেকে সবকটি ফেরি চালু রেখে দ্রুত আটকে থাকা সকল গাড়ি পারাপারের সিদ্ধান্ত আসলে রাতভর সব গাড়ি পারাপার করা হয়। আজ বুধবার ভোর ছয়টা থেকে ফের সকল ফেরি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। তবে অতিব জরুরী এ্যাম্বুলেন্স বা লাশবাহি গাড়ি পারাপারের ক্ষেত্রে বিশেষ ব্যবস্থায় এক-দুটি ছোট ফেরি ছাড়া লাগতে পারে।