July 6, 2022, 1:55 pm
শিরোনামঃ
তীব্র স্রোতে যানবাহন পারাপার ব্যাহত, সড়কে সিরিয়াল পাংশায় অস্ত্র, গুলি ও মাদকসহ গ্রেপ্তার দুই গোয়ালন্দে ২৩৫ বোতল ফেনসিডিল সহ গ্রেপ্তার দুই রাজবাড়ীর নিমতলা-কোলারহাট সড়কের গাছ রাতের অন্ধকারে কাটছে প্রভাবশালীরা গরু নিয়ে আমাদের আর দৌলতদিয়া ঘাটে অপেক্ষা করতে হয়না ডিবি পুলিশের অভিযানে দৌলতদিয়ায় সাত হাজার ইয়াবাসহ দুইজন গ্রেপ্তার শিক্ষক হত্যা ও লাঞ্ছনার প্রতিবাদে গোয়ালন্দে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত গোয়ালন্দের উজানচর ইউনিয়নে বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দ থানা পুলিশের পৃথক অভিযানে ইয়াবা ও হেরোইনসহ গ্রেপ্তার ৩ রাজবাড়ীতে কৃষকদের মাঝে কৃষি যন্ত্রপাতি ও পিকআপ ভ্যান বিতরন

ফরিদপুরে একজন করোনা যোদ্ধার নাম হাসনাত জামান রাসু

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, মে ১৬, ২০২০
  • 155 Time View
শেয়ার করুনঃ

জাকিব আহমেদ জ্যাক, ফরিদপুরঃ হাসনাত জামান রাসু। একজন করোনা যোদ্ধার নাম। মহান মুক্তিযুদ্ধে বাংলার মানুষ ঝাপিয়ে পড়েছিলো যুদ্ধে। রাসু তেমনি জীবন বাজি রেখে স্বেচ্ছাশ্রমে বিনা পারিশ্রমিকে ঝাপিয়ে পড়েছেন করোনা যুদ্ধে। দেশের এক ঝাক রাসুর খুব বেশী প্রয়োজন। কারণ সম্মুখে থেকে করোনা যুদ্ধের প্রাথমিক কাজটা করছেন রাসুদের মত অসংখ্য মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট।

বিশ্বে যখন করোনার মহামারী তখন তা মোকাবেলায় যোদ্ধা হয়ে সবচেয়ে বেশি সাহসী ভুমিকা রাখছেন ডাক্তার ও নার্সরা। তাদের পাশাপাশি জীবনের ঝুঁকি নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন মেডিকেল টেকনোলজিষ্টরা। তাদেরই মধ্যে অন্যতম ফরিদপুরের রাসু। সপ্রোনোদিত হয়ে বিনা পারিশ্রমিকে তিনি কাজ করে চলেছেন ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ এর “মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের ”করোনা পিসিআর ল্যাবে। ঝুঁকি আছে জেনেও এই কাজে সহায়তা করার জন্য পিসিআর ল্যাবে টেকনোলজিস্ট হিসাবে যোগদান করেন রাসু। শুধু রাসু নয় তার মতো ৮ যুবক করোনা ইউনিটে কাজ করে যাচ্ছেন।

করোনা উপসর্গের শুরুতেই রোগীরা হাসপাতালে যাচ্ছেন পরীক্ষা করাতে এবং সেই করোনা রোগীকে পরীক্ষা করছেন এইসব মেডিকেল টেকনোলজিষ্টরা। নমূনা সংগ্রহ ও প্রস্তুতও করছেন এসব টেকনোলজিষ্টরা।

রাসু পেশায় একজন ব্যাংকার। সাউথ ইষ্ট ব্যাংক প্রিন্সিপাল শাখায় চাকুরী করেন। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যবসায়ী শিক্ষায় এমবিএ পড়াশুনা চলছে তার। এর আগে ২০১২ সালে সে ফরিদপুরে দি স্টেট মেডিকেল ফ্যাকালটি অব বাংলাদেশ থেকে চার বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা মেডিকেল ল্যাবরেটরী টেকনোলজিষ্ট (ল্যাব) করেন।

রাসুর বাবা আব্দুল জলিল মোল্লা কাজ করেন ফরিদপুর ডা. জাহেদ মেমোরিয়াল শিশু হাসপাতালের সুপারভাইজার হিসেবে। মা হাসিনা বেগম একই হাসপাতালে চাকুরী করেন। বাড়ি ফরিদপুর সদরের মুরারীদহ গ্রামে। তিন ভাইয়ের মধ্যে সবার বড় রাসু। মেজ ভাই হামিদুর রহমান টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার, ছোট ভাই শরীফুল ইসলাম রাহুল নবম শ্রেণীতে পড়ে।

