June 21, 2021, 3:10 pm
Title :
করোনা নিয়ে উদ্বেগঃ রাজবাড়ীর তিন পৌরসভায় এক সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ রাজবাড়ীতে দ্বিতীয় পর্যায়ে ঘর পেল ভূমিহীন ৪৩০টি পরিবার পাংশায় আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের মাঝে জমিসহ গৃহ প্রদান কার্যক্রম অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে নতুন ঘরে নতুন আশা নিয়ে নতুন দিনের স্বপ্নে ৩০ পরিবার এবার যমুনা নদীতে জেলেদের জালে ধরা পড়লো ৪৭ কেজি ওজনের বাগাড় রাজবাড়ীতে ১০দিন ব্যাপি সাঁতার প্রশিক্ষণ উদ্বোধন গোয়ালন্দে সংবাদপত্রের এজেন্টের দোকানে জানালার গ্রিল কেটে চার লাখ টাকা চুরি গোয়ালন্দে অস্বচ্ছল নারীদের মাঝে বিনামূল্যে সেলাই মেশিন বিতরণ সামান্য বৃষ্টিতে রাজবাড়ীর বড় বাজার নোংরা ও দূষিত পানিতে সয়লাব, দুর্ভোগ গোয়ালন্দে আগুনে ঘর পুড়ে সর্বশান্ত ৫ পরিবার

রাজবাড়ীর পাঁচুরিয়ায় রেশনকার্ডের খসড়া তালিকায় অনিয়মের অভিযোগ

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, মে ১৭, ২০২০
  • 10 Time View
শেয়ার করুনঃ

স্টাফ রিপোর্টারঃ করোনা ভাইরাসের কারনে কর্মজীবি মানুষ কর্মহীন হয়ে পরেছে। আর সাধারন মানুষ আরো অসহায় হয়ে পরায় সরকার এসব জনগোষ্ঠির জন্যে রেশনকার্ড চালুর ব্যবস্থা করেছে। রাজবাড়ী সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে এসব রেশনকার্ড করা হয়েছে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানদের মাধ্যমে।

সদর উপজেলার পাঁচুরিয়া ইউনিয়নে কর্মহীন ও হতদরিদ্রদের সরকারী সাহায্যে প্রদানে এরকম সাড়ে তিন হাজারের মত রেশনকার্ডের খসড়া তালিকা তৈরী করা হয়েছে। অথচ দেখা গেছে এসব তালিকা তৈরী করার সময় হত দরিদ্রদের নামের সাথে অন্য ব্যক্তির মোবাইল নাম্বার যুক্ত করা হয়েছে। যাতে হতদরিদ্র ব্যক্তি সরকারী সহযোগীতা থেকে বঞ্চিত হয়। পাঁচুরিয়া ইউনিয়নের পূর্ব ব্রাক্ষ্রনদিয়ায় খসড়া তালিকায় ৩২৮ নম্বর সোবুল্লা মোল্লার ছেলে রাজ্জাকের নামের শেষে জাহিদুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তির মোবাইল নাম্বার যুক্ত করা হয়েছে। এভাবে ৩৪০, জাহিদুল ইসলামের নিজের নামসহ ৩৩১ নম্বরে আহসান হাওলাদার, ৩৩৯ নম্বরে মো. হাবিবুর রহমান, ২৭৪ নম্বরে ইয়াছিন তালুকদার ও ৩৩৩ রেশমা এই নাম গুলোর শেষে জাহিদুল ইসলাম নামের রবি, বাংলালিংক ও দুটি গ্রামীন ফোন নম্বর সহ চারটি মোবাইল নাম্বার ব্যবহার করা হয়েছে ৭জন দরিদ্র মানুষের নামের তালিকায়। খসড়া তালিকায় হতদরিদ্র এ সকল সাধারন মানুষের নামের শেষে তাদের নিজস্ব মোবাইল নাম্বার ব্যবহার না করে জাহিদুল ইসলামের মোবাইল নাম্বার ব্যবহার করা হয়েছে যাতে তিনি দরিদ্র এসব মানুষের সরকারী সাহায্য নিজে ভোগ করতে পারেন। সরকারী কোন সহযোগীতার জন্য এসব ব্যক্তিদের ফোন করা হলে ফোন রিসিভ করেন জাহিদুল ইসলাম নিজে।

এসব নম্বর নিশ্চিত হতে এ প্রতিবেদক ফোন করে তালিকার অনিয়ম খুজে পান। চেয়ারম্যান তালিকা তৈরিতে গন্যমান্য ব্যাক্তিদের পাশে না রেখে বিভিন্ন ওয়ার্ডে নানা ব্যক্তিদের দিয়ে নাম ও ন্যাশনাল আইডি কার্ডের ফটোকপি সংগ্রহ করেন। এই সুযোগে দরিদ্রদের নামের শেষে নিজ মোবাইল নম্বর যুক্ত করে অনিয়মগুলো করেছেন। ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে ইউনিয়ন মেম্বারদের পরিবারের এইসব হতদরিদ্রদের তালিকায় তাদের বেশিরভাগ আত্মীয় স্বজনদের নাম অন্তর্ভুক্ত করা অভিযোগও রয়েছে।

খসড়া তালিকার ৩৩১, ৩২৮, ২৩, ৩৩৯, ২৭৪ ও ৩৩৩ এই নম্বর গুলোতে ফোন করা হলে জাহিদুল ইসলাম নামে ওই ব্যাক্তি ফোন রিসিভ করেন। তাকে পরিচয় দিতে বললে তিনি বলেন আমি এই তালিকা করেছি। আগে হত-দরিদ্রদের নামের সাথে আমার মোবাইল নাম্বার ব্যবহার করেছি। তবে চুড়ান্ত তালিকায় তা সংশোধন করা হয়েছে।

পাঁচুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী আলমগীর হোসেন বলেন, রেশন তালিকায় এমন অনিয়ম হওয়ার সুযোগ নেই। এই তালিকা করার সময় তিন ধাপে যাচাই বাছাই করা হয়েছে। এসময় ইউনিয়নের গন্যমান্য, ব্যক্তি, শিক্ষকরা মিলে তা সম্পন্ন করা হয়। বর্তমানে চুড়ান্ত তালিকা করা শেষ করে উপজেলাতে জমা দেওয়া হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে রাজবাড়ী সদর উপজেলা নির্বার্হী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. সাইদুজ্জামান খান বলেন প্রতিটি ইউনিয়নে কমিটি করে দেওয়া হয়েছে। রাজবাড়ীতে ১৪ হাজার ২০০ হতদরিদ্র মানুষের চুড়ান্ত ভাবে তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। তবে তালিকায় অনিয়ম আছে কিনা তা এখন পর্যন্ত অভিযোগ পাননি। প্রথম পর্যায়ে পাঁচুরিয়া ইউনিয়নে ৭০৭টি রেশন কার্ডের তালিকা তৈরী করা হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102