রাসুর ছোট বেলা থেকেই ইচ্ছে ছিলো ডাক্তার হওয়ার কিন্ত সেটাও হয়ে ওঠেনি। সরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তি পরীক্ষায় ভালো করতে পারেনি। বেসরকারী মেডিকেল কলেজে পড়ানোর মত আর্থিক অবস্থা ছিলো না তার বাবার। দুধের সাধ ঘোলে মেটানোর মত সে লেগে গেল মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট ৪ বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা কোর্সে। এই কোর্স শেষ করতে পারলে অন্তত ডাক্তারদের পাশে থেকে মানুষের সেবা করতে পারবে রাসু। সফলভাবে মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট কোর্স শেষ করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজেই তিনি ইন্টার্ণশীপ সম্পন্ন করেছিলেন। বিয়ে করেছেন ফারজানা ফেরদৌসকে, সেও একজন ফার্মাসিস্ট।

ফরিদপুর মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে ৭ দিন কাজ শেষ করে এখন হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন। তিনি জানান, ঢাকা থেকে ফরিদপুর বাড়িতে এসে খবর পেলাম ফরিদপুর মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে লোকবল সংকটের কথা। সময় অপচয় না করে ফরিদপুর সিভিল সার্জন অফিসে খোঁজ নিয়ে ঘটনার সত্যতা জানতে পারলাম। যেহেতু আমি ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে ইন্টার্নশীপ সম্পন্ন করেছি তাই সবাই আমাকে আগে ভাগেই চিনতো। এই সংকটের সময় আমি কাজ করতে চাই জানালে সিভিল সার্জন স্যার আমাকে কাজে লেগে যেতে বলেন।

রাসু বলেন, অনেক আশা নিয়ে চার বছর মেয়াদী মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট ডিপ্লোমা সম্পন্ন করেছি। দুঃখের বিষয় ১১ বছর ধরে এ বিষয়ে সরকারী কোনো নিয়োগ হয় নাই। তাই কোর্স সম্পন্ন করা থাকলেও চাকুরী পাইনি। জাতির এই দুঃসময়ে মানবতার স্বার্থে আমি নিঃস্বার্থভাবে এই কাজটি করছি। আমার আরো একটি অনুরোধ দেশের তরুন সমাজ যারা মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট ডিপ্লোমা কোর্স সম্পন্ন করেছেন তারা এই দু:সময়ে কাজে লেগে পরুন।

রাসুর বাবা মো. আব্দুল জলিল মোল্লা জানান, “আমার তিন ছেলে। এক ছেলে করোনা যুদ্ধে যাবে এতে আমরা পরিবারের কেউই বাঁধা দেইনি। হাসি মুখে মৃত্যু ঝুকিতে পাঠিয়েছি রাসুকে। দেশ ও দশের কাজে রাসুকে উৎস্বর্গ করেছি আমরা।
ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ও বিএমএ ফরিদপুরের সাধারণ সম্পাদক ডা. মো. মাহফজুর রহমান বুলু বলেন, “অদক্ষ কর্মীদের দিয়ে পরীক্ষা করালে যেমন নির্ভুল তথ্য পাওয়া যাবে না, তেমনী রয়েছে ভয়াবহ ঝুঁকি। ভাইরাস ছড়িয়ে যেতে পারে পুরো হাসপাতালে। মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট দিয়ে নমূনা সংগ্রহ করা ও পরীক্ষা করানোই হচ্ছে আদর্শিক প্রক্রিয়া। মেডিকেল টেকনোলজিষ্টদের সংখ্যা বাড়ানোর পাশাপাশি তাদের যোগ্য সম্মান ও স্বীকৃতি দেয়া উচিত।

ফরিদপুর মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ খবিরুল ইসলাম বলেন, আমাদের ১৫ জন টেকনোলজিস্ট দরকার ছিলো সেখানে মাত্র তিনজন দিয়ে কাজ চালাচ্ছিলাম। ফরিদপুর সিভিল সার্জনের মাধ্যমে এই যুবকদের স্বেচ্ছায় যোগদানের মাধ্যমে আগের চেয়ে অনেক বেশী করোনা শনাক্তকরণ পরীক্ষা করতে পারছি। তিনি বলেন, এই যুবকদের আমরা কোনো রকম ভাতা দিতে পারছিনা তারপরও প্রায় একমাস যাবত নিজেদের খরচে নিরলসভাবে আমাদের সহায়তা প্রদান করছে।

করোনাভাইরাস সনাক্তকরণ পরীক্ষায় সহায়তা করতে তাদের উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন ফরিদপুর সর্বোস্তরের জনগন।

Please Share This Post in Your Social Media

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
DeveloperAsif
themesba-lates1749691102
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x